ভিসা সমস্যায় সৌদিতে যোগাযোগ করা হবে

0
88

ডেস্ক রিপোর্ট:: ভিসা সমস্যার বিষয়ে সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করা হবে। আপনাদের পৌঁছে দেয়ার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হবে। আপনারা ধৈর্য ধরেন বলে জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোকাম্মেল হোসেন।

শনিবার (১৭ এপ্রিল) বিমানবন্দরে বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশে তিনি এ কথা বলেন।

এ সময় পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেন, যাদের ভিসা বাতিল হয়েছে তাদের ভিসা কার্যকর করতে আমরা প্রতিনিয়ত সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি।

এদিকে কোভিড সনদ, ভিসা-পাসপোর্টসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ সংগ্রহ করে নির্ধারিত সময়ে বিমানবন্দরে এসে জানতে পারেন বাতিল করা হয়েছে বিশেষ ফ্লাইট। আর তাতে কেউ কেউ ফেটে পড়েন ক্ষোভে, কেউ আবার হতাশায় দিশেহারা।

বিশেষ ফ্লাইটে যাদের যাত্রা করার কথা ছিল তাদের প্রায় সবারই ভিসার মেয়াদ শেষের দিকে আর ফ্লাইট বাতিলের খবরে তাই অনেকের ভবিষ্যৎ এখন অনিশ্চয়তায় মধ্যে পড়েছে বলে জানা গেছে।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে বিমানের এক কর্মকর্তারা জানান, সৌদি আরবে অবতরণের অনুমতি না পাওয়ার কারণেই বাতিল করতে হয়েছে বিশেষ ফ্লাইট।

যেসব রেমিট্যান্স যোদ্ধার বিমানে চেপে কর্মস্থলে যাওয়ার কথা ছিল, তাদেরই বাসে করে নিয়ে যাওয়া হয় হোটেলে।

বিমান সূত্র আরও জানায়, আজকে সৌদি আরবে বিমানের আরও কিছু ফ্লাইট যাওয়ার কথা ছিল এবং সেগুলোও বাতিল করা হয়েছে।

বাংলাদেশি অভিবাসী শ্রমিকদের নিজ নিজ কর্মস্থলে পৌঁছানোর সুবিধার্থে ভোর থেকে পরবর্তী এক সপ্তাহে সৌদি আরব, ওমান, কাতার, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও সিঙ্গাপুরে প্রায় ১০০টি বিশেষ ফ্লাইট পরিচালনা করার সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)। গত ১৫ এপ্রিল এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

গত ১১ এপ্রিল বেবিচক জানায়, ১৪ এপ্রিল থেকে এক সপ্তাহের জন্য লকডাউন চলাকালীন সব ধরনের আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ থাকবে। ১২ এপ্রিল মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের দেওয়া প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, সব আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট বন্ধ থাকবে।

পরে গত ১৫ এপ্রিল এক আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে আজ শনিবার থেকে পরবর্তী এক সপ্তাহে সৌদি আরব, ওমান, কাতার, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও সিঙ্গাপুরে প্রায় ১০০টি বিশেষ ফ্লাইট পরিচালনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। করোনাভাইরাসের ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণ ঠেকাতে ১৪ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া দেশব্যাপী কঠোর লকডাউনের কারণে প্রায় ২০ থেকে ২৫ হাজার অভিবাসী শ্রমিকদের তাদের নিজ নিজ কর্মস্থলে ফেরার সুযোগ করে দিতে সরকার এ সিদ্ধান্ত নেয়।

Print Friendly, PDF & Email

Source link