মানুষের বড় চরিত্র হচ্ছে নিজেকে খারাপ ও মন্দ কাজ থেকে বিরত রাখা -সৈয়দ মুজিবুল বশর মাইজভান্ডারী

0
297

এম বেলাল উদ্দিন, রাউজান থেকে
মাইজভান্ডার দরবার শরিফের সাজ্জাদানশীন আলহাজ্ব সৈয়দ মুজিবুল বশর আল হাছানি মাইজভান্ডারী বলেছেন, কোরআন সুন্নাহ মতে জীবন পরিচালনা করলে দেশ ও সমাজে অশান্তি, মারামারি, হানা-হানি, অরাজকতা সৃষ্টি হবেনা। দেশে শান্তি ফিরে আসবেই। তিনি বলেন নামাজ, রোজা, হজ্ব, যাকাত আদায় করে হক হালাল ভাবে জীবন পরিচালনা করাই মুমিন মুসলমানের কাজ। মিথ্যা, গীবত, জেনার কারনে মানুষ ধ্বংস হয়ে যায় উল্লেখ করে তিনি বলেন মানুষের বড় চরিত্র হচ্ছে নিজেকে খারাপ ও মন্দ কাজ থেকে বিরত রাখা। তিনি আরো বলেন শয়তান মানুষকে ধোকা দেওয়ার চেষ্টায় মুহুর্তে মুহুর্তে লিপ্ত, তাই শয়তানের প্রলোভন থেকে দুরে থেকে নামাজ, এবাদত বন্দেগী, দরুদ শরিফ, যিকিরের মাধ্যমে আমাদের আমল বাড়াতে হবে। তিনি পরিশেষে বলেন অশান্ত মানব জাতীকে একমাত্র কোরআন সুন্নাহ এনে দিতে পারে শান্তি। তিনি সোমবার রাত ৯টা থেকে ২টা পর্যন্ত চট্টগ্রামের রাউজান এয়াছিন্নগর ফকিরটিলা ঈদগাহ ময়দানে বিশাল মাইজভান্ডারী মাহফিলে প্রধান মেহমানের তকরির করছিলেন।

আশেকানে মাইজভান্ডারী এসোসিয়েশন ফকিরটিলা বাজার ইউনিট শাখার উদ্যোগে ও মুহাম্মদ আবছারের সঞ্চালনায় আয়োজিত মাহফিলে তকরির করেন ইহরাম হজ্জ কাফেলার পরিচালক আলহাজ্ব গোলাম মোস্তফা শায়েস্তাখান আল আযহারী, মাওলানা জাকের হোসেন মাইজভান্ডারী, মাওলানা শামসুল আরেফিন নিজামী মাইজভান্ডারী। উপস্থিত ছিলেন হুজুরের ভগ্নিপতি মুহাম্মদ জামাল মিয়া, হলদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল ইসলাম, আশেকানে মাইজভান্ডারী ফকিরটিলা শাখার উপদেষ্টা ও আওয়ামীলীগ নেতা সাহাব উদ্দিন, রাজনীতিক ইমরান কাদের ইডেন, কাজী মাওলানা সাঈদুল আলম খাকী, মাওলানা কাজী তহিদ বাঙ্গলা, খাদেম মাওলানা মফিজুল ইসলাম,মাওলানা আবদুল কাদের, সাংবাদিক মাওলানা এম বেলাল উদ্দিন, ইউপি সদস্য মুহাম্মদ তৈয়ব, মাওলানা আয়ুব আলী আনসারী, শাখার সভাপতি আলহাজ্ব মুহাম্মদ ইউনুচ মিয়া, সহ সভাপতি মমতাজ ভান্ডারী, সহ সসভাপতি আবদুল মান্নান, সেক্রেটারী আবু তালেব, যুগ্ন সম্পাদক মুহাম্মদ জসিম, আলহাজ্ব ইসমাইল সওদাগর, আলহাজ্ব আবদুল কুদ্দুছ জুনু, আবদুস সালাম মাষ্টার, আবুল কাসেম কালু ফকির, হাজী শফি মাইজভান্ডারী, আবুল ফকির মাইজভান্ডারী, মুহাম্মদ সরোয়ার আলম, সৈয়দ মুহাম্মদ রোকন উদ্দিন, নাজিম উদ্দিন মাইজভান্ডারী, হোসেন ফকির, টিপু ভান্ডারী, মুহাম্মদ আনোয়ার, মুহাম্মদ নাঈম, মুহাম্মদ আবু তাহের, মুহাম্মদ রুবেল, মুহাম্মদ মোরশেদ, মুহাম্মদ রিফাত, মুহাম্মদ আরিফ, মুহাম্মদ জাহেদ, মুহাম্মদ বাঁচা, মুহাম্মদ সোহেল ভান্ডারী, ইউছুপ কন্ট্রাক্টার প্রমুখ।
মাহফিলে কয়েক হাজার পুরুষের পাশাপাশি আলাদা প্যন্ডলে কয়েকশ মহিলারা হুজুরের বয়ান শুনেন। পরে মিলাদ কিয়াম, যিকির শেষে দেশ জাতি মুসলিম উম্মাহর শান্তি কামনা করে আখেরী মোনাজাত পরিচালনা করেন সৈয়দ মুজিবুল বশর আল হাসানী আল মাইজভান্ডারী (মা.জি.আ)। পরে সকলের মাঝে তাবরুক বিতরন করা হয়।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে