‘সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার বিলম্ব হওয়ায় মৌলবাদীরা সাহস পাচ্ছে’

94


ঢাবি করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: অন্যান্য সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার বিলম্ব হওয়ার কারণে মৌলবাদী শক্তিরা সাহস পাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ।

দেশব্যাপী সনাতন ধর্মাবলম্বী ও পূজামণ্ডপে হামলায় জড়িতদের বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠন করে দ্রুত বিচারের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, প্রচলিত সাধারণ আইনে যদি বিচার না করা যায়, তবে প্রয়োজনে বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠন করুন। হামলাকারীদের বিচার করুন। আমরা যেন অসাম্প্রদায়িক চেতনার বাংলাদেশকে আবারও ফিরিয়ে আনতে পারি।

বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) বিকেলে ‘গৌরব ৭১’-এর আয়োজনে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে অনুষ্ঠিত এক প্রতিরোধ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, রামু, নাসিরনগর শাল্লাসহ দেশের বিভিন্ন জায়ায় যে সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনা ঘটেছিল, সেগুলোর বিচারকাজ এখনো সম্পূর্ণ শেষ হয়নি। বিচার বিলম্ব হওয়ার কারণে মৌলবাদী শক্তিরা সাহস পাচ্ছে।

এসময় তিনি দ্রুত এসব ঘটনার বিচার শেষ করতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি অনুরোধ জানান।

সমাজ থেকে লোকসংস্কৃতি হারিয়ে গেছে উল্লেখ করে মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, এখন গ্রামে নাটক-পালাগান-যাত্রা নেই। জারি-সারি, ভাটিয়ালি, পুঁথি গান কোনোটাই আর হয় না। এগুলো সব বন্ধ হয়ে গেছে। এগুলোর বদলে জায়গা করে নিয়েছে ওয়াজের নামে বিভ্রান্তিকর কথাবার্তা বলে মানুষকে ধর্মান্ধ করার চেষ্টা।

‘সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার বিলম্ব হওয়ায় মৌলবাদীরা সাহস পাচ্ছে’

বাহাত্তরের সংবিধানে ফিরে যেতে হবে জানিয়ে সমাবেশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মো. সামাদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আমাদের অনুরোধ, বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর বাহাত্তরের সংবিধানকে ফিরিয়ে আনুন। বাহাত্তরের সংবিধানে যদি আমরা ফিরে যেতে পারি তাহলে এই ধর্মান্ধদের আমরা উৎখাত করতে পারব। বঙ্গবন্ধুর অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশকে আমরা কায়েম করতে পারব।

সমাবেশ শেষে শহীদ মিনার থেকে লাঠি হাতে মৌলবাদ প্রতিরোধে মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি শহীদ মিনার থেকে শেখ রাসেল টাওয়ার হয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে গিয়ে শেষ হয়।

গৌরব ৭১-এর সাধারণ সম্পাদক এফ এম শাহিনের সঞ্চালনায় সমাবেশে অন্যান্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহম্মেদ মান্নাফি, নাটোর-৪ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক আবদুল কুদ্দুস, ঢাকা-৪ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সানজিদা খানম, চাঁদপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য নুরুল আমিন রুহুল, কুষ্টিয়া-৪, আসনের সংসদ সদস্য সেলিম আলতাফ জর্জ এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস প্রমুখ।

সারাবাংলা//আরআইআর/আইই





Source link