সাধনার ‘পেটে ব্যথা’! চিকিৎসকের চাঞ্চল্যকর তথ্য

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ নারী অফিস সহকারীর সঙ্গে আপত্তিকর ভিডিও প্রকাশের ঘটনায় ওএসডি (বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা) হওয়া জামালপুরে সেই ডিসি আহমেদ কবীর বৃহস্পতিবার (২৯ আগস্ট) সচিবালয়ে রিপোর্ট করতে আসার কথা ছিল।

এমন প্রচারণা ছিল ওই দিন সকাল থেকেই। গণমাধ্যমকর্মীরাও তাই কাজের ফাঁকে ফাঁকে ছুটে আসছিলেন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা, যদি তার একটু বক্তব্য পাওয়া যায়, ছবি পাওয়া যায়।

!-- Composite Start -->
Loading...

সকাল গড়িয়ে দুপুর, দুপুর গড়িয়ে বিকাল, এরপর সন্ধ্যা! সাংবাদিকদের ছোটাছুটি প্রতিমন্ত্রী এবং সচিবের দপ্তরে। কখনো আবার তথ্য কর্মকর্তা এবং ডেসপাচ কার্যালয়ে।

যোগদানের রিপোর্ট জমা হয়েছে কি-না? শেষ পর্যন্ত আলোচিত সাবেক এই ডিসির ছায়াও দেখা গেল না সচিবালয়ে। তবে এ বিষয়ে কথা বলেছেন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা।

তিনি সাংবাদিকদের জানান, ‘আজ বিশেষ ভারপ্রাপ্ত এই কর্মকর্তার রিপোর্ট করতে আসার কথা ছিল। সময় আছে, আগামী সপ্তাহে হয়তো আসবেন।’

অপরদিকে মাথায় কালো নেকাব, গায়ে বোরকা- দুটি চোখ ছাড়া কিছুই দেখা যাচ্ছে না এমনই ভিন্ন বেশে জামালপুরের জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে আসলেন সেই অফিস সহকারী সানজিদা ইয়াসমিন সাধনা। বৃহস্পতিবার ডিসি অফিসে এমনই বেশে দেখা যায় তাকে।

এর আগে সোমবারও মুখ ঢেকে হিজাব পরে ছুটির আবেদন নিয়ে এসেছিলেন ডিসি অফিসে। কিন্তু এবার সম্পূর্ণ অচেনা বেশ নিয়ে আসেন। সাংবাদিক ও অন্যদের চোখ ফাঁকি দিতে তিনি এমনই বেশ ধারণ করেন বলে জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর পৌনে ২টার দিকে ডিসির সভাকক্ষ থেকে বের হয়ে আগামী রোববার থেকে নতুন করে পাঁচদিনের ছুটির আবেদন করেন তিনি।

অবশ্য বেশি দিনের ছুটি পাওয়ার জন্য সাধনা এর আগে ঘটিয়েছেন অন্য এক কান্ড। তলপেটের ব্যথার কথা বলে চিকিৎসকের কাছ থেকে মেডিকেল সনদ নিতে ব্যর্থ হয়েছেন তিনি।

এতে তিনি চিকিৎসকের ওপর ভীষণ ক্ষিপ্ত হয়েছেন। রাগে-ক্ষোভে চিকিৎসককে দেয়া ৫শ’ টাকা ফিস ফেরত নিয়েছেন তিনি। বেশ কয়েকদিন ধরেই দেশজুড়ে আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে রয়েছেন জামালপুরের সাবেক জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীরের সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় ভিডিও ভাইরাল হওয়া সাধনা।

জামালপুর জেনারেল হাসপাতালের ওই চিকিৎসক নাম প্রকাশ না করা শর্তে তিনি জানান, গত বুধবার (২৮ আগস্ট) তলপেটে ব্যথার সমস্যা নিয়ে তার কাছে যান সাধনা।

এই অসুস্থতার জন্য তিনি ১৫ দিন তাকে রেস্টে থাকতে হবে এই মর্মে একটি মেডিকেল সার্টিফিকেট দাবি করেন। চিকিৎসক এ সময় তাকে প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখেন, তার পেটে ব্যথা হওয়ার কোনো লক্ষণ নেই।

যেকারণে তিনি সাধনাকে ওই সার্টিফিকেট দেননি। এ জন্য তার ওপর বেশ ক্ষিপ্ত হন সাধনা। পরে সার্টিফিকেট না পেয়ে চিকিৎসককে দেয়া ভিজিটের ৫শ’ টাকা ফেরত নেন তিনি।

গত ২২ আগষ্ট জামালপুরের সাবেক জেলা আহমেদ কবীরের সঙ্গে অফিস সহায়ক সানজিদা ইয়াসমিন সাধনার আপত্তিকর ভিডিও ভাইরাল হবার পর থেকেই আত্মগোপনে থাকে সাধনা।

মতামত দিন

Post Author: newsdesk

A thousand enemies is not enough; a single enemy is. There is nothing as a ‘harmless’ enemy.