ইসি সংলাপে বাংলাদেশ ন্যাপ : নির্বাচন ব্যাবস্থার উপড়ে জনগন আস্থা হারিয়ে ফেলেছে

29

বর্তমানে দেশে একটি অবাধ, সুষ্ট এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন ব্যাবস্থা আছে বলে ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক জোটের দলগুলো ব্যতিরেকে অন্যান্য রাজনৈতিক দলসহ সাধারণ জনগন কেউই বিশ্বাস করে না বলে অভিমত প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ।

বৃহস্পতিবার (২৮ জুলাই) নির্বাচন ভবনে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সঙ্গে সংলাপে বসে দলটি এমন অভিমত প্রকাশ করেছে।

তারা আরো বলেন, ২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের পর নির্বাচন ব্যাবস্থার উপড়ে রাজনৈতিক দল গুলোর পাশাপাশি জনগনও সম্পূর্ণ ভাবে আস্থা হারিয়ে ফেলেছে। এমতবস্থায়, নির্বাচন কমিশনকে গণতন্ত্রের স্বার্থে, সুস্থ ধারার রাজনীতির প্রয়োজনে সর্বাগ্রে স্বচ্ছ, প্রশ্নমুক্ত, গ্রহণ যোগ্য এশটি নির্বাচন ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। নির্বাচন ব্যাবস্থায় জনগনের আস্থা ফিরিয়ে আনতে হবে।

বাংলাদেশ ন্যাপ যে কোন মূল্যে, সকল দলের অংশগ্রহণে অবাধ, সুষ্ট ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দেখতে চায় বলে মন্তব্য করেছেন।

সংলাপে বাংলাদেশ ন্যাপ চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানির নেতৃত্বে ১০ সদস্যের প্রতিনিধি দল অংশগ্রহন করে। প্রতিনিধি দলে আরো ছিলেন দলের মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, প্রেসিডিয়াম সদস্য ব্যারিষ্টার মশিউর রহমান গানি, যুগ্ম মহাসচিব মো. নুরুল আমান চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. জসীমউদ্দিন তালুকদার, মো. রেজাউল করিম রীবন, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম, তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক এখলাস হক, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মো. আমজাদ হোসেন, নির্বাহী সদস্য মোফাক্কারুল ইসলাম পেলাব।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার, চার নির্বাচন কমিশনার ও ইসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অংশ নিয়েছেন।

এসময় দলের পক্ষ থেকে আরো বলা হয় যে, ভোটের মাধ্যমে নিজের জনপ্রতিনিধি নির্বাচন করতে পারা প্রতিটি নাগরিকের মৌলিক অধিকার এবং সংবিধান এই মৌলিক অধিকার প্রয়োগের দায়িত্বটি নির্বাচন কমিশনের মাধ্যমে নিশ্চিত করা হয়। তাই
নির্বাচন কমিশনের কর্তব্য হবে আগে সব রাজনৈতিক দল ও ভোটারদের আস্থা অর্জনে যাবতীয় বিতর্কের ঊর্ধ্বে উঠে কাজ করা।

বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ মহান মুক্তিযুদ্ধের মুল চেতনা, একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র নির্মাণের লক্ষে ১১দফা প্রস্তাবনা এবং পরামর্শ পেশ করে। এগুলো হলো : ০১. বাংলাদেশ ন্যাপ মনে করে স্বাধীনতার ৫০ বছরে দারিয়ে বিশ্বের প্রায় সকল সংসদীয় গণতন্ত্রের রাষ্ট্র গুলোর মতই বাংলাদেশেও দ্বীকক্ষ বিশিষ্ট সংসদ আজ সময়ের দাবী। ০২. গত ৫০ বছরে দেশের জনসংখ্যা দিগুনের বেশী বৃদ্ধি পেয়েছে।ফলে জাতীয় সংসদের আসন সংখ্যা বৃদ্ধি করার প্রয়োজন বলে আমরা মনে করি। ০৩. বিদ্যমান আসন ভিত্তিক প্রত্যক্ষ নির্বাচনের পাশাপাশি দল বা জোটের সারা দেশে প্রাপ্ত ভোটের আনুপাতিক হারে সংসদে প্রতিনিধি নির্বাচনের ব্যবস্থা চালু করা প্রয়োজন। তাহলে সংসদে বেশী সংখ্যক দলের প্রতিনিধিত্ব ও তূলনা মুলক ভাবে যোগ্য ব্যাক্তিদের নির্বাচিত হওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হবে। ০৪. জাতীয় নির্বাচনের কমপক্ষে ৬ মাস আগে ভোটারদের হাল নাগাদ তালিকা ওয়েব সাইটের মাধ্যমে প্রকাশ করা প্রয়োজন। ০৫. দেশের রেমিট্যান্স যোদ্ধা-প্রবাসীদের ভোটার তালিকায় অর্ন্তভূক্ত ও তাদের ভোট গ্রহণে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করার প্রস্তাব করছি। ০৬. রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন পদ্ধতি শর্তাবলি সহজ করা। যে সব শর্ত সংবিধানের মৌল গণতান্ত্রিক চেতনার সঙ্গে সাংঘর্ষিক ও অসঙ্গতি পূর্ণ আরপিও’র সে সকল ধারা বাতিল করা এবং স্বতন্ত্র প্রার্থীদের একশতাংশ সমর্থনের বিধান রহিতকরার প্রস্তাব করছি। ০৭. অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য প্রয়োজন লেভেল প্লেইংফিল্ড। সে ক্ষেত্রে একটি সংসদ বহাল থাকা অবস্থায় আরেকটি সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে সেই লেভেল প্লে­ইং ফিল্ড তৈরী করা সম্ভব নয়। সেহেতু, নির্বাচনী তফসিল ঘোষনার সাথে সাথে জাতীয় সংসদ বিলুপ্ত করা প্রয়োজন। ০৮. অবসর প্রাপ্ত সামরিক-বেসামরিক আমলা ও তারকা ব্যবসায়ীরা নূন্যতম পাঁচ বছর রাজনীতিতে সক্রিয় থাকার পরই কেবল তারা জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন। ০৯. একটি আধুনিক ইলেকটরাল ম্যানেজমেন্ট সিষ্টেম (ইএমএস) অর্থাৎ এশটি আধুনিক নির্বাচন ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি গ্রহন করতে হবে। যেমন; ক) জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একজনকে রিটার্নিং অফিসার না করে ৩ সদস্য বিশিষ্ট জেলা রিটারনিং প্যানেল তৈরী করা যেতে পারে। সেক্ষেত্রে ১জন সশস্ত্র বাহিনির সদস্যকে অবশ্যই এই প্যানেলে অর্ন্তভূক্ত করার বিষয়টি বিবেচনার জন্য বাংলাদেশ ন্যাপ প্রস্তাব করছে। খ) প্রতিটি নির্বাচনী কেন্দ্রে ব্যালট বাক্স ও ব্যালট পেপার পৌঁছানো থেকে কেন্দ্রের ফলাফল ঘোষণা না হওয়া পর্যন্ত ভোট দেওয়ার গোপন কক্ষ ব্যতীত প্রতিটি কক্ষে ও বুথে অনিয়ম রোধে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করে লাইভ স্ত্রিমিং, রেকর্ডিং এবং কেন্দ্রের বাহিরে প্রদর্শন করতে হবে। প্রার্থীদের এই সিসিটিভি লাইভস্ত্রিমিং ও রেকর্ডিংএর মাধ্যমে পর্যবেক্ষণের সুযোগ করে দিতে হবে যেন যে কোন অনিয়মের অভিযোগ তাৎক্ষনিক ভাবে নিষ্পত্তি করা যায়। গ) প্রতিটি নির্বাচনী কেন্দ্রে পিপল কাউন্টিং মেশিন স্থাপন করে নির্বাচনের দিন মোট ভোটের যোগফল এর সহিত কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি পর্যবেক্ষণে আনতে হবে যাতে করে কোন ভাবেই একজন ভোটার একএর অধিক ভোট দিতে না পারে। ঘ) প্রতিটি কেন্দ্রের নির্বাচনী ফলাফল প্রার্থীদের প্রতিনিধিদের সমুক্ষে কেন্দ্রতেই ঘোষণা নিশ্চিত করতে হবে এবং প্রত্যেক প্রার্থীর প্রাপ্ত ভোটের সার্টফিকেট ইস্যু বাধ্যতা মুলক হতে হবে। ১০. বাংলাদেশ ন্যাপ মনে করে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার না করা। ভোটারদের মধ্যে ইভিএম’র বিষয়ে গ্রহন যোগ্যতা সৃষ্টি না করে ইভিএম চাপিয়ে দিলে সিদ্ধান্তটি একটি অংশ গ্রহণ মূলক নির্বাচনের পথে বাধা হয়ে দাড়াতে পারে। ১১. বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনী বিশ্বের বিভিন্ন রাষ্ট্রে জাতিসংঘের অধীনে নির্বাচন পরিচালনা করে ব্যাপক সুনাম অর্জন করেছে। স্বাধীনতার ৫০ বছর পর এখন সময় এসেছে সশস্ত্র বাহিনীকে দেশের নির্বাচন ব্যাবস্থায় প্রধান সহযোগী শক্তি হিসেবে অর্ন্তর্ভুক্ত করা।