গৃহিণী থেকে একজন নারী উদ্যোক্তা

0
1369

করনাকালীন সময়ে শুরু করে আজ মার্ন বাজার.কম ই-কমার্স মার্কেটের একটি পরিচিত নাম।এই প্রতিষ্ঠানটিকে যিনি এই পর্যায়ে আজ দাঁড় করিয়েছেন,তিনি একজন গৃহিণী হয়েও অক্লান্ত পরিশ্রম ও মেধা দিয়ে আজ তিনি একজন সফল নারী উদ্যোক্তা এবং প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান।মার্ন বাজার.কম অনলাইন শপটিতে সকল প্রকার নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যগুলো খুব সহজেই এবং গ্রাহকদের সাধ্যের মধ্যে পণ্যগুলো ডেলিভারী দিয়ে থাকে।প্রতিষ্ঠানটি করোনাকালীন সময়ে মানবকল্যান এর সুবিদ্ধার্তে অতি দ্রুত সময়ে ভালোমানের পণ্য গ্রাহকের ঘরে ঘরে নিজ দায়িত্বে পৌঁছে দেয়াটাই ছিল মিসেস নাজমুন নাহার এর মূল লক্ষ্য।এই লক্ষ্য নিয়ে হেঁটে চলেছেন তিনি এবং তার টিম। গ্রাহকদের সমর্থনের কারনেই যাত্রাটি আরও বড় করে যাচ্ছেন মিসেস নাজমুন নাহার। একজন নারী হয়ে প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনা করতে গিয়ে তাকে অনেক বাধা বিপত্তীর সম্মুখীন হতে হয়েছে কিন্তু তার কষ্ট,শ্রম ও উদ্দীপনার জন্য-ই আজ মার্ন বাজার.কম এর একজন সফল নারী উদ্যোক্তা এবং চেয়ারম্যান।

তিনি প্রতিষ্ঠানটি শুরু করেছিলেন মাত্র ৩ জন সহযোগী নিয়ে। আজ মার্ন বাজার.কম এ প্রায় ১০০ জনের ও বেশি কর্মদক্ষতা সম্পন্ন সহযোগী কাজ করে যাচ্ছেন। আমরা সবাই জানি করনাকালীন সময়ে অনেকেই তাদের নিজ নিজ কর্মস্থল থেকে না চাইতেও সরে যেতে হয়েছে। সেই সময়ে কিছু ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য বেকারত্বের হার কমেনি। তার মধ্যে মার্ন বাজার.কম ও একজন। প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান মিসেস নাজমুন নাহার সর্বদা নতুন প্রজন্মের জন্য তার প্রতিষ্ঠানটি খোলা রেখেছেন।অভিজ্ঞতাহীন অনেক কর্মীকে তাঁর প্রতিষ্ঠানে সুযোগ প্রদান করেছেন।
মার্ন বাজার.কম অনলাইন শপটিতে সকল প্রকার নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যগুলো খুব সহজেই ব্যস্ত সময়ের মাঝে গ্রাহকদের সুবিধার্তে ঘরে ঘরে পৌঁছে দেয়া হয়।
মার্নবাজার নিজস্ব ওয়্যারহাউস থেকে এই অনলাইন সেবাটি দিয়ে থাকে।করণাকালীন পরিস্থিতি বিবেচনা করে তাদের রয়েছে নিজস্ব ডেলিভারী ব্যবস্থা। প্রত্যেকটি অর্ডার ডেলিভারী ম্যান স্বাস্থ্যবিধি মেনে দ্বারে দ্বারে পৌঁছিয়ে দেন। এখানে প্রায় ১০০ জনের বেশি কর্মচারী সর্বদা নিয়োজিত। মার্নবাজার কাস্টমার কেয়ার সার্ভিস ২৪/৭ গ্রাহকসেবা দিতে প্রস্তুত।
প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান মিসেস নাজমুন নাহার তার অভিজ্ঞতার সম্পর্কেও আমাদেরকে অনেক তথ্য জানিয়েছেন।তিনি আরও বলেন,প্রতিষ্ঠানটি সচ্ছল করার জন্য তিনি একা কষ্ট আর শ্রম দেননি,তিনি এর অবদান এইখানে কর্মস্থলে থাকা প্রত্যেকটি সদস্যকে দিতে চান।দেশের মহামারী পরিস্থিতেও তিনি হাল ছাড়েননি বরং নতুন উদ্যোগে তিনি তার এই পথযাত্রাকে আরও বড় করে যাচ্ছেন।তিনি বলেছেন তিনি এই প্রতিষ্ঠানটিকে দেশের বৃহত্তম অনলাইন গ্রোসারি শপ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করবেন।এই লক্ষ্য নিয়ে তিনি এবং তার টিম প্রতিনিয়ত এগিয়ে যাচ্ছেন।