সিএমপি’র ইপিজেড থানা পুলিশ কর্তৃক উঠতি ডাকাত দলের সক্রিয় ০৬ সদস্য গ্রেফতার

ইপিজেড থানার অফিসার ইনচার্জ জনাব মীর মোঃ নূরুল হুদা এর সার্বিক দিকনির্দেশনায় এবং পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জনাব মুহাম্মদ ওসমান গনি এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে ইপিজেড থানার এসআই/ চাংকু নাগ সঙ্গীয় এএসআই/ মোঃ মনিরুজ্জামান মনির, কং/ ৫৪১০ সুকদেব পাল, কং/ ৪৬৩৭ মোঃ আব্দুল হক ও মোবাইল-৫১ অফিসার এসআই/ কামাল হোসেন, কং/ ৩৯১৮ মোঃ মমিনুল ইসলাম, কং/ ৪১৯৬ দেবাশীষ মন্ডল, ড্রাইভার কং/ ৩২৭৯ মোঃ ইউসুফ, সর্ব ইপিজেড থানা, সিএমপি, চট্টগ্রামগণ আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে থানা এলাকায় বিশেষ নিরাপত্তা ডিউটি করাকালীন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ইং ০৯/০৮/২০১৯ তারিখ দিবাগত রাত অনুমান ০০.৪৫ ঘটিকার সময় ইপিজেড থানাধীন টিসিবি ভবনের পিছনে পুকুরের পূর্ব-উত্তর কোনায় বড় ফুল গাছের নিচে খালি জায়গায় অভিযান পরিচালনা করিয়া উঠতি ডাকাত দলের সক্রিয় সদস্য ১) মোঃ বাবুল প্রকাশ বাবু (২২), পিতা-মোঃ খলিল, মাতা-পারুল আক্তার, সাং-মিঠাখালী, তালুকদার বাড়ী, থানা-মংলা, জেলা-বাগেরহাট, বর্তমানে-সেকান্দর কলোনী, সাগরপাড় রোড, ধুমপাড়া, কলসিদীঘির পাড়, থানা-বন্দর, জেলা-চট্টগ্রাম, ২) মোঃ সবুজ (১৯), পিতা-মোঃ ইউছুফ, মাতা-মোসাঃ রেনু আক্তার, সাং-সূর্যমনি, খাইগো বাড়ী, থানা-মঠবাড়ীয়া, জেলা-পিরোজপুর, বর্তমানে-সাগরপাড় রোড, ষাট বৎসর কলোনী, ধুমপাড়া, কলসিদীঘির পাড়, থানা-বন্দর, জেলা-চট্টগ্রাম, ৩) মোঃ আরিফ (২৬), পিতা-মোঃ বাচ্চু মিয়া, মাতা-মনোয়ারা বেগম, সাং-মধ্যম তাইছুটে, ভূইয়া বাড়ী, চৌদ্দগ্রাম, বর্তমানে-মাইলের মাথা, বড় মসজিদের পাশে, থানা-ইপিজেড, চট্টগ্রাম, ৪) মোঃ মামুন (২০), পিতা-মোঃ ফরিদ, মাতা-রীনা বেগম, সাং-খাইয়ুনমারী, হালিশ সিকদার বাড়ী, থানা-মোংলা, জেলা-বাগেরহাট, বর্তমানে-ব্যারিষ্টার কলেজ, সেলিম বিল্ডিং, থানা-ইপিজেড, চট্টগ্রাম, ৫) মোঃ রিপন (১৯), পিতা-মৃত লোকমান সিকদার, মাতা-তাসলিমা বেগম, সাং-পঞ্চগরন, সিকদার বাড়ী, থানা-মোড়েলগঞ্জ, জেলা-বাগেরহাট, বর্তমানে-কলসিদীঘির পাড়, ইমাম হাজী কলোনী, থানা-বন্দর, জেলা-চট্টগ্রাম, ৬) মোঃ নাদিম (১৫), পিতা-মোঃ হারুন, মাতা-রেজিয়া বেগম, সাং-লাল্লু বাজার, বেপারী বাড়ী, থানা-ভান্ডারিয়া, জেলা-বরিশাল, বর্তমানে-বশির মোহাম্মদ রোড, তাহের বিল্ডিং, ধুমপাড়া, কলসিদীঘির পাড়, থানা-বন্দর, জেলা-চট্টগ্রামদেরকে আটক করেন এবং অপরাপর অজ্ঞাতনামা ডাকাতেরা বিভিন্ন অলিগলি দিয়া দৌঁড়াইয়া পালাইয়া যাওয়ায় তাহাদেরকে আটক করা সম্ভব হয় নাই। ধৃত ডাকাতদের হেফাজত হইতে ০৫টি ধারালো ছোরা ও ০১টি রামদা উদ্ধার করা হইয়াছে। ধৃত ডাকাতদেরকে জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেন যে, তাহারা সহ তাহাদের সহযোগী অজ্ঞাতনামা পলাতক ডাকাতগণ আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা গরু/ছাগল ব্যবসায়ীদের নিকট থেকে টাকা-পয়সা ছিনতাই এবং ঘরমুখী মানুষের নিকট থেকে টাকা-পয়সা ও মূল্যবান জিনিসপত্র ছিনাইয়া নেওয়ার উদ্দেশ্যে ধারালো ছোরা ও অস্ত্র-শস্ত্র সহকারে সমাবেত হইয়াছিল। এই ঘটনায় ইপিজেড থানায় পৃথক ০২টি মামলা রুজু করা হইয়াছে। পলাতক ডাকাতদের গ্রেফতারের জোড়ালো অভিযান অব্যাহত আছে।

মতামত দিন

Post Author: bdnewstimes