সিআরবিতে হাসপাতাল প্রকল্প বাতিলের দাবিতে মশাল মিছিল

95


স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রামের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমণ্ডিত সিআরবিতে হাসপাতাল নির্মাণ প্রকল্প বাতিলের দাবিতে প্রগতিশীল গণসংগঠনসমূহের ব্যানারে মশাল মিছিল ও বিক্ষোভ সমাবেশ হয়েছে। সমাবেশ থেকে সিআরবির বাইরে চট্টগ্রামের অন্য কোথাও সরকারি একটি হাসপাতাল নির্মাণের দাবি জানানো হয়েছে।

শুক্রবার (২০ আগস্ট) সন্ধ্যায় সিআরবির সাত রাস্তার মোড় থেকে প্রগতিশীল গণসংগঠনসমূহ, চট্টগ্রামের ব্যানারে নেতাকর্মীরা মশাল মিছিল নিয়ে হাসপাতালের প্রস্তাবিত এলাকা প্রদক্ষিণ করেন।

পরে এক বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তারা বলেন, ‘চট্টগ্রাম শহরের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য আজ ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। অব্যাহতভাবে কাটা হচ্ছে পাহাড়। নদী দখল হচ্ছে। এই শহর থেকে হারিয়ে গেছে জলাশয়। শিশুদের খেলার মাঠ হারিয়ে গেছে। চট্টগ্রাম শহরের প্রাণকেন্দ্রে সর্বশেষ একমাত্র উদ্যান সিআরবি, যেখানে নানা বয়সী, নানা শ্রেণিপেশার মানুষ গিয়ে একটু প্রাণভরে নিঃশ্বাস নিতে পারে। বুকভরে বাতাস নিতে যেকোনো মূল্যে চট্টগ্রামের ফুসফুস সিআরবির প্রাকৃতিক পরিবেশকে রক্ষা করতে হবে।’

বক্তারা আরও বলেন, ‘সিআরবি এলাকা ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন ও একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত। এখানে মুক্তিযুদ্ধে ৯ জন শহীদের কবর আছে। হাসপাতাল হলে সিআরবিতে নতুন নতুন দালান, অবকাঠামো, দোকানপাট, পার্কিং, ফার্মেসি, হোটেল-রেস্টুরেন্ট, ডায়াগনস্টিক সেন্টার, গড়ে উঠবে। পুরো এলাকা জঞ্জালময় ও কোলাহলপূর্ণ হয়ে উঠবে। শতবর্ষীসহ অন্তঃত ৩০০ গাছ কাটতে হবে। কাটতে না হলেও হাসপাতালের পরিবেশগত প্রভাবে এসব গাছ বেশিদিন টিকবে না। সিআরবি পরিণত হবে মরুদ্যানে। তাই এখানে কোনোভাবেই হাসপাতাল হতে দেওয়া যায় না।’

‘এই সিআরবিতে পহেলা বৈশাখসহ বাঙালির চিরায়ত নানা সাংস্কৃতিক আয়োজন হয়। হাসপাতাল হলে এসব আয়োজন চিরতরে বন্ধ হয়ে যাবে। হাসপাতাল বানিয়ে সংস্কৃতি ধ্বংসের এই চক্রান্ত আমরা মেনে নিতে পারি না। আমরা মনে করি- জনগণের টাকায় ধনীদের জন্য চট্টগ্রামে আর হাসপাতালের দরকার নেই। এখন আমাদের দরকার গরীব মানুষের জন্য হাসপাতাল। সিআরবির বাইরে চট্টগ্রামের অন্য কোনো স্থানে সরকারি উদ্যোগে হাসপাতাল নির্মাণ করা হোক’, বলেন প্রগতিশীল গণসংগঠনের নেতারা।

চট্টগ্রাম জেলা যুব ইউনিয়নের সভাপতি রিপায়ন বড়ুয়ার সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন খেলাঘরের কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য রথিন সেন, কৃষক সমিতির নেতা ফরিদুল ইসলাম, উদীচী চট্টগ্রামের সংগঠক শীলা দাশগুপ্ত, যুব ইউনিয়ন চট্টগ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক উজ্জ্বল শিকদার, জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি এ্যানি সেন ও সাধারণ সম্পাদক ইমরান চৌধুরী।

সারাবাংলা/আরডি/এমও





Source link