পাঁচ বছরে ২০ ছাত্রীকে ধর্ষণ RAB-11 এর জালে গ্রেপ্তার দুই লম্পট শিক্ষক, এলাকাবাসীর ফাঁসির দাবী

নিজস্ব প্রতিবেদক: নারায়ণঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে অক্সফোর্ড হাই স্কুলে বিভিন্ন ছাত্রীর সাথে প্রতারণা ও ধর্ষণের অভিযোগে আশরাফুল আরিফ নামের এক শিক্ষককে আটক করেছে র‌্যাব-১১। একই সাথে ওই শিক্ষককে মদদ দেয়ার অপরাধে প্রধান শিক্ষককেও আটক করা হয়।

বৃহস্পতিবার দুপুরে র‌্যাব স্কুলটিতে অভিযান চালিয়ে দুই শিক্ষককে আটক করে। এসময় তাদের শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ করেন স্কুলটির শিক্ষার্থী ও অভিভাবক সহ স্থানীয় এলাকাবাসী।

জানা যায়, সদর উপজেলার মিজমিজি এলাকার অক্সফোর্ড হাই স্কুলের শিক্ষক আশরাফুল আরিফ প্রায় পাঁচ বছর ধরে পঞ্চম শ্রেণি থেকে দশম শ্রেণির বিভিন্ন ছাত্রীর সাথে নানাভাবে প্রতারণা করে আসছেন। নানা কৌশলে ওই ছাত্রীদের ফাঁদে ফেলে তিনি শারীরিক সম্পর্ক করে এর ভিডিওচিত্র ধারণ করেন। এরপর সেটি দেখিয়ে ওই ছাত্রীদের মায়েদের জিম্মি করে তাদের সাথেও একইভাবে যৌনাচার এবং মোটা অংকের অর্থ আদায় করেন। গত কয়েকদিন ধরে এ বিষয়টি স্কুলে ছড়িয়ে পড়লে অন্যান্য অভিভাবক ও এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়। এরই জের ধরে বৃহস্পতিবার সকালে তারা স্কুলে গিয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক আশরাফুল আরিফের মোবাইল ফোনে বিভিন্ন ছাত্রীর সাথে যৌন মিলনের ছবি দেখে তাকে গণপটিুনি দেন।

খবর পেয়ে র‌্যাব-১১ ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযুক্ত শিক্ষকসহ স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম জুলফিকারকেও আটক করে। এলাকাবাসী স্কুলটি বন্ধ করে দেয়াসহ অভিযুক্তদের সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন।

র‌্যাব-১১ জানায়, আটক হওয়া শিক্ষক আশরাফুল আরিফের মোবাইল ফোন ও ল্যাপটপসহ বিভিন্ন ডিভাইস জব্দ করে কমপক্ষে ২০ জন ছাত্রীকে ধর্ষণের প্রমাণ পাওয়া গেছে। তাকে মদদ দেয়ার অভিযোগে প্রধান শিক্ষককেও আটক করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

এলাকাবাসী ব্যাপক সমালোচিত ওই স্কুলটি বন্ধ করে দেয়ার দাবীসহ দুই শিক্ষকের ফাঁসির দাবী জানালেও র‌্যাব বলছে, শত শত শিক্ষার্থীর শিক্ষা জীবনের ভবিষ্যতের কথা ভেবে স্কুল বন্ধ করা সম্ভব হয়নি। তবে এ ব্যাপারে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারাই সঠিক সিদ্ধান্ত দেবেন।

মতামত দিন

Post Author: newsdesk

A thousand enemies is not enough; a single enemy is. There is nothing as a ‘harmless’ enemy.