ভোলার ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে

ভোলার বোরহান উদ্দিনে বিপ্লব চন্দ্র শুভ নামের এক হিন্দু যুবকের নিজ ফেসবুকে মহান আল্লাহ তায়ালা ও রাসূলকে (সা.) নিয়ে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করার প্রতিবাদে, তৌহিদী জনতার আয়োজিত এক সমাবেশে পুলিশের গুলিতে চারজন নিহত এবং দেড় শতাধিক লোক আহত হওয়ার ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল করেছে ইসলামী ছাত্র খেলাফত চট্রগ্রাম মহানগর।

সোমবার চট্রগ্রাম শুলকবহরে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন, ইসলামী ঐক্যজোটের কেন্দ্রীয় যুব বিষয়ক সম্পাদক ও মহানগর হেফাজতের প্রচার সম্পাদক মাওলানা আ. ন. ম আহমদ উল্লাহ। সভাপতিত্ব করেন, ইসলামী ছাত্র খেলাফত কেন্দ্রীয় যুগ্ন সেক্রেটারী ও চট্রগ্রাম মহানগর সভাপতি মাওলানা ওসমান কাসেমী।

!-- Composite Start -->
Loading...

প্রধান অতিথি মাওলানা আ. ন. ম আহমদ উল্লাহ ভোলার ঘটনায় বাংলাদেশের জনগণ বিক্ষুব্ধ ও মর্মাহত উল্লেখ করে বলেন, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষার স্বার্থেই এ দুঃখজনক ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত করে ভোলার বোরহান উদ্দিনের বিপ্লব চন্দ্র শুভসহ এ ঘটনার সাথে জড়িত ব্যক্তিদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। এ দেশে মুসলমানরা কখনো হিন্দু বা অন্য কোনো সংখ্যালঘুদের ধর্মীয় ব্যাপারে কটূক্তি করে না। অথচ একটি বিশেষ সম্প্রদায়ের লোকেরা মুসলমানদের ধর্মীয় আবেগ-অনুভূতির ওপর আঘাত দিয়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের ষড়যন্ত্র করছে। তাদের এ ধরনের উস্কানিমূলক ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সজাগ এবং সচেতন হওয়ার জন্য আমি দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি। সেই সাথে কোনো স্বার্থান্বেষী মহল যাতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে না পারে সে জন্য সকল ধর্মীয় সম্প্রদায়ের মানুষের জানমালের নিরাপত্তা বিধান করার জন্য আমি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

সভাপতি মাওলানা ওসমান কাসেমী বলেন, বাংলাদেশ সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানের দেশ। ইসলাম, আল্লাহ তায়ালা এবং রাসূল (স.) এ দেশের ৯০ ভাগ মুসলমানের হৃদয়ের স্পন্দন। মহান আল্লাহকে নিয়ে, নবিজিকে নিয়ে, ইসলামকে নিয়ে কেউ কটূক্তি করলে তাঁদের কলিজায় আঘাত লাগে। কটূক্তিকারীর সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে সোচ্চার হওয়া প্রতিটি মুসলমানের ইমানি দাবি। এই দাবি পূরণে ভোলার তাওহিদী জনতা একত্রিত হয়েছিল। কিন্তু পুলিশ সেই জমায়েতে গুলি চালিয়ে কলঙ্কজনক একটি অধ্যায়ের জন্ম দিল।

তিনি ভোলার সাধারণ মানুষের ওপর পুলিশের নির্বিচার গুলিবর্ষণে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং অবিলম্বে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করে বলেন, দ্রুত সময়ের মধ্যে এদের শাস্তি নিশ্চিত না করলে দেশের তাওহিদি জনতা একযোগে আবারও গর্জে উঠবে। তখন এ জনরোষ সরকার কিংবা প্রশাসন কারো জন্যই ভালো হবে না।

নগর সেক্রেটারি আবুল কাসেমের সঞ্চলনায় অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন, আব্দুল্লাহ আল নোমান, নগর যুগ্ম সেক্রেটারি আব্দুল করীম, নগর যুগ্ম সেক্রেটারি হুসাইন আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল্লাহ কায়সার, সমাজকল্যাণ সম্পাদক ফরহাদ হোসাইন, সাহিত্য সম্পাদক শোয়াইবুল ইসলাম নোমান, দপ্তর সম্পাদক হাবিবুল্লাহ, প্রকাশনা সম্পাদক সাখাওয়াত হোসাইন, প্রচার সম্পাদক তানভীর মাহমুদ, সহ- প্রচার সম্পাদক মসরুর, আজগর প্রমুখ।

মতামত দিন

Post Author: bdnewstimes