মোদিকে কড়া বার্তা, পাক সেনার পোশাকে আফ্রিদি!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: কাশ্মীরে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের বর্বরতার বিরুদ্ধে নিজে, সমগ্র পাকিস্তান জাতি, দেশটির সরকার ও সেনাবাহিনী কাশ্মীরিদের সঙ্গে থাকবেন বলে জানিয়েছেন সাবেক পাক অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদি।

শুক্রবার করাচিতে কায়েদ-ই-আজম সমাধীতে ‘কাশ্মীর আওয়ার’ সমাবেশে যোগ দেন তিনি। তাতে এসব কথা বলেন বুমবুমখ্যাত ক্রিকেটার।

!-- Composite Start -->
Loading...

প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের ডাকে এদিন গোটা পাকিস্তানে ‘কাশ্মীর আওয়ার’ পালিত হয়। কাশ্মীরি ভাই-বোনদের প্রতি সংহতি জানাতে তিনি দুপুর ১২টায় সারাদেশের মানুষকে আধা ঘণ্টা রাস্তায় নামার আহ্বান জানান।

তার আবেদনে সাড়া দিয়ে এসময় কায়েদ-ই-আজম সমাধীতে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ইউনিফর্ম পরে হাজির হন আফ্রিদি। তিনি বলেন, নরেন্দ্র মোদি ক্ষমতায় আসার আগে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে সুসম্পর্ক ছিল। আমরা প্রতিবেশিদের সঙ্গে দ্বন্দ্ব চাই না। আমাদের পুরো জাতি তথা দেশের মানুষ শান্তি চায়। কিন্তু মোদি সরকার এমন কিছু চায় না।

আফ্রিদি বলেন, সব ভারতীয় নয়, আপনি (মোদি) এবং আপনার অনুসারীরা বিশ্বের কাছে ভারতের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছেন। সেখানে শিক্ষিত ও ভালো মানুষও আছে। তারা ভালো পরামর্শ দেন। সাধারণ জনগণ তাদের কথা শোনেন।

ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ীর কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ওই সময় দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ছিল। এখন যুদ্ধের সময় নয়। আমরা ও আমাদের প্রধানমন্ত্রী দু’দেশের মধ্যে সম্পর্ক উন্নতি করার চেষ্টা করেছি। কিন্তু আপনার (মোদি) থেকে কোনও সাড়া পাওয়া যায়নি।

সাবেক পাক অলরাউন্ডার বলেন, মনে করি, আপনি সেখানে (কাশ্মির) নারী ও শিশুদের ওপর বর্বরতা চালাচ্ছেন। এর বিরুদ্ধে আমি কাশ্মীরি ভাই-বোনদের পাশে আছি। সমগ্র পাকিস্তান জাতি, দেশের সরকার ও সেনাবাহিনী তাদের সঙ্গে থাকবে।

নিজের পোশাক দেখিয়ে আফ্রিদি বলেন, আমি সেনার ক্যাপ ও শার্ট পরেছি। আমি এ দেশের একজন সৈনিক এবং তা-ই থাকব। সবশেষে পাকিস্তানকে সর্বদা ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান তিনি।

লালাখ্যাত পাক সুপারস্টার বলেন, আমি দেশের জনগণের কাছে একটি বার্তা পৌঁছে দিতে চাই-আপনারা সবসময় খারাপ পরিস্থিতির জন্য অপেক্ষা করবেন না। দুর্দিনে দেশের সরকার, বিরোধী ও সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।

মতামত দিন

Post Author: newsdesk

A thousand enemies is not enough; a single enemy is. There is nothing as a ‘harmless’ enemy.