৩ দিন পর ঢাকার রাস্তায় গণপরিবহন

90


স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: তিন দিন পর ফের ঢাকার রাস্তায় গণপরিবহন। এতে যাতায়াতের সুযোগ পেয়ে কিছুটা স্বস্তি পেলেও বাড়তি ভাড়ায় ক্ষিপ্ত যাত্রীরা। ডিজেলের দাম বাড়ানোর পর বাস মালিকদের দাবির মুখে গণপরিবহনের ভাড়া বাড়িয়েছে সরকার। তবে এখনো গেজেট না হলেও বাড়তি ভাড়ায় যাত্রী পরিবহন শুরু করেছে রাজধানীতে চলাচলকারী বাসগুলো। সর্বনিম্ন ভাড়া নেওয়া হচ্ছে ১০ টাকা।

সোমবার (৮ নভেম্বর) সকাল ৭টা থেকে সাড়ে ৭টা পর্যন্ত রাজধানীর কল্যাণপুর, শ্যামলী, মোহাম্মাদপুর, ধানমন্ডি, সায়েন্স ল্যাব, শাহবাগ, মৎস্য ভবন এলাকা ঘুরে দেখা গেল এই চিত্র।

এলাকাগুলো সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, আগের নিয়মেই সকাল থেকে রাস্তায় গণপরিবহন। আর অফিসগামী যাত্রীদের চাপ সেই সাধারণ সময়ের মতোই দেখা গেল। তবে বাড়তি ভাড়া নিয়ে বাসের হেলপারদের সঙ্গে যাত্রীদের বাকবিতণ্ডায় জড়াতেও দেখা গেছে।

কল্যাণপুর বাস স্ট্যান্ড এলাকায় সাভার থেকে গুলশান-২ এর নতুন বাজারগামী বৈশাখী পরিবহনের একটি বাসকে যাত্রী তুলতে দেখা গেল। বাসের হেলপার নূর মোহাম্মদের (১৮) কাছে জানতে চাইলে বললেন, ‘গাবতলী থেকে নতুন বাজারের আগের ভাড়া ছিল ৩০ টাকা। আজ (সোমবার) থেকে আমরা ৪০ করে নিচ্ছি। আর মহাখালী পর্যন্ত ২৭ টাকা ভাড়া, যা আগে ছিল ২০ টাকা। তবে সর্বনিম্ন ভাড়া ১০ টাকা, আগে ছিল ৫ টাকা।’

সেখানেই ঠিকানা পরিবহন থেকে নামলেন চাকরিজীবী মোক্তার হোসেন (৩২)। তিনি সারাবাংলাকে বলেন,‘আগে গাবতলী থেকে এখানে আসলে ৫ টাকা দিলেই হতো। কিন্তু আজকে (সোমবার) ১০ টাকা নিল।’

কয়েকজন হেলপারের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, স্বজন ও সাভার পরিবহনে গাবতলী থেকে সদরঘাটে ভাড়া নিতেন ৩০ টাকা। এখন ৪০ টাকা করে নিচ্ছেন। আর শাহাবাগ পর্যন্ত ভাড়া নিচ্ছেন ২৫ টাকা, আগে নিতেন ২০ টাকা। এদিকে লাব্বাইয়েক পরিবহনে গাবতলী থেকে মগবাজার পর্যন্ত ৩০ টাকা ভাড়া নিচ্ছে, আগে ছিল ২৫ টাকা। আর সর্বনিম্ন ভাড়া ১০ টাকা করে নেওয়া হচ্ছে।

এদিকে মোহাম্মদপুর থেকে ছেড়ে যাওয়া বাসের চালক, হেলপার ও যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মোহাম্মদপুর থেকে শাহবাগের ভাড়া আগে ছিল ১০ টাকা। এখন নতুন ভাড়া নিচ্ছেন ১৫ টাকা। নূন্যতম ভাড়া ১০ টাকা। এ সময় বাসের হেলপারদের সঙ্গে যাত্রীদের ভাড়া নিয়ে বির্তক করতে দেখা যায়।

এ বিষয়ে যাত্রী আজগর হোসেন সারাবাংলাকে বলেন, ‘আমলারা তো অফিসে বসে সব ঠিক করে দেন। তাদের তো রাস্তায় নামতে হয় না। ভোগান্তি যতসব আমাদের।’

জানতে চাইলে রজনীগন্ধা পরিবহনের একটি বাসের হেলপার মনির সারাবাংলাকে বলেন, ‘সরকারের নিদের্শনা অনুয়ায়ী ভাড়া বাড়ানো হয়েছে। আমরা তো জোর-জবরদস্তি করে ভাড়া নিচ্ছি না।’

এর আগে, গত বুধবার (৩ নভেম্বর) ঘোষণা দিয়ে ডিজেলের দাম প্রতি লিটার ৬৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৮০ টাকা নির্ধারণ করে সরকার। গত বৃহস্পতিবার থেকে ডিজেলের বর্ধিত এই দাম কার্যকর হয়। এর প্রতিবাদে ডিজেলের দাম কমানো কিংবা ডিজেলের নতুন দামের সঙ্গে যাত্রী পরিবহনের ভাড়া সমন্বয়ের দাবিতে শুক্রবার (৫ নভেম্বর) সকাল থেকেই অঘোষিত ধর্মঘট শুরু করেন পরিবহন মালিক সমিতি। দূরপাল্লার, তথা আন্তঃজেলা বাসের পাশাপাশি বন্ধ ছিল ঢাকা মহানগরের বাসগুলোও।

বাস মালিকদের দাবির মুখে রোববার (৭নভেম্বর) সকালে জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিসহ বাস মালিক ও সংশ্লিষ্টদের নিয়ে বৈঠকে বসে বিআরটিএ। প্রায় সাত ঘণ্টার বৈঠক শেষে বিকেলে সাংবাদিকদের ব্রিফ করে গণপরিবহনের ভাড়া বাড়ানোর ঘোষণা দেন বিআরটিএ চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদার।

বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ঢাকা মহানগরে বাসের ভাড়া প্রতি কিলোমিটারে ১ টাকা ৭০ পয়সা থেকে বেড়ে হয়েছে ২ টাকা ১৫ পয়সা। মিনিবাসের ভাড়া প্রতি কিলোমিটারে ১ টাকা ৬০ পয়সা থেকে বেড়ে হয়েছে ২ টাকা ৫ পয়সা। এছাড়া ঢাকায় মিনিবাসে সর্বনিম্ন ভাড়া ৫ টাকা থেকে বেড়ে হচ্ছে ৮ টাকা, বাসের সর্বনিম্ন ভাড়া ৮ টাকা থেকে বেড়ে হচ্ছে ১০ টাকা।

এদিকে, দূরপাল্লার বাসে প্রতি কিলোমিটারের ভাড়া ছিল ১ টাকা ৪২ পয়সা থেকে বেড়ে হয়েছে ১ টাকা ৮০ পয়সা। তবে সিএনজিচালিত বাসের ক্ষেত্রে ভাড়া বাড়বে না বলে জানিয়েছে বিআরটিএ।

সারাবাংলা/এসএস/এনএস/একেএম





Source link