চট্টগ্রামে জলজটে ভোগান্তি, নালায় পড়ে নিখোঁজ বৃদ্ধ

86


স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: মধ্যরাত থেকে থেমে থেমে বৃষ্টি। সকালের দিকে ঘণ্টা দুয়েকের জন্য রূপ নেয় ভারি বৃষ্টিতে। আর তাতেই মৌসুমি বৃষ্টিতে ডুবে গেছে চট্টগ্রাম শহর। সকাল থেকে বেলা গড়ানো পর্যন্ত নগরবাসীকে পোহাতে হয়েছে জলজটের ভোগান্তি। সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে কর্মস্থল অভিমুখী কর্মজীবীদের। এদিকে, বৃষ্টিতে সৃষ্ট জলজটে নালায় পড়ে এক ব্যক্তি নিখোঁজ হওয়ার তথ্য পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) মধ্যরাত থেকে চট্টগ্রাম শহরে শুরু হয় বৃষ্টি। থেমে থেমে বৃষ্টি চলে সকাল পর্যন্ত। এরপর ভারি বৃষ্টিও হয় দুই ঘণ্টা। তাতে নগরীর বেশিরভাগ এলাকা তলিয়ে গেছে। কোথাও কোথাও পানি জমে যায় কোমর পর্যন্ত, কোথাও ছিল হাঁটু পানি। শুধু তাই নয়, পানি ঢুকে পড়ে নিচু এলাকার বাসাবাড়ি-দোকানপাট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেও।

চট্টগ্রামে জলজটে ভোগান্তি, নালায় পড়ে নিখোঁজ বৃদ্ধ

চট্টগ্রামের পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিসের আবহাওয়াবিদ শেখ ফরিদ আহমেদ জানিয়েছেন, বুধবার সকাল ৯টা পর্যন্ত এর আগের ২৪ ঘণ্টায় ২৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। পরে দুপুর ১২টা পর্যন্ত চট্টগ্রামে বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে ৩৬ মিলিলিমিটার। আর নগরীর আমবাগান আবহাওয়া দফতরের পক্ষ থেকে সকাল ৯টা পর্যন্ত এর আগের ২৪ ঘণ্টায় ৬০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়।

সকালের ভারি বৃষ্টিতে নগরীর মুরাদপুর, ষোলশহর, বহদ্দারহাট, বাদুরতলা, চকবাজার, কাপাসগোলা, ডিসি রোড, বাকলিয়া, আগ্রাবাদ সিডিএ আবাসিক এলাকা প্রায় কোমর সমান পানিতে তলিয়ে যায়। অন্যদিকে যেসব এলাকায় সচরাচর পানি জমে থাকে না, নগরীর জামালখান বাই লেইন, রহমতগঞ্জ, হালিশহর এলাকায়ও পানি উঠে যায় হাঁটু পরিমাণ।

চট্টগ্রামে জলজটে ভোগান্তি, নালায় পড়ে নিখোঁজ বৃদ্ধ

নগরীর জামালখান বাই লেইনের বাসিন্দা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা রবিন ঘোষ সারাবাংলাকে বলেন, ‘সকাল ৯টায় অফিসে যেতে পারিনি। বাসার সামনে হাঁটু পানি। ১০টার পর থেকে পানি নেমে যেতে থাকে। অফিসে যেতে যেতে ১১টা বেজে গেছে।’

ডিসি রোডের বাসিন্দা মোহাম্মদ ইসমাইল সারাবাংলাকে বলেন, ‘ডিসি রোডে প্রায় সব নালাগুলোতে কাজ চলছে। সেখানে ময়লা-আবর্জনা আটকে থাকায় স্বাভাবিকভাবে পানি যেতে পারছে না। সকালে ডিসি রোড, চন্দনপুরা অংশসহ আরও কয়েকটি এলাকায় এক কোমর সমান পানি হয়েছে।’

চট্টগ্রামে জলজটে ভোগান্তি, নালায় পড়ে নিখোঁজ বৃদ্ধ

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও জলাবদ্ধতা স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি কাউন্সিলর মোবারক আলী সারাবাংলাকে বলেন, ‘বৃষ্টি এবং জোয়ার একসঙ্গে থাকায় পানি জমে গিয়েছিল। জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্পের কাজের জন্য অনেক নালা ও খালে প্রতিবন্ধকতা আছে। সেখানে পলিথিনসহ ময়লা-আবর্জনা জমে আছে। পানি স্বাভাবিকভাবে যেতে না পারায় সড়কে জমে যায়। তবে ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই পানি আবার নেমে গেছে।’

এদিকে, বুধবার সকালে নগরীর মুরাদপুর এলাকায় সালেহ আহমদ নামে ৭০ বছর বয়সী এক ব্যক্তি নালায় পড়ে নিখোঁজ হয়ে যায়। তার বাড়ি পটিয়া উপজেলায়। সকাল থেকে তাকে উদ্ধারের চেষ্টা করেও বিকেল পর্যন্ত তার কোনো হদিস পাননি ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিরা।

চট্টগ্রামে জলজটে ভোগান্তি, নালায় পড়ে নিখোঁজ বৃদ্ধ

চট্টগ্রামের ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি লিডার বিপ্লব কুমার নাথ জানিয়েছেন, বৃষ্টির কারণে মুরাদপুর এলাকায় নালায় প্রচুর পানি ছিল। বৃষ্টির মধ্যেই ফুটপাত দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় পা পিছলে নালায় পড়ে পানির স্রোতে তলিয়ে যান সালেহ আহমেদ। নালায় তল্লাশি করে তাকে উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

ছবি: শ্যামল নন্দী

সারাবাংলা/আরডি/টিআর





Source link