সুশান্তের প্রেমিকা রিয়া গ্রেপ্তার | United news 24

0
50

ডেস্ক নিউজ :: অবশেষে গ্রেপ্তার হলেন সুশান্ত সিং রাজপুত মামলার মূল অভিযুক্ত রিয়া চক্রবর্তী। মঙ্গলবার (৮ সেপ্টেম্বর) ঘণ্টা খানেক জেরার পর নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরোমাদক কাণ্ডে রিয়াকে গ্রেপ্তার করে। বিগত কয়েক দিন ধরেই রিয়া চক্রবর্তীর গ্রেপ্তারির জল্পনা শোনা যাচ্ছিল। আজ অবশেষে এনসিবি গ্রেপ্তার করল এই অভিনেত্রীকে।

গ্রেপ্তারের পর প্রথমে মেডিকেল টেস্টের জন্য নিয়ে যাওয়া হয় রিয়াকে। এরপর বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) অন্য তিন অভিযুক্তের সঙ্গে আদালতে তোলা হবে এই অভিনেত্রীকে।

এর আগে রিয়ার ভাই সৌভিক চক্রবর্তী এবং অভিনেতার ম্যানেজার স্যামুয়েল মিরান্ডাকে গ্রেপ্তার করেছিল এনসিবি। সুশান্ত মৃত্যুকাণ্ডের নেপথ্যে রিয়ার হাত না থাকলেও মাদক পাচারকারীচক্রের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে যোগাযোগ থাকায় রিয়া যে গ্রেপ্তার হতে পারে, তা আগেই শোনা গিয়েছিল।

অন্যদিকে নারকোটিক্স বিভাগ চাইছে দিন কয়েক জেল হেফাজতে রেখে অন্যান্য অভিযুক্তদের পাশাপাশি রিয়া চক্রবর্তীকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হোক। কারণ এই মুহূর্তে তদন্তের স্বার্থে এটাকেই উপযুক্ত বলে মনে করছেন গোয়েন্দা আধিকারিকরা। প্রসঙ্গত, গতকালই রিয়ার বাবা ইন্দ্রজিৎ চক্রবর্তী মন্তব্য করেছিলেন যে, “জানি আমার ছেলে সৌভিকের পর এবার রিয়াকেই গ্রেপ্তার হতে হবে!”

উল্লেখ্য, সুশান্ত মামলায় টানা তিন দিন রিয়া চক্রবর্তীকে জিজ্ঞাসাবাদ করছেন নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরোর আধিকারিকরা। মঙ্গলবার সকালেই মুম্বইয়ে এনসিবি দপ্তরে পৌঁছে যান রিয়া। অন্যদিকে, আবার অভিনেত্রীর অভিযোগের ভিত্তিতেই সুশান্তের দিদি প্রিয়াঙ্কা সিং এবং রাম মনোহর লোহিয়া হাসপাতালের চিকিৎসক তরুণ কুমারের বিরুদ্ধে মামলা নথিভুক্ত করেছে মুম্বাই পুলিশ।

গত ১৪ জুন মুম্বইয়ের বান্দ্রার বাড়ি থেকে সুশান্ত সিংহ রাজপুতের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। শুরুতে মুম্বাই পুলিশের হাতেই তদন্তভার ছিল। পরে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে তা কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিবিআইয়ের হাতে ওঠে। সেই মামলায় রিয়ার হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট থেকে মাদকযোগের কথা উঠে এলে, আলাদা করে তদন্ত শুরু করে এনসিবি। তা নিয়ে গত সপ্তাহে দফায় দফায় জেরার পর শুক্রবার রিয়ার ভাই শৌভিক ও সুশান্তের প্রাক্তন ম্যানেজার স্যামুয়েল মিরান্ডাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার হন সুশান্তের হাউজ হেল্প দীপেশও। ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত হেফাজতে রয়েছেন তাঁরা।

Print Friendly, PDF & Email

Source link

মতামত