‘সমাজে শিক্ষকরাই হবেন শুদ্ধাচারের প্রতীক’

77


স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান বলেছেন, ‘পৃথিবীতে শুদ্ধাচারের শ্রেষ্ঠ জায়গা হচ্ছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, যেখানে শুদ্ধাচারের পথপ্রদর্শন করা হয়। শিক্ষক নিজে ক্লাসে যা পড়াবেন, সেটিই হবে ওই সমাজের শুদ্ধাচারের প্রতীক। শিক্ষক যা করবেন, সেটি হবে সমাজে শুদ্ধাচারের বাস্তব উদাহরণ।’

বুধবার (৩০ জুন) রাতে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে অংশীজনদের নিয়ে আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

উপাচার্য বলেন, ‘ইনটিগ্রিটির প্রধান ক্ষেত্র হচ্ছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। আমাদের মাধ্যমেই অন্যান্য প্রতিষ্ঠান শিখবে। এটাই সমাজের একটা সেট নর্মস। সুতরাং এটার দায়বদ্ধতা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হিসেবে আমাদের ওপর বেশি পড়ে। প্রতিষ্ঠানের ভেতরের যে শুদ্ধাচার সেটি নিশ্চিত করতে হবে।’

শিক্ষকরা পাঠদান ও গবেষণায় বেশি নিবিষ্ট হওয়ার আহ্বান জানিয়ে উপাচার্য বলেন, ‘আমাদের মনে রাখা উচিত, শিক্ষক যে সম্মান পায় সেটা তো সমাজের অন্য পেশার মানুষ পায় না। শিক্ষক অন্যের কাছে বিশেষ করে শিক্ষার্থীর কাছে যেরকম মডেল, সেরকম তো সমাজে আর নেই। তাহলে আমাদের শূন্যতা কোথায়? দারিদ্র্য কোথায়? এপিএ, ইনটিগ্রিটি, সিটিজেন চার্টার যাই বলি না কেন, একজন শিক্ষকের জন্য ক্লাসরুম তার পবিত্র প্রাঙ্গণ। আমাদের অভাব, অভিযোগ, প্রতিবন্ধকতা, না পাওয়ার বেদনাবোধ অনেক আছে। কিন্তু আমাদের তথা শিক্ষকদের যা আছে, সেটি অনেক পেশার মানুষের নেই। বেতনের মাপকাঠিতে যদি বলেন তাহলে আমরা হয়তো পিছিয়ে আছি। কিন্তু মর্যাদার মাপকাঠিতে আমরা অনেক এগিয়ে আছি। প্রাইমারি থেকে বিশ্ববিদ্যালয়— শিক্ষকরা সমাজে অনেক বেশি পূজনীয়। এটি সমাজ এখনো ধারণ করে।’

উপাচার্য আরও বলেন, ‘আপনারা যার যার জায়গায় নেতৃত্ব দিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে কাঙ্ক্ষিত জায়গায় পৌঁছাতে পারলে কোভিডের ক্রান্তিকালের যে চ্যালেঞ্জ, সেটি জয় করে আগামীর সমাজ বিনির্মাণ করা সম্ভব হবে। দেশের উচ্চশিক্ষার ৭০ শতাংশ তরুণকে আমরা ধারণ করি। তাদের যদি আমরা তৈরি করে দিতে পারি, শুদ্ধাচার শিক্ষা দিতে পারি তাহলে আগামীর বাংলাদেশ মেরুদণ্ড সোজা করে উন্নয়নের গতিধারায় প্রবাহিত হবে। সেই উন্নয়ন শুধু অর্থনৈতিক উন্নয়ন নয়, সেই উন্নয়ন সাংস্কৃতিক জাগরণ। বাংলাদেশকে তারা দেশপ্রেমিক নাগরিক হিসেবে গভীরভাবে ভালোবাসবে।’

মানবসম্পদ উন্নয়ন ও শুদ্ধাচার দফতরের পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) জয়ন্ত ভট্টাচার্যের পরিচলনায় সভায় অন্যদের মধ্যে সংযুক্ত ছিলেন স্নাতকোত্তর শিক্ষা প্রশিক্ষণ ও গবেষণা কেন্দ্রের ডিন প্রফেসর ড. মো. আনোয়ার হোসেন, রেজিস্ট্রার মোল্লা মাহফুজ আল-হোসেন, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বদরুজ্জামান, বিভিন্ন দফতরের বিভাগীয় প্রধান ও বিভিন্ন কলেজের অধ্যক্ষ। এর আগে ২৯ জুন সিটিজেন চার্টার বিষয়ে সভা এবং ২৮ জুন নৈতিকতা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সারাবাংলা//টিএস/টিআর





Source link