বাসর রাতে জানতে পারলো স্ত্রী হিজড়া, স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে হিজড়ার পলায়ন, তদন্ত পিবিআইকে

রাজশাহীর জেলা প্রতিনিধি : শোরের মণিরামপুর উপজেলার হানুয়ার গ্রামে বাসর ঘরে স্বামী টের পেলেন স্ত্রী তৃতীয় লিঙ্গের। বিষয়টি ফাঁস করলে আত্মহত্যার হুমকি দেয় তৃতীয় লিঙ্গের স্ত্রী মার্জিয়া সুলতানা। ফলে সে সময় বিষয়টি লুকিয়ে রাখেন স্বামী লাভলু রহমান। এরপর তৃতীয় লিঙ্গের মার্জিয়া সুলতানা বাড়ির স্বর্ণালংকার চুরি করে পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাটি স্থানীয়ভাবে মীমাংসায় ব্যর্থ হন লাভলু রহমান।

অবশেষে ভুক্তভোগী লাভলু রহমান মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) যশোর জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তৃতীয় লিঙ্গের স্ত্রী মার্জিয়া সুলতানাসহ ৬ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। আদালতের বিচারক মো. মঞ্জুরুল ইসলাম মামলাটি গ্রহণ করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) যশোরকে তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের আদেশ দেন।

!-- Composite Start -->
Loading...

মামলার অভিযুক্তরা হলেন- যশোর সদর উপজেলার মাহিদিয়া গ্রামের তৃতীয় লিঙ্গের (হিজড়া) মার্জিয়া সুলতানা, তার বাবা লতিফ সরদার, ভাই মিঠু ও রাসেল সরদার এবং লতিফ সরদারের ভাই রশিদ সরদার।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, মামলার প্রধান অভিযুক্ত মার্জিয়া সুলতানা চলতি বছর ১১ মার্চ বিকাল ৩টার দিকে লাভলুর রহমানের সঙ্গে মার্জিয়া সুলতানার ১ লাখ টাকা দেনমোহরে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। ওইদিন বাসর রাতে লাভলুর রহমান জানতে পারেন তার স্ত্রী মার্জিয়া সুলতানা তৃতীয় লিঙ্গের বা হিজড়া। ওই রাতেই বিষয়টি কাউকে জানানো হলে মার্জিয়া আত্মহত্যা করবে বলে হুমকি দেয়। পরবর্তীতে এ বিষয়ে মার্জিয়ার পরিবারের লোকজনের সঙ্গে আলোচনা করা হলে তারা কোনো জবাব দিতে পারেনি। কয়েকদিন পর স্বামী লাভলুর রহমানের অনুপস্থিতিতে ঘরে থাকা ২ লাখ ৭০ হাজার টাকার স্বর্ণালংকার ও নগদ ১ লাখ টাকা চুরি করে মার্জিয়া সুলতানা বাবার বাড়িতে চলে যায়। এরপর বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়ভাবে সালিসের মাধ্যমে মিমাংসার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয় লাভলু। অবশেষে আদালতে মামলা দায়ের করেন তিনি। মামলায় আদালতের বিচারক আগামী ১২ নভেম্বরের মধ্যে তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের জন্য যশোরের পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে আদেশ দেন। অধিকার।

মতামত দিন

Post Author: newsdesk

A thousand enemies is not enough; a single enemy is. There is nothing as a ‘harmless’ enemy.