গুরুত্ব পাচ্ছে নারী স্বাস্থ্য, রেস্টুরেন্টে স্যানিটারি ন্যাপকিন

120


ওমর ফারুক হিরু, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

কক্সবাজার: জেলার সদর থানা সড়কে ‘আল-গণি’ রেস্টুরেন্টে দুপুরের খাবার খেতে যান ঢাকা থেকে পেশাগত দায়িত্বপালনে কাজে আসা সাংবাদিক রাজনিন ফারজানা। ওই রেস্টুরেন্টের ওয়াশরুমে গিয়ে ভিন্ন এক চিত্র দেখতে পান তিনি। নারীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও নিরাপত্তায় রাখা ওয়াশরুমে রাখা হয়েছে স্যানিটারি ন্যাপকিন। এর মধ্যে দিয়ে দেশে নারী স্বাস্থ্য গুরুত্ব পাওয়ার বিষয়টিই ফুটে উঠেছে।

সারাবাংলার এই নারী সাংবাদিকের সূত্র ধরে প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, আল-গণি রেস্টুরেন্টের ওয়াশরুমে স্যানিটারি ন্যাপকিনের দেখা মিললেও পর্যটন নগরীর বাকী আরও ৫ শতাধিক হোটেল-মোটেল-গেস্টহাউসে নেই এই ব্যবস্থা। তবে তারকা মানের হাতেগোনা কিছু আবাসিক হোটেলের ওয়াশরুমে স্যানিটারি ন্যাপকিন রয়েছে।

এসব আবাসিক হোটেলের ওয়াশরুমগুলোতে তোয়ালে, স্যান্ডেল, শ্যাম্পু, সাবান, ব্রাশ-পেস্টসহ প্রয়োজনীয় জিনিস-পত্র রাখা হলেও স্যানিটারি ন্যাপকিন রাখা প্রয়োজন মনে করেনা। এমনও তথ্য পাওয়া যায়, স্যানিটারি ন্যাপকিন রাখার বিষয়টি হোটেল পরিচালকের মাথায় নেই। অনেকে এ ব্যাপারে অবগত নন। আবার অনেকে অসচেতনতা ও লজ্জার কারণে গুরুত্বপূর্ণ এই বিষয়টি এড়িয়ে চলে।

এ ব্যাপারে নানা সমালোচনা করেন নারীর প্রতি সম্মান ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতের দাবী রাখা সচেতন লোকজন। তারা বলছেন, অজ্ঞতা-অবহেলা ও কর্তৃপক্ষের অব্যবস্থাপনার কারণে এই অব্যবস্থা। স্বাস্থ্যকর নগরী খ্যাত কক্সবাজারে এমন অব্যবস্থাপনা খুবই দুঃখজনক।

সাংস্কৃতিক কর্মী ইয়াছির আরাফাত জানান, পিরিয়ডে কারণে স্কুল-কলেজ জীবনে অনেক সহপাঠীকে লজ্জা আর বিভ্রান্ত হতে দেখেছি। অজ্ঞতা আর সচেতনতার অভাবে অনেকে তাদের সহযোগিতাও করেনি। তাই শুধু মাত্র রেস্টুরেন্ট আর আবাসিক হোটেলে নয় সকল স্কুল-কলেজ, অফিস, যাত্রাবাহী বাসে নারীদের সুরক্ষায় স্যানিটারি ন্যাপকিন রাখা আবশ্যক। তা বাস্তাবায়নে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থা নেওয়া উচিৎ।

সমাজ কল্যাণ ও উন্নয়ন সংস্থার (স্কাস) চেয়ারম্যান জেসমিন প্রেমা জানান, কক্সবাজারের অনেক উন্নত হোটেল-রেস্টুরেন্টে এই ভাল উদ্যোগটি লক্ষ্য করা যায়নি যেটি আল-গণি রেস্টুরেন্টে করা হয়েছে। আল-গণির এই কাজটি সবার জন্য শিক্ষণীয়। নারীর স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও নিরাপত্তার জন্য আরো সচেতন হতে হবে। তখনই প্রতিষ্ঠা পাবে নারী বান্ধব একটি সমাজ ও জাতি।

গুরুত্ব পাচ্ছে নারী স্বাস্থ্য, রেস্টুরেন্টে স্যানিটারি ন্যাপকিন
ছবি: সারাবাংলা

এনজিও কর্মী হাজেরা খানম জানান, বিভিন্ন দেশ ভ্রমণ করে অভিজ্ঞতায় দেখা গেছে- উন্নত দেশগুলোতে টিসুর মতোই নারীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় প্রয়োজনীয় স্যানিটারি ন্যাপকিনের ব্যবহার রয়েছে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য এই পর্যটন নগরীতে বিষয়টি দুর্লভ।

কক্সবাজার শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের উপ-প্রকল্প পরিচালক জেসমিন আক্তার জানান, একজন নারীর জন্য এই বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। স্কুল, কলেজ, অফিস ছাড়াও ঘর থেকে বের হওয়া নারীর যেকোনো মুহূর্তে পিরিয়ড হতেই পারে। সেক্ষেত্রে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কর্মস্থলসহ গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলোকে নারীদের সহায়তায় স্যানিটারি ন্যাপকিন রাখা আবশ্যক।

ওয়াশরুমে স্যানিটারি ন্যাপকিন রেখে প্রশংসা দাবিদার ঐতিহ্যবাহী আল-গণি রেস্টুরেন্টের মালিক মোহাম্মদ রুবেল উদ্দীন জানান, আমার বাবা মরহুম আব্দুল গণির নামেই ঐতিহ্যবাহী আল-গণি রেস্টুরেন্ট। আল-গণির প্রত্যেকটা শাখার মূলমন্ত্র হলো মানুষের সেবার মধ্য দিয়েই ব্যবসা করা। এই ভাবনা থেকেই নারী ও শিশুদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও নিরাপত্তার জন্য ওয়াশরুমে স্যানিটারি ন্যাপকিন ও পেম্পাসসহ প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র রাখা হয়েছে। এছাড়া রেস্টুরেন্ট আলাদা রুমে শিশুদের দুধপান ও নারীদের নামাজের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। ব্যবসার জন্য সেবা নয় সেবার মধ্য দিয়েই ব্যবসা উচিৎ সবার।

এ ব্যাপারে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের চিকিৎসক রিপন চৌধুরী জানান, পিরিয়ড়ের সঠিক সময় স্বাস্থ্যসম্মত ন্যাপকিন ব্যবহার করা আবশ্যক। অজ্ঞতা, অসচেতনতা ও লজ্জার কারণে অনেকে বিষয়টাকে গুরুত্ব দেয় না। তাই স্বাস্থ্য সুরক্ষায় সচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি স্যানিটারি ন্যাপকিন নিশ্চিত করা উচিৎ। যাতে করে প্রতিষ্ঠা হয় নারীর স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও সম্মান।

সারাবাংলা/এনএস





Source link