পাবজি ও ফ্রি-ফায়ারসহ বিপজ্জনক গেম বন্ধে বিটিআরসির নির্দেশ

70


সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: পাবজি ও ফ্রি-ফায়ারের মতো ক্ষতিকর অনলাইন গেম বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। টিকটক, বিগো লাইভ ও লাইকির মতো অ্যাপসগুলো বন্ধের নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে। বুধবার (২৫ আগস্ট) সংস্থাটির ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র সারাবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

সুব্রত রায় মৈত্র বলেন, আদালতের নির্দেশনা হাতে পাওয়ার পর আমরা ক্ষতিকর এসব গেম বন্ধে চিঠি দিয়েছি। মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) আদালতের নির্দেশনার কপি হাতে পেয়েছি। ডাক ও টেলিযোগাযোগ অধিদফতরের ডিপার্টমেন্ট অব টেলিকম (ডট)-কে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তারা এসব গেম বন্ধে কাজ শুরু করেছে।

এর আগে ১৬ আগস্ট পাবজি, ফ্রি-ফায়ারসহ সবধরনের ‘বিপজ্জনক’ গেম বন্ধের নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। একটি রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি শেষে হাইকোর্ট এ আদেশ দেন। সেইসঙ্গে এ বিষয়ে রুলও জারি করা হয়।

দেশের অনলাইন প্লাটফর্ম থেকে টিকটক, লাইকি, পাবজিসহ অনলাইন গেম এবং ভিডিও স্ট্রিমিং অ্যাপ বন্ধের নির্দেশ কেন দেওয়া হবে না— তা জানতে চাওয়া হয় রুলে। অনলাইন গেম ও অনলাইন স্ট্রিমিং অ্যাপ নিয়মিতভাবে পর্যবেক্ষণ, পর্যালোচনা করার জন্য একটি কারিগরি দক্ষতাসম্পন্ন বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন এবং এ বিষয়ে নীতিমালা তৈরির নির্দেশ কেন দেওয়া হবে না, রুলে তাও জানতে চাওয়া হয়। ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব, বিটিআরসির চেয়ারম্যান, শিক্ষা সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, আইন সচিব, স্বাস্থ্য সচিব এবং পুলিশের মহাপরিদর্শককে রিটে বিবাদী করা হয়।

আদালতের নির্দেশনার পর বিটিআরসি আবারও এসব গেম বন্ধের উদ্যোগ নিয়েছে। এর আগেও দেশে ফ্রি ফায়ার ও পাবজি গেম বন্ধের উদ্যোগ নিয়েছিল বিটিআরসি। শিক্ষা ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুপারিশে গেম দুটি বন্ধের উদ্যোগ নেওয়ার কথা জানায় তারা। গত ২৯ মে বিটিআরসির চেয়ারম্যান শ্যামসুন্দর সিকদার সারাবাংলাকে বলেন, ‘গেম দুটি বন্ধে উদ্যোগ নিচ্ছি। কাজ চলছে।’ বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্রও একই কথা বলেছিলেন। তবে একটি পক্ষের আপত্তির কারণে তখন তা বন্ধ হয়নি।

আরও পড়ুন: পাবজি-ফ্রি ফায়ার বন্ধে আদালতের নির্দেশ, পর্যালোচনার পর ব্যবস্থা

সারাবাংলা/ইএইচটি/এএম





Source link