ইসলামকে অপমান করা হয়েছে, PUBG নিষিদ্ধ করার দাবিতে সরব মুসলিম গ্রুপ

অনলাইন ডেস্ক: PUBG বন্ধ করা হোক। এদেশে এমন দাবি আগেও উঠেছে। কিন্তু সব প্রতিকূলতা কাটিয়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের যুব প্রজন্মের স্মার্টফোনে গেঁড়ে বসেছে এই অনলাইন গেম। রমরমিয়ে বাড়ছে এর জনপ্রিয়তাও। এমনকী গেমটি খেলে মোটা অঙ্কের অর্থও জিতে যাচ্ছেন প্লেয়াররা। ফলে আসক্তি আরও বাড়ছে। কিন্তু এরই মধ্যে ফের বিপাকে PUBG। এবার গেমটির বিরুদ্ধে জারি হল ফতোয়া। অপরাধ? জনপ্রিয় এই অনলাইন গেম নাকি ইসলামকে অপমান করেছে।

ইন্দোনেশিয়ার একটি মুসলিম গ্রুপ বুধবার এমনই অভিযোগ তুলেছে প্লেয়ার আননোন ব্যাটেলগ্রাউন্ড বা PUBG-র বিরুদ্ধে। তাদের দাবি, এই গেম শুধু ইসলাম ধর্মকে আঘাতই করেনি, খেলোয়াড়দের মনে হিংসার সঞ্চারও করেছে প্রবলভাবে। হিংসা ছড়ানো এবং খেলোয়াড়দের আগ্রাসী করে তোলার অভিযোগে গুজরাটে নিষিদ্ধ হয়েছে এই গেম। এছাড়াও ইরাক, নেপালের মতো দেশগুলিতেও PUBG খেলা যায় না। এমন পরিস্থিতিতে ইন্দোনেশিয়ার এই অভিযোগ যে আরও একবার PUBG-কে সংকটে ফেলল, তা বলাই বাহুল্য।

অনলাইন এই গেম অনেকে মিলেই সাধারণত খেলে থাকেন। একটি অচেনা যুদ্ধক্ষেত্রে প্লেয়ারদের নামিয়ে দেওয়া হয়। তারপর বিভিন্ন অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে প্রতিপক্ষের সঙ্গে লড়াই করে যুদ্ধ জিততে হয়। জিতলেই পুরস্কার হিসেবে মেলে ‘চিকেন ডিনার’। গেমটি একপ্রকার নেশায় পরিণত হয়েছে তরুণ প্রজন্মের কাছে। লাগাতার ঘাড় গুঁজে এই গেম খেলে মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়েছিল কর্ণাটকের এক তরুণ। আবার মধ্যপ্রদেশের বছর ষোলোর এক কিশোর খেলার চাপ সহ্য না করতে পেরে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছিল। বুধবার ইন্দোনেশিয়ার উলেমা কাউন্সিলের তরফে স্থানীয়দের অনুরোধ জানানো হয়, কেউ যেন আর PUBG না খেলেন। পাশাপাশি সরকারকে এই গেম নিষিদ্ধ করার আবেদনও জানানো হয়েছে। কাউন্সিলের তরফে বলা হয়েছে, PUBG বা এধরনের খেলা হারাম। কারণ এগুলি মানুষের মধ্যে হিংসাত্মক প্রবৃত্তি জাগিয়ে তোলে। সেই সঙ্গে এই গেম ইসলামকে অপমানও করেছে। তাই অবিলম্বে নিষিদ্ধ করা উচিত PUBG।

মতামত দিন

Post Author: newsdesk

A thousand enemies is not enough; a single enemy is. There is nothing as a ‘harmless’ enemy.