গন্তব্যে না গিয়ে মাঝপথে যাত্রী নামিয়ে ঘুরিয়ে দেয়ার অপরাধে ৬ বাসকে ৬৫ হাজার টাকা জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মালিক, চালক সবাইকে বারবার বলে আসছি, সতর্ক করছি। গন্তব্যে না গিয়ে মাঝপথে কোনোভাবেই যাত্রীদের নামিয়ে দেয়া যাবে না। এটা শুধু যে পারমিটের শর্ত ভঙ্গ তা নয়, বরং এটা যাত্রী অধিকারের চরম লঙ্ঘন। অনেক বাসকে জরিমানাও করছি। কিন্তু পরিস্থিতির খুব একটা উন্নতি হচ্ছে না। কারণ, গোড়ায় গলদ। সিস্টেম দূষিত। সরকার বারবার বলে আসছে, চালকদের হাতে দৈনিক চুক্তিতে গাড়ি দেয়া যাবে না। গণপরিবহনে মাসিক বেতনধারী স্থায়ী চালক রাখতে হবে। যতদিন পর্যন্ত দৈনিক জমার ভিত্তিতে গণপরিবহন চলবে ততদিন পর্যন্ত সড়কে শৃঙ্খলা আনয়ন করা সম্ভব হবে না। সড়কে ৮০ শতাংশ বিশৃঙ্খলার পিছনে দায়ী এই একটি বাজে সিস্টেম। মালিকের ‘জমা’ পরিশোধের পর আর যা-ই থাকবে সবই চালক হেলপারের। এই যদি হয় সিস্টেম, তাহলে চালক-হেলপাররা তাদের ‘ইনকাম’ বাড়ানোর জন্য সড়কে যত ধরনের অনিয়ম করা লাগে সবই করবে। কোন সড়কবিধিই তারা মানতে চাইবে না। তারা তখন তাদের স্বার্থে প্রতিনিয়ত যাত্রীদের স্বার্থকে পদদলিত করবে। যাত্রীদের সুবিধা-অসুবিধার বিষয়গুলো তারা থোড়াই কেয়ার করবে। যাত্রীরা হয়ে যাবে তাদের করুণার পাত্র। তারা ইচ্ছে হলে যাত্রীদের মাঝপথে নামিয়ে দিয়ে গাড়ি আবার ঘুরিয়ে দেবে, অতিরিক্ত ভাড়া দাবি করবে, সড়কে প্রতিযোগিতা দেবে, বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালিয়ে যাত্রীদের জীবনকে হুমকির মুখে ফেলবে, যত্রতত্র যাত্রী উঠানামা করবে, এলোমেলো গাড়ি চালিয়ে রাস্তায় জ্যাম লাগিয়ে রাখবে, ট্রাফিক সিগনাল অমান্য করবে এবং আরও যা যা করা লাগে সবই করবে। এতো এতো জরিমানা, সতর্কবাণী দেয়ার পরও সিস্টেমের গলদের কারণে পরিস্থিতির খুব একটা উত্তরণ ঘটছে না। আজও মাঝপথে যাত্রী নামিয়ে দিয়ে বাস ঘুরিয়ে দেয়ার অপরাধে বহদ্দারহাট মোড়ে ১০ নং রুটের নিম্নোক্ত ৬টি বাসকে ৬৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছি। সড়কে জ্যাম থাকবেই। তাই বলে তো মাঝপথে যাত্রী নামিয়ে দেয়া যাবে না। এটা তো অমানবিক কাজ। আর এই জ্যামের কারণও অধিকাংশক্ষেত্রে কিন্তু চালকদের বেপরোয়া গাড়ি চালনা। তাহলে যাত্রী-স্বার্থ কি উপেক্ষিতই থাকবে? সিদ্বান্ত নিয়েছি, এসব অপরাধের জন্য এখন থেকে আর শুধু অর্থদণ্ড দিয়ে ছেড়ে দেবো না। সাথে আইন মোতাবক চালক-হেলপারদের কারাদণ্ডেও দণ্ডিত করবো। তখন হয়তো সকলের টনক নড়বে। এসব বিশৃঙ্খলা বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত আমার কঠোর অবস্থান অব্যাহত থাকবে। যাত্রীরা ফ্রি-তে বাস, টেম্পুতে চড়েন না। তারা টাকা দিয়ে সেবা কিনেন। হয়রানি ছাড়া সুন্দরভাবে নিরাপদে গন্তব্যে পৌঁছানোটা যাত্রীর অধিকার। সুতরাং যাত্রী-সেবা সুরক্ষা নিশ্চিত করার জন্য যা যা করণীয় তা-ই করা হবে।

মতামত দিন

Post Author: newsdesk

A thousand enemies is not enough; a single enemy is. There is nothing as a ‘harmless’ enemy.