মামলা তদন্ত রিপোর্টে গড়িমসি ! দূর্গাপুরে বুদ্ধি প্রতিবন্ধির টিপসহি জাল করে জমি রেজিষ্ট্রীর অভিযোগে আদালতে মামলা

0
123

লিয়াকত, রাজশাহী ব্যুরোঃ রাজশাহীর দূর্গাপুরে অসহায় স্বামী সন্তানহীন বুদ্ধি প্রতিবন্ধির টিপসহি জাল করে জমি রেজিষ্ট্রীর অভিযোগ পাওয়াগেছে। ঐই বুদ্ধি প্রতিবন্ধি বাদী হয়ে রাজশাহীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও আমলী ৮নং আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। যাহার মামলা নং ১৭১ সি/২০২০ (দূর্গাপুর)
মামলা সূত্রে জানাযায়, দূর্গাপুর পৌর এলাকার বহরমপুর গ্রামের অসহায় স্বামী সন্তানহীন বুদ্ধি প্রতিবন্ধি মৃতঃ মারফত আলীর মেয়ে আলেয়া বাটোয়ারা সুত্রে ও দলিল মূলে সম্পত্তি প্রাপ্ত হইয়া ভোগ দখল করে আসিতেছে। তিনি দূর্গাপুর উপজেলা ভূমি অফিসে নাম খারিজে দিলে, খারিজে আপত্তি আছে মর্মে বাদীকে জানালে বাদী দূর্গাপুর ভূমি অফিসে উপস্থিত হয়ে শুনিতে পায় তার জমি ২০০৪ সালে রেজিষ্ট্রী করে নিয়েছে। বাদী বিশ্বাস না করে দলিলের জাবেদা কপি তুলে দেখেন মামলার ১ নং আসামী রহিমা বিবি টিপসহি জাল করে বাদীনির জমি রেজিষ্ট্রী করে নিয়েছে। বাদীনিকে তার বাড়ির খলিয়ানে গত ৩০ শে আগষ্ট সকাল আনুমানিক ১০ টার দিকে সাক্ষীদের সামনে আসামীরা দেশিয় অস্ত্র হাতে নিয়ে বাড়ি ঘর ভাঙ্গিয়া চলিয়া যাইতে বলে বাদীনি না যাইতে চাইলে তাকে মারপিট করে মাটিতে পুতে ফেলবে বলে হুমকি প্রদান সহ মার মুখি হয়ে আগাইয়া আসিলে বাদীনি প্রানের ভয়ে ঘরের ভিতরে চলে যান। আলেয়া বিষয় গুলো নিয়ে এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তি বর্গদের অবগত করেন। তাহারা একাধিকবার আপোষ মিমাংশার চেষ্টা করে ব্যর্থ হওয়ায়, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে জানালে তিনি আদালতে মামলা করার পরামর্শ প্রদান করেন। সেই মোতাবেক গত ৩১ শে আগষ্ট সহযোগী আসামী সহ ৪ জনের নামে আদালতে মামলা দায়ের করেন। আসামীরা হলেন, দুর্গাপুর পৌর এলাকার বহরমপুর গ্রামের আঃ মজিদ এর স্ত্রী রহিমা বিবি ও তার পুত্র শামিম এবং শামিমের বন্ধু মোহনপুর উপজেলার ধুরইল ইউনিয়নের মুসলেম আলী মৃর্ধার পুত্র জাহাঙ্গীর আলম ও আলঙ্গীর হোসেন। মামলাটি আদালত প্রতিবেদন প্রাপ্তির জন্য পি বি আই রাজশাহীর কাছে প্রেরণ করেন। পি বি আই কর্মকর্তা এস আই গৌতম কে মামলার তদন্তের দায়িত্ব দিলে তিনি সঠিকভাবে সাক্ষীদের জিজ্ঞাসা বাদ না করে এবং বাদীনির টিপসহি জাচাই না করে মনগড়া ফাইনাল রিপোর্টের সিদ্ধান্ত গ্রহন করেছেন। এবিষয়ে দলিলের সেনাক্তকারী দূর্গাপুর পৌর এলাকার রৈ-পাড়া গ্রামের ওমর আলীর পুত্র হাবিবুর রহমানের সাথে কথা বলা হলে তিনি বলেন, আমি কখনো দলিলে স্বাক্ষর করি নাই বা দলিলের স্বাক্ষর আমার না। আমি ঐই দলিল সম্পর্কে অবগত নয়। মামলার বাদীনি আলেয়ার সাথে কথা বললে তিনি জানান, জমি রেজিষ্ট্রি তো দুরের কথা ? আমি কখনো সাব-রেজিষ্ট্রার অফিসে যাই নাই বা কোন টিপসহি প্রদান করি নাই। উক্ত মামলা ও দলিল বিষয়ে মামলার আসামীদের সাথে কথা বলা হলে তারা এবিষয় কথা বলতে রাজি নয় বলে জানান। বিষয়গুলো নিয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই গৌতম এর সাথে কথা বলা হলে তিনি বলেন, দূর্গাপুর সাব-রেজিষ্টার অফিসে দলিল সঠিক আছে কিনা জানতে চেয়ে চিঠি পাঠিয়েছি রিপোর্ট আসলে উহার উপরে প্রতিবেদন হবে। এখানে সাক্ষীদের কোন প্রয়োজন নাই। টিপসহি পরীক্ষার বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন এটা আমাদের বিষয় না এটা আদালত দেখবে। এবিষয়ে পি বি আই কর্মকর্তা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল কালাম আজাদ জানান, বুদ্ধি প্রতিবন্ধির মামলার বিষয় এসেছেন আপনাদের অয়েলকাম। তবে আইনের কাছে আমাদের হাত বাঁধা, আমরা চাইলে তো সব কিছু করতে পারিনা। আমি গৌতম সাহেবকে বলে দিচ্ছি তবে টিপসহি পরীক্ষা সহ মামলার সঠিক তদন্ত হবে বলে তিনি আশ্বস্ত করেন।