নওগাঁর বদলগাছীতে ভুল তথ্য দিয়ে সংবাদ প্রচারের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

0
129

লিয়াকত, রাজশাহী ব্যুরোঃ নওগাঁর বদলগাছীতে ভুল তথ্য দিয়ে সংবাদ প্রচার ও মিথ্যা মামলায় হয়রানি করার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে এলাকার ভুক্তভুগী পরিবার।
২৩ নভেম্বর সােমবার দুপুর ২ টায় বদলগাছী উপজেলার বালুভরা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়ােজন করেন ভুক্তভুগী আলহাজ মফের আলী মন্ডল ও তার ছেলে সােহেল রানা। সংবাদ সম্মেলনে পরিবারের পক্ষ থেকে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন আলহাজ মফের আলী মন্ডল এর ছেলে সােহেল রানা। লিখিত
বক্তব্যে সােহেল রানা বলেন, গত তিন দিন আগে যমুনা টিভিতে একটি সংবাদ প্রচার করেছে যা সম্পূর্ন মিথ্যা, বানােয়াট ও উদ্যেশ্য প্রনােদিত। যমুনা টিভির সাংবাদিক বলেছে আমরা আব্দুস সালামের পরিবারের রাস্তা বন্ধ করেছি যা সম্পূর্ন
মিথ্যা কথা। আবার তারা বলেছে আমরা নাকি মামলা তুলে নিতে চাপ প্রয়ােগ করছি। এটা পুরােটায় বানােয়াট ও ভুল তথ্য। বরং আমাদের বিরুদ্ধেই তারা মিথ্যা ও হয়রানি মূলক মামলা করেছে। আপনারা তাে সবাই জানেন গ্রামের ছােট খাটো সমস্যার বিষয় গুলাে গ্রামের মড়ল বা পঞ্চায়েতরা সমাধান করে থাকেন, যেটা যুগ যুগ থেকেনহয়ে আসছে। আর সেদিন একজন অসহায় ভিক্ষুকের ঘরে চুরি করে রেনুকার দুই ভাই। আর এই চুরি যাওয়ার মালামাল বের হয় মামলাকারি রেনুকার ঘর থেকে। পরে তারা স্বীকার করে যে এই চুরি রেনুকার ভাইয়েরা করেছে।
এতে গ্রামের লােকজন উত্তেজিত হয়ে রেনুকার ভাইদের শাসনের উদ্যেশ্যে চড়-থাপ্পড় ও ছড়ি বা বেত দিয়ে মারে। এক পর্যায়ে তার ভাইদের মার বাঁচাতে রেনুকা সামনে আসে এতে রেনুকার গায়েও হয়ত একাকটা চড়-থাপ্পড় বা
বেতের বাড়ি লাগতে পারে। অথচ ঘটনার ৯ দিন পরে কেউ উদ্যেশ্য প্রনােদিত হয়ে আমাদে বিরুদ্ধে এই মামলা করে। আর বাড়ি ঘেরার কথা বলা হয়েছে, একটি সত্য নয়। এই ঘেরার কারন হচ্ছে, আব্দুস সালাম এর বাড়ির চারিপাশে আমাদের পারিবারিক কবরস্থান রয়েছে। আব্দুস সালামের পরিবারের সকল ময়লা আবর্জনা এমনকি গরুর গােবরও এই কবরস্থানে ফেলে। বার বার নিষেধ করা সত্তেও তারা শােনেনা। তাই কবরস্থানের সুরক্ষার কারনে ঘেরা
হয়েছে। কিন্তু চারিপাশ ঘিরলেও তাদের চলাচলের রাস্তা রেখে ঘেরা হয়েছে। চাইলে আপনারা সরেজমিনে ঘুরে দেখতে পারেন। আর রেনুকা বেগম আমার বিরুদ্ধেও খারাপ কথা বলেছে। রেনুকা তাে আমার প্রতিবেশ ফুফু হয় । সে আমার বয়সে অনেক বড় তাহলে আমি কিভাবে এই মহিলাকে খারাপ প্রস্তাব দিব? সেখান থেকে ফিরে আব্দুস সালাম ও তার পরিবারের সাথে কথা বলে জানাযায় সকল ঘটনা। মামলা যেটা করা হয়েছে, সেটা ইচ্ছার বিরুদ্ধে করা হয়েছে। তাহলে স্পষ্ট বােঝা যায় যে, অন্যের কথায় প্রলােভিত হয়ে তারা এই কাজটি করেছে। আলহাজ মফের আলী মন্ডল ও তার ছেলে সােহেল রানার বিরুদ্ধে যে মানহানী ও আপত্তিকর তথ্য নিয়ে সংবাদ প্রকাশ হয়েছে তা তারা জানেন না। তারা এই ধরনের কথা বলেননি বলে জানান, যার ভিডিও রেকর্ড রয়েছে। পরে তারা অতিরিক্ত দাবি করে বসেন, তাদের চলাচলের জন্য চারিদিকে রাস্তা দিতে হবে। এই বিষয়ে এলাকার সাধারণ মানুষের সাথে কথা বললে তারা বলেন, এই মফের আলী মন্ডল নিঃসন্দেহে একজন ভালাে মানুষ কারন এই গ্রামের প্রায় অর্ধেক মানুষ তাদের জমির উপর দিয়ে চলাচল করে। কোনদিন কাউকে কিছু বলেননি। বরং গ্রামের অনেক মানুষকে তারা সাহায্য সহযােগিতা করে থাকেন। আর এই মানুষের বিরুদ্ধে এই
রকম খারাপ অভিযােগ তুলেছে? এটা মেনে নেওয়া যায়না। মফের আলীর বর্তমান বয়স এখন প্রায় ৭৫ বছর। এরকম বয়সের মানুষের কি থাকে বলেন? তার বিরুদ্ধে এত খারাপ কথা বলছে !! এ বিষয়ে বদলগাছী থানার অফিসার ইনচার্জ চৌধুরি জুবায়ের আহমেদের সাথে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মামলা হয়েছিল। সেখানে মামলার আসামীকে সোহেল রানাকে আটক করে জেল হাজতে পেরন করা হয়েছিল। পরে জেনেছি মামলার আসামী সোহের রানা জামিনে মুক্তি পেয়েছে। তবে বাড়ি ঘেরার কথা শুনেছি সেখানে কোন ধরনের সমস্যা হয়নি। এবং কোন পক্ষের লিখিত অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে অবশ্যই তদন্ত সাপেক্ষ আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।