‘সুযোগ পেলে আমিও স্বাস্থ্যসাথী কার্ড করবো’, বললেন দিলীপ

0
61

কলকাতা, ১৩ জানুয়ারি- রাজ্যের ‘স্বাস্থ্যসাথী’ প্রকল্প এতদিন তাঁর কাছে ছিল ভাঁওতা৷ কিন্তু তাঁর পরিবার ‘স্বাস্থ্যসাথী’র কার্ড করাতেই উল্টো সুর শোনা গেল বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের গলায়৷ বললেন, তিনি স্বাস্থ্যসাথীর কার্ডের বিরোধী নন!

তৃণমূল সরকারের স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্প। রাজ্যের প্রতি পরিবারপিছু পাঁচ লক্ষ টাকা ক্যাশলেস চিকিৎসার পরিষেবা। বঙ্গের সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে স্বাস্থ্যসাথির কার্ড দেখালেই এই প্রকল্পের সুবিধা। এমনকী দিল্লির এইমস ও ভেলোরেও কার্ডের সুবিধা মিলবে। রাজ্যের ‘স্বাস্থ্যসাথী’ প্রকল্প নিয়ে কড়া সমালোচনা জারি রেখেছেন বিজেপি নেতারা। কেন্দ্রের ‘আয়ুষ্মান ভারত’ প্রকল্পের পক্ষেই সওয়াল করছেন তাঁরা। তৃণমূল সরকারের স্বাস্থ্যসাথি প্রকল্পকে বিজেপি রাজ্য সভাপতিই কখনও বলেছেন ভাঁওতা। কখনও বলেছেন ভোটের আগে ভেট। কিন্তু ‘স্বাস্থ্যসাথী’র ‘সুফল’ হাতছাড়া করতে নারাজ গেরুয়া শিবিরের নেতাদের অনেকেই। স্বাস্থ্যসাথীর কার্ডই নিলেন খোদ বিজেপি রাজ্য সভাপতির পরিবার। ঝাড়গ্রামে কুলিয়ানার বাড়িতে দিলীপ ঘোষের আত্মীয়রা স্বাস্থ্যসাথীর কার্ড হাতে পেয়েও গিয়েছেন।

বিজেপির রাজ্য সভাপতি নিজে কার্ড না নিলেও তাঁর ভাইয়ের স্ত্রী ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা ঝাড়গ্রামের গোপীবল্লভপুরের কুলিয়ানা গ্রামে স্বাস্থ্যসাথীর ক্যাম্পে হাজির হয়ে কার্ড করিয়েছেন। বিষয়টি নিয়ে বিড়ম্বনাও বাড়ছে গেরুয়া শিবিরের। এবার বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ নিজে জানালেন, তিনি স্বাস্থ্যসাথীর বিরোধী নন, সুযোগ পেলে তিনিও কার্ড করাবেন।

আরও পড়ুন :  মুখেই বিরোধিতা! স্বাস্থ্যসাথী কার্ড নিলেন দিলীপ ঘোষের পরিবারের সদস্যরা

দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘আমি স্বাস্থ্যসাথী কার্ডের বিরোধিতা করছি না। কিন্তু আমি এই লুঠেরা সরকারের প্রতারণার বিরোধী। সরকারের সমালোচনা আমি করবই। কিন্তু স্বাস্থ্যসাথী কার্ড করার সুযোগ পেলে আমিও করব।’ তাহলে এত অভিযোগ কেন বিজেপির? দিলীপের কটাক্ষ, ‘স্বাস্থ্যসাথীর কার্ড পেলেন, কিন্তু হাসপাতালে চিকিৎসার কোনও সুযোগ পেলেন না, তখন কী হবে? ওই কার্ড মাথায় নিয়ে শুলে জ্বর, শরীর খারাপ কমে যাবে?’

উল্লেখ্য, রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষের আদি বাড়ি ঝাড়গ্রামের গোপীবল্লভপুরের কুলিয়ানা গ্রামে। এখনও সাংসদের মা, ভাই-সহ পরিবারের সদস্যরা সেখানেই থাকেন। ভাই হীরক ঘোষ গোপীবল্লভপুর ২ নম্বর ব্লকের বিজেপির মণ্ডল সভাপতি। খুড়তুতো ভাই সুকেশ ঘোষ জেলা বিজেপির সহ-সভাপতি। তাই স্বাভাবিকভাবেই দিলীপ ঘোষের পাশাপাশি তাঁর ভাইদের গলায়ও সর্বদাই শোনা যায় মুখ্যমন্ত্রী বিরোধী সুর। স্বাস্থ্যসাথী কার্ড প্রসঙ্গেও বারবার রাজ্যকে নিশানা করতে দেখা গিয়েছে তাঁদের। এসবের মাঝেই সম্প্রতি যেখানে গোপীবল্লভপুরের কুলিয়ানা এলাকার বাসিন্দাদের স্বাস্থ্যসাথী কার্ডের ছবি তোলা হচ্ছে, সেখানে দেখা যায় হীরক ঘোষের স্ত্রী-সহ পরিবারের বেশ কয়েকজনকে। স্বাভাবিকভাবেই বঙ্গবিজেপির প্রথম সারির নেতার পরিবারের সদস্যদের এই কার্ডের লাইনে দেখে চর্চা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। যা নিয়ে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি তৃণমূল৷

সূত্র: কলকাতা২৪x৭

আর/০৮:১৪/১৩ জানুয়ারি

Source link