রাঙ্গামাটি ও কাপ্তাই সড়ক অবরোধ.দু-ঘন্টা যান চলাচল বন্ধ. মুনিরীয়া বিরুদ্বে কঠোর অবস্থানে রাউজানের জনগন

0
646

রাউজান উপজেলা সংবাদদাতাঃ
রাউজানে ত্বরিকত ভিত্তিক সংগঠন মুনিরীয়া যুবতবলীগ কমিটির উগ্র সমর্থক কর্তৃক আলেম-ওলামা, মুক্তিযোদ্ধাসহ নিরীহ মানুষকে নির্যাতন, হত্যা, ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ও বসতঘরে অগ্নি সংযোগের প্রতিবাদে ও কাগতিয়ার পীর মুনিরুল্লাহ সহ তার সহযোগীদের গ্রেপ্তারের দাবীতে চট্টগ্রাম রাঙ্গামাটি মহাসড়ক ও কাপ্তাই সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ,বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে সর্বস্তরের জনগণ।২০জানুয়ারি সোমবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত রাউজান গহিরা চৌমুহনী চত্বর রাঙ্গামাটি সড়কের উপরে রাউজানের সর্বস্তরের জনসাধারণ বিক্ষোভ সমাবেশ করতে দেখা যায়। এতে হাজার হাজার জনতা, আলেম ওলাম, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা অংশ নেন। বিক্ষুব্ধ জনতাগন গহিরা চৌমুহনী চত্বর রাঙ্গামাটি সড়কের উপরে বসে গণজাগরণ মঞ্চ গড়ে তুলেন মুনিরীয়া বিরুদ্ধে।সকাল সাড়ে ১০টায় থেকে আন্দোলন শুরু করে চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি, কাপ্তাই সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে সড়কের যান চলাচল বন্ধ করে দেয় বিক্ষুব্দরা।তার পাশাপাশি ছোট বড় সড়ক গুলাতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে জনদূর্ভোগে পড়ে হাজার হাজার যাত্রী সাধারন। প্রায় ২ ঘন্টা সড়ক অবরোধ রাখার পর পুলিশ প্রশাসনে অনুরোধে দুপুর সাড়ে ১২টায় যানচলাচল স্বাভাবিক হয়। গত রোববার বিকাল ৫ টা থেকে সন্দ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত রাউজানের সর্বস্তরের জনসাধারণের ব্যানারে রাউজান সদরে মুন্সিরঘাটা চত্বরে আন্দোলন গড়ে তুলে জনসাধারন।এই আন্দোলনে রাঙ্গামাটি মহাসড়ক প্রায় ৩ ঘন্টা অবরোধ রাখা হয়।সমাবেশ থেকে প্রশাসনে ৭২ঘন্টা সময় বেঁধে দিয়ে পীর মুনিরুল্লাহ ও ৬০সন্ত্রাসিকে গ্রেফতারের আল্টিমেটাম দেয় আন্দোলনকারীরা।বিক্ষোভকারীরা জানান কাগতিয়া ভন্ডপীর মুনিরুল্লাহ্”র ও তার সহযোগী বিভিন্ন মামলার ৬০ আসামীকে গ্রেফতার করা না হলে পরিবহন ধর্মঘটসহ নানা কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে বলে হুশিয়ারী দেন। উল্লেখ্য,গত বছরের ১৭ এপ্রিল থেকে মুনিরিয়া বিরোধী আন্দোলন করে আসছিল সর্বস্তরেন জনগন।আন্দোলনে নেতৃত্ত দানকারী রাউজান উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জমির উদ্দিন পারভেজ বলেন দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত মুনিরীয়ার সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের বিরুদ্বে আন্দোলন চলবে।তাদের ছাড় দেওয়ার কোন সুযোগ নাই।এরা ত্বরিকতের নামে মানুষের জানমালের ব্যাপক ক্ষতি করেছে।

অনেক সহ্য করেছে রাউজানের নিরীহ জনগন,ধৈর্য্যর সীমা ছেড়ে গিয়েছে,তাদের এবার জবাব দেওয়ার সময়,তাদের ত্বরিকত হচ্ছে সম্পুর্ণ পকেট পূজা,কোন ধরনের আধ্যাতিকতা নেই বলে তারা মারপিট,হামলার পথ বেচে নিয়েছে।এদিকে সোমবার দুপুরে রাউজান উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি কাজী ইকবালের সভাপতিত্বে গহিরা চৌমহুনী এলাকায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সি-সহ সভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম,মুনিরীয়া বিরোধী আন্দোলনের মুখপাত্র পৌর প্যানেল মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফৌজিয়া খানম মিনা, পৌর প্যানেল মেয়র বশির উদ্দিন খান,আওয়ামীলীগ নেতা জানে আলম জনি,সাইফুল ইসলাম চৌধুরী রানা,পৌর আওয়ামীলীগ সভাপতি নজরুল ইসলাম চৌধুরী, ইউপি চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আব্বাস উদ্দিন আহমেদ, ইউপি চেয়ারম্যান বিএম জসিম উদ্দিন হিরু,আওয়ামীলীগ নেতা জসিম উদ্দিন,মুছা আলম খান চৌধুরী, উপজেলা যুবলীগের সহ সভাপতি সারজু মোহাম্মদ নাছের,যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব আহসান হাবীব চৌধুরী হাসান,মহিলা কাউন্সিলর জান্নাতুল ফেরদৌস ডলি,পৌর যুবলীগ সভাপতি হাসান মোহাম্মাদ রাসেল, সেক্রেটারী জিয়াউল হক রোকন, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি জিল্লুর রহমান মাসুদ,সেক্রেটারী সাখাওয়াত হোসেন পিবলু,তানভীর চৌধুরী, নাছির উদ্দিন,পৌর ছাত্রলীগ সভাপতি অনুপ চক্রবর্তী, সেক্রেটারী মো. আসিফ, রাউজান সরকারী কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি আরমান সিকদার,সেক্রেটারী ফয়সাল মাহমুদ প্রমুখ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে