আলোচনা সভায় নেতৃবৃন্দ ফেসবুক শক্তিশালি সামাজিক মাধ্যম

0
437

সকালে ঘুম থেকে উঠে চায়ে চুমুক দিতে দিতে আমরা সাধারণত যে কাজটি করি তা হল সোশ্যাল মিডিয়ায় চোখ বুলানো। হোক সেটা ফেসবুক, টুইটার কিংবা ইন্সটাগ্রাম বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগ সভাপতি এম.এ জলিল।

তিনি বলেন, আগে যেখানে সকালে নিয়মিত খবরের কাগজ পড়া হতো, সেখানে এখন চোখ বুলানো হয় ফেসবুক কিংবা ইন্সটাগ্রামে। শুধু সকালেই নয়; দুপুর, বিকাল, সন্ধ্যা, রাত- যখনই সময় হয়, সোশ্যাল মিডিয়ায় আমাদের একবার ঢুঁ মেরে আসতেই হবে। ফলে সোশ্যাল মিডিয়া বা ফেসবুক এমান্বয়ে শক্তিশালি সামাজিক মাধ্যমে পরিনত হচ্ছে।

সোমবার (১০ ফেব্রুয়ারি) নয়াপল্টনে মিলনায়তনে বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম ফেসবুক এর ১৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আজকের বিশ্বে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সাইটগুলোর মধ্যে ফেসবুক অন্যতম। বর্তমান যুগ হচ্ছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির যুগ। ঘরে বসে আমরা এখন ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিশ্বের যেকোনো প্রান্তে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারি। এই অনলাইন যোগাযোগ ব্যবস্থার অন্যতম মাধ্যম হলো ফেসবুক, যার মাধ্যমে দূরের মানুষকে একেবারে কাছে আনতে পারি। সামাজিক যোগাযোগের ক্ষেত্রে কোনো একটি বিষয় নিয়ে বন্ধুর সঙ্গে আলোচনা করা, মত প্রকাশ করা, স্বাধীনভাবে চ্যাট করার ভার্চুয়াল মাধ্যম এই ফেসবুক।

প্রধান বক্তার বক্তব্যে বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির বিকাশের কারণে সামাজিক মাধ্যমগুলো এখন জীবনের অংশ হয়ে উঠছে। এর মধ্যে ফেসবুকের জনপ্রিয়তা এখন তুঙ্গে। প্রতিদিনই এতে যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন ব্যবহারকারী। তাই দেখা যায়, দেশের মূলধারার গণমাধ্যম থেকেও ফেসবুক ক্রমেই শক্তিশালী হয়ে উঠছে। সংবাদপত্র বা টেলিভিশন চ্যানেলগুলো কোনো সংবাদ এড়িয়ে গেলেও ফেসবুকে কারও না কারও উদ্যোগে তা প্রকাশ হয়ে যায় এবং উঠে আসে আলোচনায়।

তিনি বলেন, ফলে শুধু যে গণমাধ্যমের উৎস হয়ে উঠছে ফেসবুক তা নয়, অনেক ক্ষেত্রে বিভিন্ন পত্রপত্রিকা ও টেলিভিশনের ওপর চাপও সৃষ্টি করা হয় প্রচার করার জন্য।

ন্যাপ মহাসচিব আরো বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ক্রমশ যে শক্তিশালী হয়ে উঠছে, এটা এখন অনিবার্য সত্য। তাই বলে দেশের প্রতিষ্ঠিত মূলধারার গণমাধ্যম-সংবাদপত্র, টেলিভিশন, বেতারে রাতারাতি ধস নামবে, এটা ভাবার কোনো কারণ নেই। কারণ গণমাধ্যমের পেছনে রয়েছে প্রাতিষ্ঠানিক কাজের দীর্ঘ অভিজ্ঞতা, যার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে প্রযুক্তির নতুন নতুন শক্তি, যেটা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীদের সীমাবদ্ধতার বড় জায়গা।

তিনি আরো বলেন, ফেসবুক এমন একটি জায়গা যেখানে সম্পর্কের উন্নয়নের ক্ষেত্রটা বিশাল। প্রতিনিয়তই দেশ-বিদেশের অনেক অপরিচিত মানুষের সঙ্গে ফেসবুকের কল্যাণে সম্পর্ক স্থাপন করি আমরা। খুব কম মানুষ আছে যাদের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট নেই। জনপ্রিয় এই সাইটটির মাধ্যমে অনেকে যেমন উপকৃত হচ্ছেন, তেমনি সমস্যারও সম্মুখীন হচ্ছেন।

তিনি বলেন, ফেসবুকের গুরুত্ব অনেক। প্রথমদিকে মানুষ এতটা আগ্রহী না হলেও এখন অনেকে নিয়মিত ফেসবুক ব্যবহার করেন নিজের প্রয়োজনে। ভালো-মন্দ মিলিয়ে ফেসবুক এখন এক জনপ্রিয় মাধ্যম সারা বিশ্বে।

জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগ সভাপতি এম. জলিলের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশগ্রহন করেন বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, ন্যাপ-ভাসানী চেয়ারম্যান এম এ ভাসানী, বাংলাদেশ ন্যাপ ভাইস চেয়ারম্যান স্বপন কুমার সাহা, বাংলাদেশ জাসদ নেতা মো. শাহাবুদ্দিন, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সমির রঞ্জন দাস প্রমুখ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে