#বন্ধুত্ব

0
169

জীবন চলার পথে প্রত্যেকের জীবনে বন্ধু নামের বিশ্বাসী ও মজবুত একটি সম্পর্কের সৃষ্টি হয়ে যায়। যে সম্পর্ক কখনো লাভ অথবা ক্ষতির ভাবনায় গড়ে ওঠে না। কিছু মুহূর্ত আমাদের সামনে হাজির হয়ে যায়, যেখানে বন্ধুর গুরুত্ব অপরিসীম। যার কাছে মনের সব লুকানো কথা আস্থা ও বিশ্বাসের সঙ্গে খুলে বলা যায়। সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে টেনে তোলা হয় বিপৎসীমা থেকে নিরাপদ স্থানে। ভুল সিদ্ধান্তের অন্ধকার হতে ফিরিয়ে আলোকিত পথের সন্ধান দেখায়। সেই বিশ্বাসী সম্পর্কের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিকে বন্ধুত্বের আসনে বসিয়ে তাকে বন্ধু বলা যায়। বন্ধু হতে পারে এক থেকে একাধিক। আত্মার সঙ্গে আত্মার শক্তিশালী বন্ধন হলো বন্ধু।

জন্মলগ্ন থেকেই মায়ের সঙ্গে মেয়ের সম্পর্ক একটু অন্যরকম। সব কথা বলা, কাছাকাছি থাকা আর একে অন্যের অনুভূতি বোঝার ক্ষমতার কারণেই মা-মেয়ের সম্পর্কটি বন্ধুত্বের হয়ে থাকে। মেয়েদের কাছে মা একইসাথে অভিভাবক, বন্ধু, শিক্ষক।
আমার সবচেয়ে কাছের বন্ধু আমার আম্মু।
মা মেয়ের বন্ধুত্ব বন্ধুত্বের সম্পর্ককে আরো গভীর করতে কিছু ছোট ছোট বিষয় মেনে মেনে চলতে হয়।

একসঙ্গে কেনাকাটা

কেনাকাটা করতে কে না ভালোবাসে? আর মায়ের সঙ্গে কেনাকাটা করতে গেলে মিলেমিশে পছন্দ করা যায় সবচেয়ে ভালো জিনিসটা। সব আবদার, সব সাধ পূরণ করে আমার আম্মু।

সিনেমা দেখা

অনেকে বড় হয়ে গেলে মায়ের সঙ্গে সিনেমা দেখতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন না। কিন্তু মায়ের সঙ্গে তাঁর প্রিয় সিনেমা দেখার আনন্দ বলে বোঝানো সম্ভব না। এক বাটি পপকর্ন ভাজা নিয়ে সিনেমা দেখে একসঙ্গে হাসিএকসঙ্গে কান্না করি। এই অনুভূতিটুকু মা-মেয়ের সম্পর্ককে আরো মধুর করে। আমার আম্মুর প্রিয় সিনেমা হল আলমগীর শাবানার সিনেমা।তাই আম্মুকে সঙ্গ দিতে আমি ও দেখি।

কোথাও ঘুরতে যাওয়া

আমার আম্মু একজন প্রফেসর অথ‌এব সময় অনেক কম পায় কিন্তু যখনই সময় পাই আমরা মা মেয়ে চলে যায় ঘুরতে।

একসঙ্গে চা খাওয়া

এক কাপ চা পেট থেকে অনেক কথা বের করে আনতে পারে। মায়ের সঙ্গে একটু সময় পেলেই কফি নিয়ে আড্ডায় বসে যায়। সারাদিনের কাজের মাঝে মাও একটু সময় পায় বিশ্রামের, গল্প করার। সেই সঙ্গে সম্পর্কের মধ্যকার দ্বিধাদ্বন্দ্বও থাকে না।

আরো অনেক কিছু বলার ছিল আমাদের মা মেয়ের বন্ধুত্ব নিয়ে।
অন্য কোন দিন শেয়ার করবো আমার শ্রেষ্ঠ
বন্ধুকে নিয়ে।