Male Fertility: স্পার্ম কাউন্ট কমছে ! করোনায় পুরুষের প্রজননশক্তি বিপদের মুখে ! বলছেন খোদ চিকিৎসকেরা

60


#নয়াদিল্লি: গত ৩ থেকে ৪ দশক ধরে একটা গুরুত্বপুর্ণ বিষয় চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সেটা হল পুরুষের ফার্টিলিটি (Male Fertility)। পুরুষদের মধ্যে শুক্রাণুর গুণমানের পাশাপাশি গড় ফার্টিলিটিও বিশ্বব্যাপী ভয়াবহ ভাবে হ্রাস পেয়েছে। সমীক্ষায় বলা হচ্ছে গড়ে ২০ জনের মধ্যে ১ জন পুরুষ শুক্রাণুর গুণমান নিয়ে ভুগছেন। এই ক্রমবর্ধমান সংখ্যা পরিবেশে এক অদৃশ্য চ্যালেঞ্জের সমনে নিয়ে আসছে।

নয়ডার ফার্টিলিটি ক্লাউডাইনাইন গ্রুপ হাসপাতালের (Cloudnine Group of Hospitals) সহযোগী পরিচালক ডা. শ্বেতা গোস্বামী (Dr. Shweta Goswami), বলেন “পুরুষদের মোটা হওয়ার প্রবণতা একটা বড় কারণ ফার্টিলিটির ক্ষেত্রে”। এছাড়াও পুরুষ বন্ধ্যাত্বের পিছনে জন্মগত কিছু কারণও থাকতে পারে। আইএএনএসলাইফ-কে (IANSlife) ডা. গোস্বামী বলেছেন ২০২০ সালের ১৯ ডিসেম্বর-এ দ্য ল্যানসেটে (The Lancet) পুরুষ বন্ধ্যাত্ব সম্পর্কিত একটি সমীক্ষায় বলা হয়েছে বহু দম্পতির মধ্যে বন্ধ্যাত্বের মতো অসুবিধা সামনে এসেছে। তিনি আরও বলেন, ২০১৯-এ কোভিড ১৯ সংক্রমণ সামনে আসতেই পুরুষের ফার্টিলিটি সমস্যাগুলি আরও বেশি করে সামনে আসতে শুরু করেছে। তবে এই পুরুষের ফার্টিলিটি-তে এই মারণ ভাইরাস কতটা প্রভাব ফেলছে তা এখনও স্পষ্ট নয়। তবে এই নিয়ে গবেযণা চলছে। এই সংক্রান্ত একটি জার্নালের রিপোর্ট বলছে কোভিড ১৯ সংক্রমণ ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে। কারণ semen volume, sperm morphology, sperm concentration, sperm number-এর ওপর এর প্রভার পড়ছে। এর আগেও এমন অনেক প্রমান মিলেছে, যেখানে দেখা গিয়েছে বিভিন্ন ধরনের ভাইরাসের কারণে পুরুষের ফার্টিলিটি-কে প্রভাবিত করেছে বলে দাবি করেছেন ডা. গোস্বামী।

পুরুষ বন্ধ্যাত্ব নিয়ে কয়েকটি মিথ আজও প্রচলিত।

মিথ ১ – বন্ধ্যাত্ব একটি মহিলা সমস্যা এবং পুরুষদের এটির সঙ্গে কোনও সম্পর্ক নেই।

এই প্রচলিত কথাটি সমাজে দীর্ঘকাল ধরে প্রচলিত রয়েছে। এটি বোঝা গুরুত্বপূর্ণ যে বন্ধ্যাত্ব লিঙ্গ-নির্দিষ্ট সমস্যা নয় এবং এটি মহিলাদের পাশাপাশি পুরুষদেরও প্রভাবিত করতে পারে।

মিথ ২- গর্ভাবস্থার পরিকল্পনার ক্ষেত্রে শুধুমাত্র মহিলাদেরই তাদের স্বাস্থ্যের যত্ন নেওয়া উচিত।

এটি সম্পূর্ণ ভুল চিন্তা ভাবনা। কারণ, একটি সুস্থ শিশুর জন্মের জন্য গুণমানের ডিম্বানুর পাশাপাশি ভালো শুক্রাণুর প্রয়োজন হয়। এমন অনেক কারণ রয়েছে, যা শুক্রাণুর গুণমানকে প্রভাবিত করতে পারে যার মধ্যে অতিরিক্ত ধূমপান, মদ্যপান, ক্ষতিকারক রাসায়নিকের সংস্পর্শ, টাইট আন্ডারওয়্যার এবং যৌন রোগ। তাই পুরুষদেরও স্বাস্থ্যকর অভ্যাস পালন করা দরকার।

মিথ ৩- পুরুষরা সারাজীবন সন্তান জন্ম দিতে সক্ষম।

এটাও কোনও প্রমানিত সত্য নয়। কিছু ক্ষেত্রে দেখা গিয়েছে ৭০ বছরের পুরুষ সন্তান জন্ম দিতে সক্ষম। তবে সেটা সংখ্যায় অনেক কম। কারণ, নির্দিষ্ট বয়সের পরে শুক্রাণুর গুণমান হ্রাস পেতে শুরু করে, ফলে সন্তান জন্ম দেওয়ার সক্ষমতা কমে যায় পুরুষদের। অনেক সময়ে বেশি বয়েসের পুরুদের জন্ম দেওয়া সন্তানদের মধ্যে অস্বাভাবিকতা দেখা যায়।



Source link