প্রাথমিক শিক্ষকদের ১১তম গ্রেডে বেতন দিতে কেন নির্দেশ নয়, হাইকোর্টের রুল

নিজস্ব প্রতিবেদক: সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের বেতন ১১তম গ্রেডে দিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে রুলে ১৪তম গ্রেডে বেতন নির্ধারণ করে জারি করা গেজেট কেন বাতিল করা হবে না তা জানতে চাওয়া হয়েছে।

বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ রবিবার এ আদেশ দেন। নড়াইল, নোয়াখালী, লক্ষীপুর, নেত্রকোনা ও চাঁদপুর জেলার ৩০ জন সহকারি শিক্ষকের করা এক রিট আবেদনে এ রুল জারি করা হয়। রিট আবেদনকারীপক্ষে আইনজীবী অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ সিদ্দিক উল্লাহ মিয়া, মনিরুল ইসলাম রাহুল ও সোহরাওয়ার্দী সাদাদাম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিষ্টার এবিএম আবদুল্লাহ আল মামুন।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষকদের বেতন ১৪ গ্রেডে নির্ধারণ করে ২০১৪ সালের ৯ মার্চ প্রাথমিক ও গনশিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রজ্ঞাপন জারি করে। এই প্রজ্ঞাপন চ্যালেঞ্জ করে নোয়াখালী সদর উপজেলার মোহাম্মদ সামছুদ্দিন, আলমগীর হোসেন, মো. শহিদ উদ্দিন, মো. আ. হামিদ, হাতিয়া উপজেলার মো. ফিরোজ উদ্দিন, বেগমগঞ্জ উপজেলার তারেক ছালাউদ্দিন, কবিরহাট উপজেলার মো. আ. করিম, আবু সাইদ, চাঁদপুর জেলার কচুয়া উপজেলার মো. ওমর খাইয়ুম বাগদাদী, লক্ষীপুর জেলার রায়পুর উপজেলার মো. মিজানুর রহমান, মো. ফিরোজ আলম, নেত্রকোনার জেলার মোহনগঞ্জ উপজেলার মো. রোজেল মিয়া, নড়াইল জেলার সদর উপজেলার প্রবীন কুমার বিশ্বাসসহ ৩০ জন সহকারী শিক্ষক রিট আবেদন করেন। রিট আবেদনে সহকারি শিক্ষকদের ১১তম গ্রেডে বেতন প্রদানের নির্দেশনা দেওয়া হয়।

মতামত দিন

Post Author: newsdesk

A thousand enemies is not enough; a single enemy is. There is nothing as a ‘harmless’ enemy.