শোক দিবসের সভায় গুলিবর্ষণ, যুবলীগ নেতা গ্রেফতার

75


স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক এক নেতাকে অস্ত্র ও সহযোগীসহ গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। সম্প্রতি চট্টগ্রামে জাতীয় শোক দিবসের এক অনুষ্ঠানে হামলা-গোলাগুলির পর ওই নেতার প্রকাশ্যে অস্ত্র উঁচিয়ে গুলিবর্ষণের ভিডিওদৃশ্য ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

এরপর শুক্রবার (৩ সেপ্টেম্বর) গভীর রাতে ঢাকার ধানমণ্ডি থেকে তাকে এবং শনিবার বিকেলে চট্টগ্রামের লালখান বাজার থেকে তার সহযোগীকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।

গ্রেফতার দু’জন হলেন- কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক সদস্য গিয়াস উদ্দিন সুজন (৪১) এবং তার সহযোগী আকা মাঈনউদ্দিন সাঞ্জু (৩৯)।

গত ৩০ আগস্ট চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার হাশিমপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভার আয়োজন করে। চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের পাশে চন্দনাইশের বাগিচারহাট এলাকায় মক্কা পেট্রোল পাম্পের পাশে সভা চলছিল। এক পর্যায়ে সভাস্থলে গোলাগুলি ও ইট-পাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগের দু’পক্ষে সংঘাতের পর মহাসড়ক অবরোধ করেন সভা আহ্বানকারীরা।

শোক দিবসের সভায় গুলিবর্ষণ, যুবলীগ নেতা গ্রেফতার

আরও পড়ুন:

এ সময় মহাসড়কে টায়ারে আগুন দিয়ে এর পাশে দাঁড়িয়ে গিয়াস উদ্দিন সুজনের অস্ত্র উঁচিয়ে গুলিবর্ষণের একটি ভিডিওদৃশ্য ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনায় পাল্টাপাল্টি মামলায় সুজনকেও আসামি করা হয় একটিতে।

এরপর শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে অভিযুক্ত গিয়াসউদ্দিন সুজনকে গ্রেফতারের খবর ছড়িয়ে পড়ে চট্টগ্রামে। তবে র‌্যাব এবং পুলিশের পক্ষ থেকে গ্রেফতারের বিষয়টি নাকচ করা হয়। তবে শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) রাতে র‌্যাবের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গিয়াসকে গ্রেফতারের পর তার তথ্যের ভিত্তিতে সহযোগী মাঈনউদ্দিনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার কাছ থেকে একটি বিদেশি রিভলবার ও ১৩ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

গ্রেফতার অভিযানে নেতৃত্ব দেওয়া র‌্যাব-৭ এর উপ-পরিচালক মেজর জামান সারাবাংলাকে বলেন, ‘গিয়াস এবং তার সহযোগী উভয়ই চন্দনাইশের ঘটনায় জড়িত। গিয়াস উদ্দিন যে অস্ত্র দিয়ে গুলিবর্ষণ করেছিল, সেটি আমরা তার সহযোগীর কাছ থেকে উদ্ধার করেছি।’

সারাবাংলা/আরডি/পিটিএম





Source link