১ ভোটও পাননি তিনি

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি
চট্টগ্রাম-১০ (ডবলমুরিং-পাহাড়তলী) আসনে গণসংহতি আন্দোলনের মনোনিত প্রার্থী সৈয়দ মোহাম্মদ হাসান মারুফ রুমী। কোদাল প্রতীকে নির্বাচন করে একটি ভোটও পাননি তিনি। অথচ তার নির্বাচনী প্রচারণায় কোনো কমতি ছিল না। দেয়ালে দেয়ালে ছিল পোস্টারও।

গতকাল রোববার শেষ হওয়া একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচরে চট্টগ্রাম-১০ আসনে বিজয়ী হন আওয়ামী লীগ প্রার্থী আফছারুল আমীন। নৌকা প্রতীকে তিনি পেয়েছেন ২ লাখ ৮৭ হাজার ৪৭ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি প্রার্থী আব্দুল্লাহ আল নোমান ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৪১ হাজার ৩৯০ ভোট। এ ছাড়া অন্যান্য প্রার্থীরাও ভোট পেয়েছেন। শুধু রুমী কোনো ভোট পাননি।

!-- Composite Start -->
Loading...

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হয়ে রুমী কোনো ভোট না পাওয়া একটি অনন্য নজির। শূন্য কোনো অর্জন না হলেও তার ভাগ্যে জুটেছে এই সংখ্যাটি। ব্যালট বাক্সে তার কোদাল মার্কায় একটি সিলও পড়েনি।

সৈয়দ মোহাম্মদ হাসান মারুফ রুমী চট্টগ্রামের বড় বড় সব সাংস্কৃতিক আয়োজনের একজন সর্বাগ্রগণ্য উদোক্তা। চট্টগ্রামের হোল্ডিং ট্যাক্স বৃদ্ধির বিরুদ্ধে আন্দোলনে তিনি ছিলেন নির্বাচিত মুখপাত্র। চট্টগ্রামে পোষাক শ্রমিকদের আন্দোলন ও নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনেও রুমীর ভূমিকা ছিল অগ্রগন্য।

এমনকি তার প্রচারণায় অংশ নিয়েছিলেন এলাকার কয়েকটি সংগঠনের সংগঠক, রাজনৈতিক কর্মী, প্রসিদ্ধ শিক্ষক, শিক্ষার্থী, সাহিত্যিক, মানবাধিকার আইনজীবীরা। স্থানীয় ও জাতীয় পত্র পত্রিকায় রুমীকে গুরুত্বও দেওয়া হয়েছে। প্রতীক বরাদ্দের পর থেকে গণসংযোগ বা নির্বাচনী প্রচারণায় পিছিয়ে ছিলেন না রুমী।

এ বিষয়ে কথা বলতে চট্টগ্রামের গণসংহতি আন্দোলনের এই নেতার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। এমনকি দলটির কেন্দ্রীয় প্রধান সমন্বয়ক জুনায়েদ আব্দুর রহিম সাকির সঙ্গে কথা বলতে তার মোবাইল নম্বরে কল দেওয়া হলেও সেটি বন্ধ পাওয়া গেছে।

মতামত দিন

Post Author: bdnewstimes