উদ্যোক্তা বিষয়ক সাক্ষাৎকার পর্ব-২

365
শামীমা ইসরাত রিনি
শামীমা ইসরাত রিনি

আজকের দ্বিতীয় পর্বে আমরা শুনবো একজন নারী উদ্যেক্তার গল্প। আমাদের সাথে আজকে আছেন শামীমা ইসরাত রিনি, কক্সবাজারের মেয়ে।

১. প্রথমে আপনি এবং আপনার প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে কিছু বলুন?
আসসালামুয়ালাইকুম, আমি শামীমা ইসরাত রিনি। আমার জন্ম বাংলাদেশের অন্যতম পর্যটন নগরী কক্সবাজার এ। আমার শৈশব লিখা পড়া সব কক্সবাজার এ, বিয়ে হয় কোর্টবাজার।
আমি যখন এইচএসসি পরীক্ষা শেষ করে বসে ছিলাম তখন চিন্তা করলাম কি করা যায়, আমার পরিবারে মা,ভাই বোন সবাই কিছু না কিছু করত , বিশেষ করে আমার মা কে দেখে অনুপ্রাণিত হতাম উনি নকশি কাঁথা বেড়শিট , নাইলন দিয়ে সোফা বানাতেন অনেক সুন্দর হাতের কাজ করতেন। আমি চট্টগ্রাম যাই বোনের বাড়িতে ওখানে গিয়ে ব্লক বাটিক এমবুশ এই কাজ গুলো শিখি, এর পর আমার বিয়ে হয়ে যায়। আমার প্রথম বেবী হয় ও হওয়ার পর চিন্তা করলাম এবার কাজ শুরু করব। প্রথমে ব্লক,বাটিক, এমবুশ, দিয়ে আরম্ভ করি। একা সারারাত কাজ করতাম সকালে ডেলিভারি দিতাম এভাবে আমার উদ্যোক্তা জীবনের শুরু ৫ হাজার টাকা নিয়ে শুরু করেছিলাম ২০০৫ সালে অফলাইনে আমার বুটিকস এর নাম দিয়েছিলাম লাজুক বুটিকস। অনলাইনে ২০১৬ সালে । আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি একজনের অর্থনৈতিক সামাজিক সচ্ছলতা না থাকতে পারে, কিন্তু তার যখন একটা বড় স্বপ্ন থাকে, একজন উদ্যোক্তা তার রাস্তা নিজেই তৈরি করে।

২. আমাদের দেশের বেশীরভাগ শিক্ষার্থীরা পড়ালেখা শেষে চাকরি খুঁজতে ব্যস্ত থাকে সেক্ষেত্রে আপনি ভিন্ন হলেন কেন?
আমাদের দেশের মেয়েরা পড়াশোনা শেষ করে চাকরি করেন, কিন্তু আমার বেলাই ছিল ভিন্ন, আমি স্বাধীন চেতা মানুষ , আমার যেহেতু ছোট বাচ্চা ছিল চাকরি করাটা আমার দারা সম্ভব ছিল না , তাই উদ্যোক্তা জীবনটা বেছে নিলাম। তাতে আমি আমার পরিবারকে সময় দিতে পারি নিজের কাজ ও সামলাতে পারি , কাউকে জবাবদিহি ও করতে হয় না।
৩.শুরুটা কেমন? মূলধন কি রকম এবং কতজন পেশাদার নিয়ে শুরু হয়েছিলো?
আমার শুরটা একটু কষ্ট হয়েছিল যেহেতু নতুন কাজ শুরু করেছিলাম । মূলধন ছিল ৫০০০ টাকা,কোনো পেশাদার ছিল না।

৪. এই উদ্যোগটিই বা কেন নিলেন?
এই উদ্যোগ টা নিয়েছি নিজে সাবলম্বী হওয়া ও পরিবার কে সাপোর্ট দেওয়ার জন্য।

৫. গ্রাহক সংগ্রহ হয়ে থাকে কেমন করে?
একটা কাজ যখন শুরু করি প্রথমে পরিবারের সবাই কেনা কাটা করে, বন্ধু, বান্ধবীরা, আসে পাশের লোকজন রাই নেন এভাবে আস্তে আস্তে অগ্রসর হতে থাকে একজন থেকে আরেকজন। আবার যখন অনলাইনে আসি তখন পরিচিতি আর ও বেড়ে যায় আলহামদুলিল্লাহ।

৬.বর্তমানে কতজন পেশাদার/কর্মী রয়েছে আপনার প্রতিষ্ঠানে?
বর্তমানে ২ জন পেশাদার কর্মী রয়েছে।
৭. প্রতিষ্ঠান ব্যবস্থাপনার জন্য আলাদা কোন ব্যবস্থাপনা টিম/বিভাগ কি রয়েছে?
আমি একাই সব কিছু করি। আমার স্বামী, সন্তানরা সাহায্য করে।

৮.আপনার প্রতিষ্ঠানের অর্জন?

দীর্ঘ ১৫ বছর পার করে আসলাম উদ্যোক্তা জীবনে। অনেক ঝড় ঝাপটা দিয়ে, প্রতিটি উদ্ধোগে ঝুকির সম্ভাবনা শতভাগ তাই যারা এ পথে হাঁটার সাহস করে তাদের কে সবার উৎসাহ ও অনুপ্রেরণা দেওয়া উচিৎ সবচেয়ে বেশি হতাশা আসে উদ্যোক্তা জীবনে। আল্লাহর অশেষ রহমতে আপনাদের সকলের দোয়ায়,ও এত এত ভালবাসা পেয়েছি এটাই আমার বড় অর্জন।
৯. আপনার প্রতিষ্ঠানের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা এবং নতুন কোন পদক্ষেপ বা উদ্যোগ কি ব্যাক্তিগত এবং প্রাতিষ্ঠানিকভাবে আছে?

আমার প্রতিষ্ঠানটি ভবিষ্যৎতে বড় শো রুম দেওয়ার চিন্তাধারা আছে।

১০. উদ্যোক্তা হতে কি কি প্রয়োজন?

একজন উদ্যোক্তা কে তার গ্রাহক কি চাই তা জানতে হবে, তার আচরণ ভালো হতে হবে। হাসি মুখে তাদের সাথে কথা বলতে হবে আর ও অনেক কিছু জানতে হবে। একজন উদ্যোক্তার লাইসেন্স, টিন , বিন, নিজের পেইজ এর একটি একাউন্ট অবশ্যই থাকতে হবে।