জনগণ ফুঁসে উঠছে, সরকারের পতন অনিবার্য: মির্জা আব্বাস

0
99

mirza abbas

জনগণ ফুঁসে উঠছে উল্লেখ করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেছেন, স্বৈরাচারী শাসকের মতো বর্তমান সরকারের পতন ঘটবে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক প্রতিবাদ সমাবেশে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এ হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

তিনি বলেন, আপনারা (সরকার) তারেক রহমানসহ নেতাকর্মীদের সাজা দিচ্ছেন। স্বাধীনতার ঘোষক জিয়াউর রহমানের খেতাব ছিনতাই করতে চাচ্ছেন। এসব করে কোনো লাভ হবে না। দেশের জনগণ ফুঁসে উঠছে– ফুঁসে উঠেছে। ইনশাআল্লাহ এই জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে, এই জনগণের আন্দোলনে একদিন সব স্বৈরাচারী শাসকের সরকারের মতো এই সরকারেরও পতন হবে।

মির্জা আব্বাস বলেন, জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতার পদক আপনারা ছিনতাই করবেন। ছিনতাই করা আপনাদের অভ্যাস হতে পারে। আমাদের কথা হলো– এটি একটি সুদূরপ্রসারী চক্রান্তের অংশমাত্র শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতার পদক আপনারা ছিনতাই করতে চাচ্ছেন।

‘আমি বলতে চাই– এই পদক এই সরকার দেয়নি, এই পদক স্বাধীনতার পর পর বাংলাদেশের জনগণ শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার বশে তাকে দিয়েছিল।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘তারেক রহমানের বিরুদ্ধে আপনারা মামলা দিলেন, আবার দুই বছর সাজাও দিলেন। আরে দুই বছর দেন, আর ২০০ বছর দেন–কোনো লাভ হবে না। তারেক রহমান যখন দেশে ফিরে আসবেন সবার মাঝে, আপনাদের হাজার বছরের সাজা জনগণ কেউ পাত্তা দেবে না।’

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ও উত্তরের যৌথ উদ্যোগে নড়াইল আদালতে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও সাতক্ষীরার আদালতে দলের প্রকাশনাবিষয়ক সম্পাদক হাবিবুল ইসলাম হাবিবসহ ১০ জন এবং পাবনার ৪৭ নেতাকর্মীকে ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় সাজা দেওয়া এবং দলের বানিজ্যবিষয়ক সম্পাদক সালাহউদ্দিন আহমেদকে কারাগারে পাঠানোর প্রতিবাদে এই বিক্ষোভ সমাবেশ হয়। একই দিন এ কর্মসূচি হচ্ছে সারাদেশে মহানগর ও জেলায়।

মহানগর দক্ষিণের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন নবী খান সোহেলের সভাপতিত্বে এবং দক্ষিণের কাজী আবুল বাশার ও উত্তরের এজিএম শামসুল হকের পরিচালনায় সমাবেশে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক এজেডএম জাহিদ হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, আমানউল্লাহ আমান, হাবিবুর রহমান হাবিব, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শিরিন সুলতানা, আজিজুল বারী হেলাল, নাজিম উদ্দিন আলম, আবদুস সালাম আজাদ, শহিদুল ইসলাম বাবুল, রাজীব আহসান, মহানগর বিএনপির মুন্সি বজলুল বাসিত আনজু, ইউনুস মৃধা, হাবিবুর রশীদ হাবিব, যুব দলের সুলতান সালাহ্উদ্দিন টুকু, এসএম জাহাঙ্গীর, রফিকুল আলম মজনু, স্বেচ্ছাসেবক দলের আবদুল কাদির ভুঁইয়া জুয়েল, ফখরুল ইসলাম রবিন, নজরুল ইসলাম, শ্রমিক দলের আনোয়ার হোসেইন, কৃষক দলের হাসান জাফির তুহিন, ছাত্রদলের ফজলুর রহমান খোকন প্রমুখ নেতারা বক্তব্য দেন।

Source link