‘খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নয়, বিএনপির উদ্দেশ্য মানুষকে উসকে দেওয়া’

120


সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে চিকিৎসা দিতে বিদেশে নেওয়ার অনুমতির কথা বললেও বিএনপি মূলত এর মাধ্যমে দেশের মানুষকে উসকে দিয়ে নৈরাজ্য করতে চায় বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া।

তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসাসেবা নেওয়া বিএনপির মূল উদ্দেশ্য নয়। তাদের উদ্দেশ্য হলো খালেদা জিয়া অসুস্থ— এটি দেখিয়ে মানুষের করুণা ভিক্ষা করা। তাদের উদ্দেশ্য খালেদা জিয়ার অসুস্থতাকে পুঁজি করে দেশের মানুষকে উসকানি দিয়ে দেশে নৈরাজ্য-সন্ত্রাস ছড়িয়ে দেওয়া।

মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) বিকেলে ধানমন্ডির প্রিয়াঙ্কা কমিউনিটি সেন্টারে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের এক কর্মী সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, আজ বাংলাদেশে যখন প্রতিটি ক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে, ঠিক সেই মুহূর্তে দেশের এই অগ্রযাত্রাকে বাধাগ্রস্ত করতেই বিএনপি-জামায়াত, আমাদের সেই চেনা পরাজিত শত্রু বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। বাংলাদেশের যখন বিশ্বে মর্যাদা বয়ে আনছেন শেখ হাসিনা, ঠিক সেই মুহূর্তে যাদের আমরা বারবার পরাজিত করেছি, তারা নানামুখী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। তাই এই ষড়যন্ত্র সম্পর্কে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।

আওয়ামী লীগের এই দফতর সম্পাদক আরও বলেন, খালেদা জিয়া এই দেশের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। আজ তার চিকিৎসা নিয়ে এক ধরনের মিথ্যাচার-অপপ্রচার করে তারা জনগণকে উসকানি দিতে চায়। আমাদের বুঝতে হবে এই ষড়যন্ত্রের মূল উদ্দেশ্য কী। মূল উদ্দেশ্য খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নয়, এই সরকারের যে উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তাকে বাধাগ্রস্ত করা এবং দেশের মধ্যে অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরি করে সরকারের উন্নয়ন কাজের সুফল যেন মানুষ না পায়, তার জন্য বিভিন্ন ষড়যন্ত্র করাই তাদের লক্ষ্য।

খালেদা জিয়া সাজাপ্রাপ্ত একজন আসামি— এটি উল্লেখ করে বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, তিনি দেশের সর্বোচ্চ আদালতে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি। আজ বিভিন্ন অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়ে অপরাধীরা কারাগারগুলোতে সাজা ভোগ করছেন। আইন সবার জন্য সমান। খালেদা জিয়ারও কারাগারে সাজা ভোগ করার কথা ছিল। তারপরও বাংলাদেশের আইন যতটুকু দেশের প্রধানমন্ত্রীকে ক্ষমতা দিয়েছে, সেই ক্ষমতা নিয়ে বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিত রেখে তাকে বাসায় রেখে চিকিৎসা ব্যবস্থা করেছেন। এ ধরনের নজির শুধু বাংলাদেশের রাজনীতিতে নয়, আমাদের আশপাশের কোনো দেশেও এমন নজির নেই।

এই সরকার দেশের সংবিধান ও আইন দ্বারা পরিচালিত হয় উল্লেখ করে বিএনপি নেতাদের প্রতি প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, তাদের কোনো নেতা অথবা চিকিৎসক কি সুনির্দিষ্ট করে বলেছেন যে আপনাদের নেত্রীর এই রোগ হয়েছে? কিংবা এই রোগের চিকিৎসা পৃথিবীর এই হাসপাতলে হতে পারে? কিংবা এই রোগের চিকিৎসা এই ডাক্তার করতে পারেন? এ ধরনের সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য আজ পর্যন্ত আপনারা দিয়েছেন? দেননি। তারা একবার বলছেন সিঙ্গাপুর যাবেন, একবার বলছেন ব্যাংকক যাবেন, একবার বলছে লন্ডন যাবেন। কোন হাসপাতালে নিতে চান, সেটি কিন্তু তারা বলছেন না।

‘তার মানে বেগম জিয়ার চিকিৎসা সেবা নেওয়া উদ্দেশ্য নয়, তাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে, খালেদা জিয়া অসুস্থ— এটি দেখিয়ে মানুষের করুণা ভিক্ষা করে দেশের মানুষকে উসকানি দিয়ে দেশে নৈরাজ্য-সন্ত্রাস তৈরি করা। এই বিষয়গুলো আমাদের দেশবাসীকে বোঝাতে হবে,’— বলেন ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া।

এর আগে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের কর্মী সমাবেশ উদ্বোধন করেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি সাঈদুর রহমান। সমাবেশে প্রধান বক্তা ছিলেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক লায়ন শেখ আজগর নস্কর।

দক্ষিণ কমিটির আহ্বায়ক শাহজাহান হাওলাদারের সভাপতিত্বে ও কাজী মহিদুল ইসলাম মহিমের সঞ্চালনায় কর্মী সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি আবুল বাশার, বীর মুক্তিযোদ্ধা গফুর চৌকদার, মুহাম্মদ আলম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম খা, ফিরোজ আহমেদ তালুকদার, প্রচার সম্পাদক শফিউল আলম শফিক, দফতর সম্পাদক এইচ এম এনামুল হক রাজু, মুক্তিযোদ্ধা সম্পাদক সাজদুর রহমান কমলসহ  দক্ষিণের আহ্বায়ক কমিটির নেতারা।

সারাবাংলা/এনআর/টিআর





Source link