আন্তর্জাতিক দুই এনজিও সারাদেশে নিষিদ্ধ

কক্সবাজার প্রতিনিধি: আন্তর্জাতিক এনজিও আদ্রা ও আল মারকাজুল ইসলামীকে সারাদেশে নিষিদ্ধ করেছে এনজিও ব্যুরো। গত ২৫ আগস্ট কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গাদের মহাসমাবেশে আর্থিক সহায়তা এবং প্রত্যাবাসনবিরোধী প্রচারণার দায়ে এই এনজিও দুটিকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। একইসঙ্গে এই দুই এনজিও’র ব্যাংকের সব লেনদেন বন্ধ রাখার কথাও বলা হয়েছে। বুধবার (৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে পাঠানো এনজিও ব্যুরো’র একটি প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে এ তথ্য জানা গেছে।
গত ২২ আগস্ট দ্বিতীয় দফার প্রত্যাবাসনের উদ্যোগ ভেস্তে যাওয়ার জন্য বেশ কিছু এনজিও সংস্থার অপতৎপরতাকে দায়ী করা হয়। এছাড়া প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া গত ২৫ আগস্ট বিশাল সমাবেশের আয়োজন করে রোহিঙ্গারা।
জেলা প্রশাসনের সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, এ নিয়ে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি তদন্ত চালানো হয়। এতে রোহিঙ্গাদের মাঝে প্রত্যাবাসনবিরোধী উসকানির ইন্ধন এবং সমাবেশ আয়োজনের গোপন সহায়তার জন্য কয়েকটি বেসরকারি সংস্থার অপতৎপরতার অভিযোগ পাওয়া যায়। পরবর্তী সময়ে তদন্ত প্রতিবেদন এনজিও ব্যুরোর সংশ্লিষ্টদের কাছে পাঠানো হয়।
সত্যতা নিশ্চিত করে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আশরাফুল আফসার জানিয়েছেন, “রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কর্মরত আন্তর্জাতিক এনজিও ‘আদ্রা’ ও ‘আল-মারকাজুল ইসলামী’র বিরুদ্ধে রোহিঙ্গাদের আর্থিক সহায়তা ও মহাসমাবেশে টি-শার্ট, গেঞ্জি সরবরাহের অভিযোগ উঠেছে। এ কারণে তাদের শুধু রোহিঙ্গা ক্যাম্প নয়, সারাদেশের কার্যক্রম বন্ধ রাখার জন্য বলা হয়েছে। একইসঙ্গে এই দুটি এনজিও’র সব ধরনের ব্যাংক লেনদেন বন্ধ রাখার কথা বলা হয়েছে।”
উল্লেখ্য, গত মাসের ২৫ আগস্ট মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গারা দুই বছর পূর্তি উপলক্ষে মহাসমাবেশ করে উখিয়ার কুতুপালং মধুরছড়া মাঠে। এসময় রোহিঙ্গারা সাদা টি-শার্ট ও গেঞ্জি গায়ে দিয়ে সমাবেশে জমায়েত হয়। এত বিপুল সংখ্যক মানুষকে একসঙ্গে টি-শার্ট সরবরাহ করে আন্তর্জাতিক এনজিও আদ্রা ও আল-মারকাজুল ইসলামী।

মতামত দিন

Post Author: newsdesk

A thousand enemies is not enough; a single enemy is. There is nothing as a ‘harmless’ enemy.