রোজ তামাশা করি: নোবেল | Unitednews24.com

0
187

ডেস্ক রিপোর্ট:: সম্প্রতি সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়েছেন আলোচিত ও সমালোচিত গায়ক সংগীতশিল্পী মাঈনুল আহসান নোবেল। এক বৃদ্ধকে বাঁচাতে গিয়ে গুরুতর আহত হয়েছেন বলে সামাজিক মাধ্যমে জানান তিনি।

কিন্তু এই বিষয়টি নিয়ে নাটক সাজানোর অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে।

প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে নিজেকে দাবি করে সোয়াইব বিন আহসান নামে একব্যক্তি নোবেলের বিরুদ্ধে মিথ্যাচারের অভিযোগ তুলেছেন। দুর্ঘটনা নয় বরং রাস্তার রং সাইডে বাইক চালিয়ে নোবেল এক সাইকেল আরোহীর ওপর বেপরোয়া বাইক চালিয়ে দিয়েছেন বলে দাবি তার।

এই বিষয়টি নিয়ে দুইদিন ধরে নোবেলের কোনো ব্যক্তি পাওয়া যাচ্ছিল না। অবশেষে রোববার (২৫ এপ্রিল) বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলেছেন ভারতীয় একটি টেলিভিশনের রিয়্যালিটি শো থেকে পরিচিতি পাওয়া এই গায়ক। ফেসবুকে তিনি দাবি করেন, রোজ-রোজ তামাশা করলেও কখনো মিথ্যা বলেন না।

নোবেলের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে প্রকাশিত লেখাটি হুবহু তুলে ধরা হলো-

আসসালামু আলাইকুম। আমি মানুষ। নোবেল। আমার মৌলিক চাহিদা খাওয়া, ঘুমানো, সৃষ্টিকর্তার ইবাদত করা এবং রাসুল (স:) এর দেখানো পথে চলা। কিন্তু দুর্ভাগ্য অথবা সৌভাগ্যবশত, আমার মৌলিক প্রোফেশন অথবা বিনোদনের মাধ্যম গান শোনা, তারপর গান গাওয়া। যা হয়তো অনেকের পছন্দ, অনেকের নয়। সে বিষয়ে দু:খিত।

ছোটবেলায় নিউজ পেপারে সুডোকু খেলতাম। শুকরিয়া। এরপর নিউজ পেপার আর আমার কোনো কাজে এসেছে? ঠিক মনে পড়ে না। তবে হ্যাঁ! যেহেতু ‘নোবেল’ আপনাদের কাছে একটা পরিচিত নাম, এই নামে কিছু নিউজ তো ছাপা হতেই পারে। এতে ঘাবড়ে যাবার কিছু নেই।

পত্রিকা নিয়ে এত মাতামাতির কি আছে? এখন তো ইন্টারনেটের যুগ। পড়াশোনাও অনলাইনে হচ্ছে। পাশের বাড়ির খালাতো ভাই গতকাল ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করে বলতেছে, নোবেল ভাই! আমি সাংবাদিকতা শুরু করতেছি। দোয়া কইরো। বললাম, ওকে।

তবে পত্রিকার সাংবাদিক অথবা আমি; আমরা কেউই দৈববাণী প্রাপ্ত আল্লাহর ওলি-আউলিয়া নই যে অন্ধভাবে বিশ্বাস করতে হবে। নিউজ পেপারে তো অনেক খবরই ছাপা হয়। আর আমিও রোজ-রোজ তামাশা করি। সে বিষয়ে আমরা সকলেই অবগত এবং আমিও দু:খিত।

তবে মাথায় ৩০টা সেলাই নিয়ে কেউ তামাশা করে না। আর আমি প্রকাশ্যে, অগোচরে এমনকি অবচেতনেও মিথ্যাচার করি না। প্রকাশ্যে মিথ্যা বলতে পারলে এত সমালোচনা থাকতো না। তবে সমালোচনা নিয়ে ইদানীং আর বিচলিত হই না। আল্লাহ্‌ আমাদের সকলকে সঠিকটা বোঝার এবং জানার তৌফিক দান করুক, আমিন।

Print Friendly, PDF & Email

Source link