নতুন বছরে পরিবর্তিত সূচিতে চলবে ৬৭ ট্রেন

0
2802
train

নতুন বছরের শুরুতে পরিবর্তিত সূচিতে চলবে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের ২৮টি ট্রেন। আন্তঃনগর সুবর্ণ এক্সপ্রেস, মহানগর এক্সপ্রেস, বিজয়সহ গুরুত্বপূর্ণ অনেক ট্রেনের সূচিতে পরিবর্তন এসেছে। নতুন সূচিতে সিডিউল বিপর্যয় ঠেকাতে রানিং টাইম বাড়ানো হয়েছে। ২০২০ সালের ১ জানুয়ারি থেকেই পরিবর্তিত নতুন সময়সূচি অনুযায়ী পূর্বাঞ্চলের ২৮টি আন্তঃনগর ট্রেন চলানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজার সাদেকুর রহমান।

পরিবহন বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, নতুন টাইম টেবিলে পূর্বাঞ্চলে ৪৮ ট্রেনের মধ্যে ২৮টির এবং পশ্চিমাঞ্চলের ৫৬টি ট্রেনের মধ্যে ৩৯টি ট্রেনের সময়সূচি পরিবর্তন হয়েছে। পরিবর্তিত নতুন সময় অনুযায়ী যাত্রার সময় পরিবর্তনের পাশাপাশি গন্তব্যে পৌঁছার সময় বাড়ানো হয়েছে। এ ছাড়া নতুন টাইম টেবিলে বেশিরভাগ ট্রেনের রানিং টাইম বাড়ানো হয়েছে।

জানা গেছে, নতুন সময়সূচি অনুযায়ী আগামী ১ জানুয়ারি থেকে পূর্বাঞ্চলের সুবর্ণ এক্সপ্রেস চট্টগ্রাম থেকে সকাল ৭টার পরিবর্তে ৮টায়, ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাবে। ঢাকা থেকে বিকাল ৩টার পরিবর্তে সাড়ে ৪টায় চট্টগ্রামের উদ্দেশে ছাড়বে। তবে চট্টগ্রাম থেকে ৮টায় ছাড়া নিয়ে যাত্রীদের আপত্তি থাকায় আগের সময় অপরিবর্তিত রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানা গেছে।

এদিকে মহানগর এক্সপ্রেস (ঢাকা-চট্টগ্রাম) রাত ৯টার পরিবর্তে ৯টা ২০ মিনিটে চট্টগ্রামের উদ্দেশে, বিজয় (চট্টগ্রাম-ময়মনসিংহ) সকাল ৭টা ২০ মিনিটের পরিবর্তে ৭টায় ছেড়ে যাবে। একইভাবে বিজয় (ময়মনসিংহ-চট্টগ্রাম) রাত ৮টার পরিবর্তে ৮টা ৩০ মিনিটে ময়মনসিংহ থেকে চট্টগ্রামের উদ্দেশে ছাড়বে।

বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক (ডিজি) মো. শামছুজ্জামান জানান, পূর্বাঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চলের ৬৭টি আন্তঃনগর ট্রেন ১ জানুয়ারি থেকে নতুন সূচিতে চলবে। পূর্বাঞ্চলের ২৮টি ট্রেনের এবং পশ্চিমাঞ্চলে ৩৯টি ট্রেনের সময়সূচির পরিবর্তন হয়েছে।

এদিকে পূর্বাঞ্চলে ঢাকা-সিলেট রুটের পারাবত সকাল ৬টা ৩৫ মিনিটের পরিবর্তে ৬টা ২০ মিনিট ছেড়ে যাবে। সিলেট থেকে ৩টার পরিবর্তে ৩টা ৪৫ মিনিটে ছাড়বে। জয়ন্তিকা (ঢাকা-সিলেট) দুপুর ১২টার পরিবর্তে ১১টা ৪৫ মিনিটে এবং সিলেট থেকে সকাল ৮টা ৪০-এর পরিবর্তে সোয়া ১১টায় ছেড়ে যাবে। অগ্নিবীণা (ঢাকা-তারাকান্দি) ৯টা ৪৫-এর পরিবর্তে ৯টা ৫০ মিনিটে (তারাকান্দি-ঢাকা) ৪টা ৫০ মিনিটের পরিবর্তে ৫টা ২০ মিনিটে ছাড়বে।

এগারসিন্দুর প্রভাতী (কিশোরগঞ্জ-ঢাকা) সকাল ৬টা ৫০ মিনিটের পরিবর্তে ৬টা ৩০ মিনিটে, উপবন (ঢাকা-সিলেট) রাত ৯টা ৫০ মিনিটের পরিবর্তে ৮টা ৩০ মিনিটে, উপবন (সিলেট-ঢাকা) রাত ১০টার পরিবর্তে ১১টা ৩০ মিনিটে, ব্রহ্মপুত্র (ঢাকা দেওয়ানগঞ্জ) সন্ধ্যা ৬টার পরিবর্তে ৬টা ১৫ মিনিটে, যমুনা (ঢাকা-তারাকান্দি) বিকাল ৪টা ৪০-এর পরিবর্তে ৪টা ৪৫ মিনিটে, যমুনা (তারাকান্দি-ঢাকা) রাত ২টা ১০ মিনিটের পরিবর্তে রাত ২টায়, এগারসিন্দুর গোধূলি (ঢাকা-কিশোরগঞ্জ) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার পরিবর্তে ৬টা ৪০ মিনিটে, এগারসিন্দুর গোধূলি (কিশোরগঞ্জ-ঢাকা) দুপুর সাড়ে ১২টার পরিবর্তে ১২টা ৫০ মিনিটে, কালনী (সিলেট-ঢাকা) সকাল ৭টার পরিবর্তে ৬টা ১৫ মিনিটে, হাওর (ঢাকা-মোহনগঞ্জ) রাত ১১টা ৫০-এর পরিবর্তে ১০টা ১৫ মিনিটে, হাওর (মোহনগঞ্জ-ঢাকা) সকাল ৮টা ৩০ মিনিটের পরিবর্তে ৮টায়, কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস (ঢাকা-কিশোরগঞ্জ) সকাল ১০টা ৩৫-এর পরিবর্তে ১০টা ৪৫ মিনিটে, কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস (কিশোরগঞ্জ-ঢাকা) বেলা ২টা ৪০-এর পরিবর্তে বিকাল ৪টায়, মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেস মোহনগঞ্জ-ঢাকা) রাত ৯টা ৩০ মিনিটের পরিবর্তে ৯টায় গন্তব্যের উদ্দেশে ছেড়ে যাবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে