গাঁজার পক্ষে ইতালিতে ৫ লাখ স্বাক্ষর, এবার গণভোট

69


আন্তর্জাতিক ডেস্ক

ইতালিতে গাঁজাকে বৈধতা দেওয়া হবে কি না সে বিষয়ে গণভোটের আয়োজন করা হবে। আগামী বছর সম্ভব্য ভোট অনুষ্ঠিত হতে পারে। একাধিক গ্রুপ এক সপ্তাহ ধরে প্রচার চালিয়ে এ বিষয়ে পাঁচ লাখ সই সংগ্রহ করতে সক্ষম হওয়ায় গণভোট আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। খবর সিএনএন।

ইতালির আইন অনুযায়ী কোনো দাবির পক্ষে ৫ লাখ সই সংগ্রহ করা গেলে সেই দাবির পক্ষে গণভোট অনুষ্ঠিত হয়। গাঁজার বৈধতার পক্ষে ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যেই পাঁচ লাখ সই সংগ্রহ করার বাধ্যবাধকতা ছিল। কিন্তু আয়োজকরা নির্ধারিত সময়ের আগেই লক্ষ্য পূরণ করায় এখন গণভোট অনুষ্ঠিত হবে। যদি নাগরিকরা গাঁজাকে বৈধতা দেওয়ার পক্ষে ভোট দেয়, তাহলে দেশটিতে গাঁজার ক্রয়-বিক্রয় ও চাষাবাদসহ সবই আইনত বৈধতা পাবে।

‘#গাঁজার পক্ষে গণভোট’- এই দাবির পক্ষে এক সপ্তাহের কম সময়ের মধ্যে পাঁচ লাখ সই জমা পড়ে অনলাইনে। আয়োজকরা তাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে জানিয়েছে, আমরা প্রতিটি ভোটদাতাকে ধন্যবাদ জানিয়ে বিষয়টি উদযাপন করছি। কারণ এ ধরনের গণভোট ইতালিতে প্রথম অনুষ্ঠিত হবে।

ইতালির আইনে গাঁজা সেবন অপরাধ নয় এবং চিকিৎসার উদ্দেশ্যে এর সেবনের অনুমোদন রয়েছে। কিন্তু নেশার জন্য ব্যাপকহারে গাঁজার চাষাবাদ, ক্রয় ও বিক্রয় অবৈধ। এ অপরাধে কেউ ধরা পড়লে তার ১০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে।

আয়োজকরা যুক্তি দিয়ে বলেন, এটি একটি খারাপ অভ্যাস, কিন্তু রাষ্ট্র যেন গোটা ঘটনাকে এক ধরনের পরিকল্পিত অপরাধ হিসেবে গণ্য করে। তবে বৈধতা দেওয়ার অর্থ এই নয় যে, গাঁজা সেবনে উৎসাহিত করা। বরং, এর মাধ্যমে এটিকে নিরাপদ এবং মানুষকে আরও বেশি সচেতন করে তোলা।

তারা আরও জানান, যদি গাঁজাকে বৈধ করা হয়, তাহলে নেশা হিসেবে অল্প পরিমাণে গাঁজা ব্যবহারের কারণে অযথা বিচারের অবসান ঘটবে। একইসঙ্গে যেসব রোগী প্রচণ্ড ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে গাঁজার ব্যবহার করেন, তাদের আর বিচারের মুখোমুখি হতে হবে না।

আয়োজকরা দাবি করেন, গাঁজার বৈধতা দেওয়া হলে দেশটিতে কয়েক হাজার নতুন কর্মসংস্থান তৈরি হবে। একইসঙ্গে দেশের রাজস্ব আয় বাড়বে, যার আনুমানিক মূল্য সাত বিলিয়ন ইউরো (৯৬ হাজার ১২৪ ডলার)।

ক্যাম্পেইনের আয়োজকরা বলছেন, ইতালিতে ৬০ লাখ লোক গাঁজা সেবন করে। ২০২১ সালে ইউরোপিয়ান মনিটরিং সেন্টার ফর ড্রাগস অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডিকশন থেকে জারি করা এক ড্রাগ রিপোর্ট বলা হয়, ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রাপ্তবয়স্কদের (১৫ থেকে ৬৪ বছর) প্রায় ১ দশমিক ৮ শতাংশ প্রতিদিন গাঁজা সেবন করে।

এর আগে, ১৯৯৩ সালে ইতালিতে প্রথম বিনোদনের জন্য গাঁজার ব্যবহারকে অনুমোদন দেওয়া। পরে ২০০৬ সালে একটি আইন করে গাঁজা সেবনকারীদের উপর জরিমানা ধার্য করা হয়। এছাড়াও ২০১৪ সালে নেশার জন্য গাঁজার চাষ, প্রক্রিয়াজাতকরণ ও বিক্রির জন্য সাজা তিনগুণ করা হয়।

ইউরোপের অন্য দেশগুলোর চেয়ে গাঁজার সেবনের ক্ষেত্রে কিছুটা উদারনীতি গ্রহণ করে ইতালি। যখন যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্সের মতো দেশগুলো গাঁজার বিনোদনমূলক ব্যবহারকে অপরাধ হিসেবে চিহ্নিত করছে।

সারাবাংলা/এনএস





Source link