‘নেইমারকে ব্রাজিলের পতিতালয়ে বিক্রি করে দিন’

স্পোর্টস ডেস্ক: বার্সেলোনায় সম্ভাব্য দলবদল ভেস্তে যাওয়ার পর নতুন মৌসুমে প্রথমবারের মতো মাঠে নেমেছিলেন নেইমার। এর আগে পিএসজি খেলেছে ৫ ম্যাচ। কোনো ম্যাচেই দলে ছিলেন না তিনি। নেইমারের দলে ফেরার দিনে সব আকর্ষণ হয়ে ছিলেন তিনিই। স্টাসবুর্গের বিপক্ষে পুরোটা সময় ধুঁকতে ধুঁকতে শেষে গিয়ে সেই নেইমারই জিতিয়েছেন ম্যাচ।
বাম দিক থেকে আসা ক্রসে শরীর দারুণ ভাবে বাতাসে ভাসিয়ে দিয়ে দুর্দান্ত এক ওভারহেড কিকে গোল করেছেন ব্রাজিলিয়ান। এর কিছুক্ষণ পর আরও বল জালে জড়িয়েছিলেন, তবে ভিএআরে সেই গোল বাতিল হয়েছে।
তবে পিএসজির মাঠে সমর্থকেরা নেইমার বিরোধী ব্যানার নিয়ে হাজির হয়েছিলেন। ব্যানারে অকথ্য ভাষায় গালি গালাজও করা হয়েছে নেইমারকে। এর আগে মৌসুমের প্রথম ম্যাচেই নেইমারকে ঘিরে এমন অসোন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন পিএসজি আল্ট্রারা। নেইমারের ফেরার দিনে সেই পরিস্থিতি আরেকবার দেখেছে প্রাক ডি প্রিন্সেস।
তবে এই ম্যাচে নেইমারকে সম্মুখীন হতে হয় বিদ্রুপের। ম্যাচ চলাকালীন নেইমারকে কটাক্ষ করে দুটি ব্যানার দেখা যায়। যেখানে একটিতে লিখা ছিলো, ‘মেসির কাছে ফিরে যেতে ২০ মিলিয়ন নিজের পকেট থেকে খরচ করতে চাওয়া বেশ্যার স্থান পিএসজিতে নেই।’
আরেকটা ব্যানারে লেখা ছিলো, ‘নেইমারের বাবার উচিত তাকে ভিলা মিমোসায় (ব্রাজিলের সবচেয়ে বড় পতিতালয়) বিক্রি করা।’
তবে দর্শক-সমর্থকদের এমন আচরণে মোটেও ক্ষুদ্ধ নন ব্রাজিল সুপারস্টার। ম্যাচশেষে নেইমার বলেছেন, ‘সমর্থকদের উদ্দেশ্যে আমার কিছু বলার নেই। আমি জানতাম এটা কঠিনই হবে। তারা যদি আমাকে দেখে চেঁচাতে চায় তাহলে সেটার অধিকার তাদের আছে। তাদের যদিও আমাকে নিয়ে এতো মাথা ঘামানো উচিত না। দল নিয়ে ভাবা উচিত, ওটাই গুরুত্বপূর্ণ। এখন থেকে আমি হোম ম্যাচও অ্যাওয়ে ম্যাচের মতো করেই খেলব।’

মতামত দিন

Post Author: newsdesk

A thousand enemies is not enough; a single enemy is. There is nothing as a ‘harmless’ enemy.