স্বাস্থ্য বিভাগের ‘মিঠু সিন্ডিকেট’ ভাঙার অনুরোধ এমপি একরামুলের

0
201

নোয়াখালী-৪ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ একরামুল করিম চৌধুরী এক ভিডিও বার্তায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে স্বাস্থ্য বিভাগের ‘মিঠু সিন্ডিকেট’ ভাঙার অনুরোধ জানিয়েছেন। গত ২২ জুন নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে পোস্ট করা এক ভিডিওতে তিনি এ অনুরোধ জানান।

সাংসদ একরামুল করিম বলেন, ‘আজকে নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর এবং ফেনী-এই তিন ডিস্ট্রিকের করোনা পরীক্ষা বন্ধ কিটের অভাবে। কিটের অভাবে এই বন্ধ হওয়ার কারণে মানুষের মধ্যে হাহাকার সৃষ্টি হয়েছে। আমি দু-তিন দিন আগে বলেছিলাম, স্বাস্থ্য বিভাগ একটা আজগুবি বিভাগ, কিন্তু এখন আমার কাছে মনে হচ্ছে, এটা আজগুবি নয়, মহা আজগুবি বিভাগ।’

ভিডিও পোস্টে এই সাংসদ বলেন, ‘আজকে (সোমবার) স্বাস্থ্যমন্ত্রী নিজেই নাকি বলেছেন, আমাকে একজন বলল, উনি বলেছেন কিটের অভাব। কিন্তু আমার জানা মতে, আমি জানি বাংলাদেশে তিনটা-চারটা কোম্পানি-ব্যবসায়ী, প্রায় ১০ লক্ষের মতো কিট তারা এনে রেখেছে। তারা দিতে পারছে না “মিঠু সিন্ডিকেটের” কারণে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের “মিঠু সিন্ডিকেট” যতক্ষণ পর্যন্ত ভাঙা না যাবে এই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কখনোই ভালো অবস্থানে থাকবে না।’

একরামুল করিম বলেন, ‘আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে বলব, বাংলাদেশ থেকে দুই/তিন দিনের মধ্যে ক্যাসিনোকে ধ্বংস করেছেন আপনি, মানুষের কাছে জনপ্রিয়তার শীর্ষে পৌঁছে গিয়েছেন, আমি আপনার কাছে অনুরোধ করব স্বাস্থ্যসেবার একজন কর্মী হিসেবে, বাংলাদেশের একজন নাগরিক হিসেবে আপনি এই সিন্ডিকেটটা একটু ভাঙার ব্যবস্থা করুন স্বাস্থ্যসেবায়।’

স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে এই সিন্ডিকেট ভাঙা গেলে দেশের মানুষ অনেক সুফল পাবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এই মিঠু গংরা ওখানে সিন্ডিকেট করে গোটা স্বাস্থ্য বিভাগকে কাবু করে রেখেছে।’

এই সাংসদ নোয়াখালীর প্রত্যেক ওয়ার্ডে করোনাবিরোধী সংগ্রাম কমিটি গঠন করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘নোয়াখালীর প্রত্যেকটা ওয়ার্ডে আপনারা কমিটি গঠন করুন এবং করোনাবিরোধী সংগ্রাম কমিটি গঠন করুন। প্রয়োজনে বিরোধী দলের কেউ যদি আসতে চায়, তাদেরকে নিয়ে নিন। যে সব বাড়ি করোনা আক্রান্ত প্রত্যেকটা বাড়িতে লাল পতাকা উড়িয়ে দিন এবং ওখানে সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দিন যে, “এটা করোনা আক্রান্ত বাড়ি”। এই বাড়িতে কারো ঢোকা যাবে না, কারো বের হওয়া যাবে না।’

নোয়াখালীর এই সংসদ সদস্য আরও বলেন,‘এটা আমার নির্দেশনা রইল আপনাদের কাছে নোয়াখালীর সকলের কাছে কোন এমপি কী বলল, কে কী বলল… আমি জেনারেল সেক্রেটারি অব নোয়াখালী ডিস্ট্রিক্ট আওয়ামী লীগ, আমি আপনাদের রিকোয়েস্ট করছি, নির্দেশনা দিচ্ছি, আপনারা গড়ে তুলন সংগ্রাম কমিটি এবং একটু মুক্তিযুদ্ধের চিন্তা করে এই অদৃশ্য শত্রুর জন্যে (বিরুদ্ধে) মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে দাঁড়িয়ে যান। আমি মনে করি আপনার একটু দাঁড়ানো গোটা বাংলাদেশকে রক্ষা করবে।’

Leave a Reply