যে তিন কারণে কমছে করোনা পরীক্ষা

0
204

ঢাকা, ১৭ এপ্রিল – বিশেষজ্ঞদের মতে করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় ব্যাপক হারে নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষা করা জরুরি। দেখা গেছে চলতি মাসের শুরুর দিকেও কমবেশি ত্রিশ হাজারের মতো করোনা ভাইরাসের নমুনা সংগ্রহ এবং পরীক্ষা করা হতো। তবে সম্প্রতি তা অর্ধেকে নেমে এসেছে। করোনার নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষার সংখ্যা কেন কমছে, এমন প্রশ্ন তুলছেন অনেকেই।

জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ রোবেদ আমিন বলেন, করোনার নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষার সংখ্যা প্রধানত তিনটি কারণে কমছে। প্রথমত, যারা বিদেশযাত্রী ছিলেন তাদের ফ্লাইট বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে করোনা টেস্ট করছেন না। দ্বিতীয়ত, করোনা টেস্টের জন্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রোগ্রাম হচ্ছিল, সেটি এখন বন্ধ রয়েছে। তৃতীয়ত, চলমান লকডাউনে মানুষ বাইরে কম বের হচ্ছেন। ফলে তারা টেস্ট করতে আসছেন না। মূলত এই কয়েকটি কারণেই করোনার টেস্টের সংখ্যা কমেছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) এর পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, গত ১ এপ্রিল করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হয় ২৮ হাজার ১৯৮। ২ এপ্রিল নমুনা পরীক্ষা ২৯ হাজার ৩৩৯ জন। ৩ এপ্রিল পরীক্ষা করা হয় ৩০ হাজার ২৭৭। ৪ এপ্রিল ৩০ হাজার ৭২৪ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়।

আরও পড়ুন : আরও এক সপ্তাহ বাড়তে পারে লকডাউন

অন্যদিকে, গত ১৫ এপ্রিল করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হয় ১৯ হাজার ৯৫৯ জনের, ওইদিন নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল ১৮ হাজার ৯৯৫ জনের। ১৬ এপ্রিল পরীক্ষা করা হয় ১৮ হাজার ৯০৬ জনের। একই দিন নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল ১৮ হাজার ৭০৭ জনের। আজ ১৭ এপ্রিল কমে নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১৬ হাজার ১৮৫ জনের।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, এ পর্যন্ত (১৭ এপ্রিল) দেশে মোট ৭ লাখ ১৫ হাজার ২৫২ জনের করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে মারা গেছেন ১০ হাজার ২৮৩ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন ৬ লাখ ৮ হাজার ৮১৫ জন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের হার যেভাবে বাড়ছে তাতে করোনা টেস্টের উপর বিশেষ গুরুত্ব দেয়া উচিত। করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে হলে আক্রান্তদের চিহ্নিত করে তাদের আলাদা করতে হবে। এটি না করা গেলে করোনা সংক্রমণ রোধ করা যাবে না।

সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল
অভি/ ১৭ এপ্রিল

Source link