ভূয়া অনলাইন পোর্টাল দের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবেঃ তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নিয়ে ‘ভুঁইফোড়’ অনলাইন সংবাদমাধ্যমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেছেন নতুন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে প্রথম দিন অফিস করতে এসে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ে এই ঘোষণা দেন তিনি।

!-- Composite Start -->
Loading...

হাছান মাহমুদ বলেন, “ শপথ নেওয়ার পর অনেক সাংবাদিক বন্ধুরা প্রশ্ন করেছিলেন, অনেকগুলো ভুঁইফোড় অনলাইন সংবাদমাধ্যম তৈরি হয়েছে। তারা অনেক সময় ভুল সংবাদ পরিবেশন করে। এতে অনেকের চরিত্র হননের ঘটনাও ঘটে।”

বাংলাদেশে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ব্যাপক হারে ইন্টারনেট গ্রাহক বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে অনলাইন সংবাদমাধ্যমগুলোর জনপ্রিয়তাও বেড়েছে।

এই সুযোগে তৈরি হয়েছে অনেক ভুঁইফোড় অনলাইন সংবাদমাধ্যম, যারা ফেইসবুকে বিভিন্ন ‘মনগড়া’ খবরও ছড়াচ্ছে।

উদাহরণস্বরুপঃ
বিভ্রান্তিমূলক তথ্য ছড়ানোর জন্য চিহ্নিত করে গেল মাসেই বাংলাদেশ থেকে খোলা বেশ কয়েকটি পেইজ বন্ধ করে দেয় ফেইসবুক, যার মধ্যে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের নামের মতো করে তৈরি করা একটি ভুয়া ফেইসবুক পাতাও ছিল। বাংলাদেশের প্রথম ইন্টারনেট সংবাদপত্র bdnews24.com এর অগুনতি পাঠকদের বিভ্রান্ত করতে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর নামের মাঝে একটি ‘এস’ বসিয়ে bdsnews24.com নামে এই ফেইসবুক পেইজটি খোলা হয়েছিল। একই নামে একটি ওয়েবসাইটও খোলা হয়। হাতেগোনা কয়েকটি নিউজপোর্টালের অফিস আছে, ভূয়া ঠিকানায় অফিস ব্যবহার করেন। আইন প্রশাসনিক কর্মকর্তারা অফিস, সম্পাদক, সাংবাদিকদের ঠিকানায় পরিদর্শন করতে গেলে অফিস তো দূরের কথা, সম্পাদককেও পাওয়া যায়নি, পোর্টালে ব্যবহার করা ঠিকানা, মোবাইল নাম্বার বন্ধসহ নানা তথ্য আমাদের হাতে পোছেছে। তবু আমরা পুণঃ জরিফ চালানোর নির্দেশ দিই। যেসব অনলাইন পোর্টাল এসব কাজে লিপ্ত, তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অফিসহীন, ভুঁইপোড় অনলাইন প্রত্রিকার মালিকদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানান তথ্যমন্ত্রী।

এই ধরনের ভুয়া ওয়েবসাইট বন্ধ করতে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের পক্ষ থেকে বিটিআরসি, কপিরাইট অফিসসহ দেশের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলোতে বহু আগে চিঠি দেওয়া হয়েছিল; পদক্ষেপ চাওয়া হয়েছিল আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ দেশের গোয়েন্দা সংস্থাগুলোরও। তবে ওই সব ভুয়া অনলাইন পোর্টাল বন্ধে তেমন কোনো উদ্যোগ দেখা যায়নি।

এখন এসব ‘ভুঁইফোড়’ অনলাইন সংবাদমাধ্যমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বললেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।
“এগুলো আপনাদের সবার সহযোগিতায় সম্মিলিতভাবে মোকাবেলা করব,” বলেন তিনি।

নতুন মন্ত্রী হওয়ার পর এ মন্ত্রণালয়ের কোন বিষয়গুলো চ্যালেঞ্জ মনে করছেন, সে প্রশ্ন করা হয়েছিল আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক হাছান মাহমুদকে।

জবাবে তিনি বলেন, “আমি নিজের জীবনকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছি সব সময়। লাইফ ইজ ফুল অফ চ্যালেঞ্জেস। আমি মনে করি, সব কাজই সমাধানযোগ্য এবং সব কাজই সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় করা সম্ভব।”

সাংবাদিকদের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়ে নতুন তথ্যমন্ত্রী বলেন, “সাংবাদিক বন্ধুদের অনেক অভাব অভিযোগ আছে, আমি আগে থেকেই জানি। সেগুলো সমাধান করতে রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে কীভাবে সহযোগিতা করা যায়, সে কাজটি আমি করব।”

হাছান মাহমুদ বলেন, “বাংলাদেশে অনলাইন মিডিয়ার যে ব্যাপক বিকাশ ঘটেছে, সেটি শেখ হাসিনার হাত ধরেই হয়েছে। বাংলাদেশে আজকে যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম প্রচণ্ড শক্তিশালী হয়েছে, সেটিও শেখ হাসিনার নেতৃত্বে হয়েছে। চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করেই প্রধানমন্ত্রী দেশকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন।”

তিনি বলেন, “তথ্য মন্ত্রণালয় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি মন্ত্রণালয়। রাষ্ট্রের চতুর্থ অঙ্গ হচ্ছে গণমাধ্যম। গণমাধ্যম সমাজের দর্পন। সমাজের সকল চিত্র দেখায় গণমাধ্যম। সমাজকে সঠিক খাতে প্রবাহিত করতে গণমাধ্যমের ভূমিকা রয়েছে।”

মতামত দিন

Post Author: newsdesk

A thousand enemies is not enough; a single enemy is. There is nothing as a ‘harmless’ enemy.