হরিণাকুন্ডু পৌরসভায় গোপনে নাম সর্বস্ব পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে নিয়োগ দেওয়ার পায়তারা ফাঁস নিয়োগ কার্যক্রম বন্ধ

হরিণাকুন্ডু (ঝিনাইদহ) থেকে ফিরে এসে, ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি, ঝিনাইদহ: ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু পৌরসভায় গোপনে নাম সর্বস্ব পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে নিয়োগ দেওয়ার পায়তারা ফাঁস হয়ে পড়েছে। পত্রিকার অস্তিত্ব না থাকায় জেলা প্রশাসকের দপ্তর থেকে নিয়োগ কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ১৫ জুলাই ছাড়পত্রের মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে।

বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় সরকার বিভাগের পৌর-২ শাখার উপ-সচিব কাজী আসাদুজ্জামান স্বাক্ষরিত পৌর-২/৪৬.০৬৪.০১১.৩২.০২.৪৫৩.২০১১/৩০৯ নং স্মারকে হরিণাকুন্ডু পৌরসভায় স্যানিটারী ইন্সপেক্টর ও সড়ক বাতি পরিদর্শক এ দুটি পদে দুই জন কর্মচারী নিয়োগের নিম্মিত্তে ছাড়পত্র দেয়া হয় এবং ৬ মাসের মধ্যে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে মর্মে নির্দেশক্রমে ছাড়পত্র দেয় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

অভ্যন্তরীন সমষ্যা এবং নিয়োগ নিয়ে সৃষ্ট জটিলতার কারণে ৬ মাস মেয়াদ পূর্ণ হলেও দুটি পদের নিয়োগ কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারেনি পৌর কর্তপক্ষ। এরপর ২ মাস মেয়াদ বৃদ্ধি করে আবারো ছাড়পত্র দেয় স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়।

পৌরসভার কর্মচারী চাকুরী বিধিমালা ১৯৯২ এবং এ সংক্রান্ত অন্যান্য বিধিবিধান যথাযথভাবে অনুসরণপূর্বক একটি জাতীয় দৈনিক ও একটি স্থানীয় দৈনিক পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে বলা হলেও তা করেনি সচিব।

অথচ অসৎ উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য গোপনে শুধু মাত্র নাম সর্বস্ব পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেয় সচিব সন্তোষ কুমার হাজরা, কনজারভেন্সি সুপার ভাইজার হাবিব ও চাকরি প্রার্থীরা। হরিনাকুন্ডুর পৌর মেয়র নিয়াগ কর্তা হলেও তাকে না জানিয়ে গোপনে বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়। বাছাই কমিটি গঠন করে উল্লেখিত পদসমূহে প্রার্থী বাছাইপূর্বক নিয়োগ পক্রিয়া সম্পন্ন করার বিধান থাকলেও তা করা হয়েছে অতি গোপনে।

আঈীনত প্রত্রিকায় প্রকাশিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে ছাড়পত্র নম্বর ও তারিখ উল্লেখ করতে হবে। আবেদনপত্র গ্রহণের জন্য অন্তত ১৪ দিন সময় প্রদানের কথা থাকলেও তাও করা হয়েছে গোপনে রাতের আধারে। আর এ সব কিছু করা হয়েছে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে। প্রার্থীদের কাছ থেকে হাতিয়ে নেয়া হয়েছে লাখ লাখ টাকা।

অতি গোপনে নিয়োগ সম্পন্ন করতে পৌরসভার সচিব সন্তোষ কুমার হাজরা, কনজারভেন্সি সুপার ভাইজার ও চাকরি প্রার্থীরা মিলে নাম সর্বস্ব পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেয়। উক্ত পত্রিকার বিজ্ঞপ্তি নিয়ে জেলা প্রশাসকের দপ্তরে নিয়োগ পরীক্ষার দিন ধার্য করতে এলে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মেজাব-এ রহমত সাফ জানিয়ে দেন যে, পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে এ পত্রিকার কোন অস্তিত্ব নাই।

কাজেই নিয়োগ দেয়া যাবে না। কাজেই মনোকষ্ট নিয়ে সেখান থেকে ফিরে যেতে হয় নিয়োগ কর্তাদের। গোটা হরিণাকুন্ডুতে এ নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে নানা গুঞ্জন।

এলাকাবাসি বহুল প্রচারিত দৈনিকে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে সুষ্ঠু প্রক্রিয়ায় নিয়োগ কার্যক্রম সম্পন্ন করতে জেলা প্রশাসকসহ সংশিষ্ট কর্মকর্তাদের প্রতি আহবান জানান।

Print Friendly, PDF & Email
 

0 Comments

Leave a Reply

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password

%d bloggers like this: