চীনের সামরিক উত্থান সম্পর্কে সতর্ক ন্যাটো

58


আন্তর্জাতিক ডেস্ক

চীনের সামরিক হুমকির বিষয়ে ন্যাটো সতর্ক রয়েছে বলে জানিয়েছে সামরিক জোটটির নেতারা। একইসঙ্গে চীনের আচরণকে ‘সিস্টেমিক চ্যালেঞ্জ’ হিসেবেও উল্লেখ করেছেন তারা। বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসে অনুষ্ঠিত ন্যাটোর শীর্ষ সম্মেলনে নেতারা এসব কথা বলেন। খবর বিবিসি।

এ সময় ন্যাটোর নেতারা বলেন, চীন দ্রুতবেগে তার পারমাণবিক অস্ত্রের মজুদ বৃদ্ধি করছে। দেশটি তার সামরিক বাহিনীর আধুনিকায়নের বিষয়ে অস্বচ্ছ। একইসঙ্গে তারা রাশিয়ার সঙ্গে সামরিক সহযোগিতা বৃদ্ধি করেছে।

প্রধান জেনস স্টলটেনবার্গ হুঁশিয়ারি করে বলেছিলেন, চীন সামরিক ও প্রযুক্তগত দিক দিয়ে প্রায় ন্যাটোর কাছাকাছি চলে এসেছে। তবে চীনের সঙ্গে ন্যাটো নতুন কোনো স্নায়ু যুদ্ধ চায় না বলেও জানিয়েছিলেন তিনি।

এদিকে ন্যাটো নেতার এমন মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইইউ) নিযুক্ত চীনের হাইকমিশনার। এক টুইট বার্তায় তিনি বলেন, চীন আত্মরক্ষামূলক নীতিতে বিশ্বাসী, যা তার প্রতিরক্ষা নীতিতে উল্লেখ করেছে।

তিনি আরও বলেন, ‘চীন কারও জন্য সিস্টেমিক চ্যালেঞ্জ তৈরি করে না। তবে এমন কোনো চ্যালেঞ্জ আমাদের দিকে অগ্রসর হলে আমরাও চুপ করে বসে থাকব না।’

সম্প্রতি বছরগুলোতে ন্যাটোর উদ্দেশ্য ও তহবিল নিয়ে বিতর্কের মধ্যে পড়েছিল জোট নেতারা। সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রম্পের সময় এই বিতর্ক দেখা হয়। তবে জো বাইডেন মার্কিন প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেওয়ার থেকে ৭২ বছরের পুরাতন জোট নেতাদের সেই উদ্বেগ দূর করার জন্য কাজ করছেন।

উত্তর আমেরিকা ও ইউরোপের ৩০টি দেশটি নিয়ে শক্তিশালী রাজনৈতিক ও সামরিক জোট ন্যাটো গঠিত হয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর কমিউনিস্টদের ঠেকাতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে এই জোট গঠন করা হয়।

সারাবাংলা/এনএস





Source link