ভাই ও ভা‌তিজা‌কে পেটা‌নোর অ‌ভি‌যোগ বড় ভাই‌য়ের বিরু‌দ্ধে ; থানায় অভিযোগ

64

জুল‌ফিকার আলী সম্রাট, ষ্টাফ রি‌পোর্টার: নওগাঁর রাণীনগরে পারিবারিক কলহের জেরে বড় ভাইয়ের লাঠির আঘাতে ছোট ভাই এনামুল ও ভাতিজি নুপুরের মাথা ফেটে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এছাড়াও নিজের বাবা-মাসহ ভাবীকে দেশীয় লাঠিশোটা দিয়ে মারপিট করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার দুর্গাপুর গ্রামে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, দুর্গাপুর গ্রামের সমতুল খন্দকারের ছেলেদের মাঝে জমিজমা বিষয়ে দীর্ঘদিন যাবত পারিবারিক কলহ চলে আসছিলো। এর জের ধরে গত শনিবার (৫জুন) সমতুল খন্দকারের ছেলে সামিনুর (৪৩) ও সম্রাট (২৪) জমিজমার বিষয়ে অপর ভাই এনামুল (৩০) ও আমিনুল খন্দকারের (৪৫) স্ত্রী শিরিন, মেয়ে নুপুরের সঙ্গে কথাকাটির এক পর্যায়ে মারপিট করতে থাকে। আগে থেকেই প্রস্তুতি নিয়ে থাকায় সামিনুর ও সম্রাট তাদেরকে লোহার রড, হাসুয়া, লাঠিসহ অন্যান্য দেশীয় অস্ত্র দিয়ে তাদেরকে এলোপাতাড়ি ভাবে মারপিট ও শ্লীলতাহানি করে। এসময় এনামুল ও ভাতিজি নুপুরের মাথা ফেটে যায়। পরে বাবা সমতুল ও তার স্ত্রী মারপিট বন্ধ করতে এলে তাদেরকেও এলোপাতাড়ি ভাবে মারপিট করে সামিনুর ও সম্রাট। এসময় সামিনুর ও সম্রাট আমিনুলের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ৫০হাজার টাকা, স্বর্নালঙ্কারসহ কয়েক লাখ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। পরবর্তিতে স্থানীয়রা গুরুত্বর আহত অবস্থায় এনামুল, নুপুর ও শিরিনসহ অন্যান্যকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে দেয়। এই সুযোগে সামিনুর ও সম্রাট ওই দিন রাতে এনামুলের বাড়িতেও হামলা চালিয়ে কয়েক লাখ টাকার মালামাল চুরি করে নিয়ে যায়।

অভিযোগকারী আমিনুল ইসলাম জানান, এই বিষয়ে আমি থানায় অভিযোগ করতে গেলে থানা পুলিশ প্রথম দিকে কোন অভিযোগ নিতে চায়নি। পরবর্তিতে অনেক কাঠখড় পোড়ানোর পর থানা পুলিশ গত সোমবার (০৭জুন) একটি অভিযোগ গ্রহন করেছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত তারা কাউকে আটক করতে পারেনি। সামিনুর ও সম্রাটের অত্যাচারে আমরা অতিষ্ঠ। কোন কিছু হলেই ওরা বাবা-মাসহ আমাদেরকে মারপিট করে। এই বিষয়ে পূর্বেও থানায় একাধিকবার অভিযোগ দিয়েও কোন লাভ হয়নি। ওরা প্রভাবশালী হওয়ার কারণে এলাকার কোন লোকই ওদের সঙ্গে পেরে উঠতে পারে না। ওরা এই ঘটনার পর থেকে আমাদেরকে বিভিন্ন রকমের হুমকি-ধামকী দিয়ে আসছে। কিন্তু এই বিষয়ে আমি ওদের দৃষ্টান্তর মূলক শাস্তি দাবী করছি।

অভিযুক্ত সামিনুর খন্দকার বলেন মারপিটের বিষয়টি সম্পন্ন মিথ্যে ও বানোয়াট। বরং তারাই সংবদ্ধ হয়ে সবাই মিলে আমাকে আর সম্রাটকে অতর্কিত ভাবে মারপিট করেছে। পরিবারের জমিজমা বিষয়ে কোন কিছু জানতে চাইতে গেলে তারাই আমাদেরকে কোন পাত্তা দেয় না।

রাণীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহিন আকন্দ বলেন এই বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। ইতিমধ্যেই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে খোজখবর নিয়েছি। এটি সম্পন্ন পারিবারিক একটি সমস্যা। আমরা চেষ্টা করবো সেই সমস্যাটি শান্তিপূর্ন সমাধান করে দেওয়ার।