বাড়ির পোষা জিনকে মাংস খাওয়ান পাক-প্রধানমন্ত্রীর স্ত্রী!

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের তৃতীয় স্ত্রী বুশরা মানেকাকে নিয়ে দেশটির মানুষের কৌতুহলের শেষ নেই। গত এক বছরে পাকিস্তানিরা গুগলে সবচেয়ে বেশি সার্চ করেছেন তার নাম। বুশরা মানেকাকে নিয়ে দেশটির নানা রহস্যময় কাহিনীও প্রচলিত আছে।
ইমরানের সাবেক দুই স্ত্রীর থেকে বুশরা একেবারেই আলাদা। তার প্রথম স্ত্রী জেমাইমা গোল্ডস্মিথ এবং দ্বিতীয় স্ত্রী রেহাম খান জনসমক্ষে আসতেন। রেহাম বিবিসিতে সঞ্চালিকা হিসেবেও কাজ করেছেন। জেমাইমাও কলামিস্ট এবং মানবাধিকারকর্মী। অথচ বুশরা পুরোপুরি আধ্যাত্মিক জীবন-যাপন করেন। সব সময়ই হিজাবে মুখ ঢেকে রাখেন তিনি। আর জনসমক্ষে তো একেবারেই আসেন না।
পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আগে বুশরাকে অনুসরণ করতে শুরু করেছিলেন ইমরান খান। বেশ কয়েক বছর ধরে তার কাছ থেকে আধ্যাত্মিক পথপ্রদর্শনের সাহায্য নিয়েছিলেন তিনি। গত বছর ফেব্রুয়ারিতে আচমকা বুশরাকে বিয়ে করে চমকে দিয়েছিলেন ইমরান। বুশরা ছিলেন বিবাহিত তার পাঁচ সন্তানও আছে। বুশরাকে বিয়ে করার ছয় মাসের মধ্যেই ইমরান দেশের প্রধানমন্ত্রী হয়ে যান।
বুশরার পরিবারের এক সদস্যের দাবি বুশরার কাছে দুটি জিন রয়েছে। জিন দুটিকে রান্না করা মাংস খাওয়ান তিনি। তার জেরেই নাকি ইমরান প্রধানমন্ত্রী হতে পেরেছেন। বুশরা নাকি একটি গলার আওয়াজ শুনতে পান। সেই আওয়াজই তাকে অসম্ভবকে সম্ভব করার পথ বাতলে দেয়। বুশরাকে সেই অশরীরী আওয়াজ জানিয়েছিল, যদি ইমরান খান প্রধানমন্ত্রী হতে চান তবে তাকে সঠিক নারীকে বিয়ে করতে হবে। এরপরই নাকি ইমরান বুশরাকে বিয়ে করে ফেলেন।
বুশরার ওই আত্মীয় আরও জানিয়েছেন, প্রথমে ইমরানকে তার(বুশরার) বোনকে বিয়ে করতে বলেছিলেন বুশরা। আরেকটি সূত্র আবার বলছে, বুশরা তার মেয়ের সঙ্গে ইমরানকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন। এরপর তিনি স্বপ্ন দেখেন। ওই অশরীরীর আওয়াজ তাকে জানায়, পাঁচ সন্তানের মা বুশরাকেই বিয়ে করতে হবে ইমরান খানকে। বুশরার তখনকার স্বামীও ডিভোর্স দিতে রাজি হন। এরপরই বুশরা ইমরানকে দেখা দেন। প্রথম দেখায়ই বুশরাকে দারুণ লেগেছিল ইমরানের। বুশরা ইমরাবকে কবিতার একটি খাতাও দিয়েছিলেন। ইমরান সেটা বাড়িতে নিয়ে গিয়ে কবিতাগুলো মুখস্ত করে ফেলেছিলেন। সৌভাগ্যের জন্য একটি আংটিও দিয়েছিলেন বুশরা। এই আংটি আর জিনই নাকি ইমরানকে প্রধানমন্ত্রী বানিয়েছে।
এসব কাহিনীর সত্যতা সম্পর্কে এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। বুশরাও এগুলোকে বানোয়াট গল্প বলেই উড়িয়ে দিয়েছেন।

মতামত দিন

Post Author: newsdesk

A thousand enemies is not enough; a single enemy is. There is nothing as a ‘harmless’ enemy.