অতিরিক্ত পণ্য কিনে বাজার অস্থির করবেন না: বাণিজ্যমন্ত্রী

0
220

করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক খুচরা বাজারের নিত্যপণ্যের ওপর প্রভাব ফেলেছে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

তিনি বলেন, গত দুই দিনে স্কুল-কলেজ বন্ধ করে দেওয়ার পরপরই এই প্রভাব পড়েছে। মানুষ বেশি করে পণ্য কিনে প্যানিক সৃষ্টি করছে। তাই সাধারণ মানুষের প্রতি আহ্বান- অহেতুক বাজারে অস্থিরতা তৈরি করবেন না।

বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যসহ সব ধরনের পণ্যের মজুদ, সরবরাহ ও মূল্য পরিস্থিতি নিয়ে আজ বুধবার (১৮ মার্চ) বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে নিত্যপণ্য আমদানিতে কোনো ধরনের প্রভাব পড়েনি। এ জন্য অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ পণ্য বেশি রয়েছে। তাই প্রয়োজনের অতিরিক্ত পণ্য কিনে অযথা অস্থিরতা সৃষ্টি করবেন না।

তিনি বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়ায় জনগণ আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। তারা হঠাৎ করে প্রয়োজনের তুলনায় বেশি পণ্য ক্রয় করছে। তাই গত দুই দিনে খুচরা বাজারের দামে কিছুটা প্রভাব পড়েছে। গত দুই দিন এ অস্থিরতা তৈরি হয়েছে। তবে পাইকারি বাজারে কোনো পণ্যের দাম বাড়েনি।

বাজারে কোন পণ্যে মজুদ ও সরবারাগে ঘাটতি নেই জানিয়ে টিপু মুনশি বলেন, অতিরিক্ত পণ্য কিনে অহেতুক বাজারে অস্থিরতা তৈরি করবেন না। প্রত্যেকটি পণ্যের যথেষ্ট মজুদ আছে। জনগণ মনে করতে পারে সমস্যা হবে, কিন্তু আসলে কোন সমস্যা হবে না। কারণ, করোনার কারণে নিত্যপণ্য আমদানিতে কোন প্রভাব পড়েনি। কাজেই আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।

‘মুজিববর্ষকে সামনে রেখে ইতোমধ্যে চিনি, ডাল, ভোজ্যতেল ও পেঁয়াজের বিক্রি কম করছে টিসিবি। আসন্ন রমজানে অন্যান্য বছরের তুলনায় ৭ থেকে ১০ গুণ বেশি পণ্য নিয়ে মাঠে থাকবে টিসিবি।’

প্রত্যেকটি পণ্যের যথেষ্ট মজুত আছে। কাজেই আতিঙ্কত হওয়ার কিছু নাই। বৈশ্বিক সমস্যার পরও আমাদের সবকিছু সুদৃঢ় রয়েছে। প্রয়োজনের অতিরিক্ত পণ্য কেনার জন্য হঠাৎ করে বাজারে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে, যোগ করেন বাণিজ্যমন্ত্রী।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে