সরকার করোনা ভাইরাসকে হালকা ভাবে নিয়েছে, আমাদের নিজেদেরই সতর্ক হতে হবে – ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধান

0
200

জাগপা সভাপতি ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধান আজ এক বিবৃতিতে বলেছেন, করোনা ভাইরাস এর চিকিৎসা, বিজ্ঞানী কিংবা চিকিৎসকদের হাতে এখনো নাই। তাই বিশ্বের উন্নত দেশসমূহ উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থা হাতে নিয়ে যেখানে নিজেদের দেশ শাট ডাউন করে দিচ্ছে আমরা সেখানে আনন্দ উৎসবে লিপ্ত। বঙ্গবন্ধুর প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা আছে কিন্তু এরকম আতঙ্ক জনক পরিস্থিতিতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর নামে গনজমায়েত কোন ভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। মানিক মিয়া এভিনিউ, হাতিরঝিল সহ বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায় বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর যে উৎসব করে দেশের সাধারণ মানুষের গনজমায়েত করা হল তা বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে কোন দিন হতে দিতেননা। সারা দেশে হাজার হাজার সাস্পেক্টেড কেস আছে যাদের পরীক্ষা করে দেখা খুব জরুরী দরকার। সরকারের হাতে পরীক্ষা করার পর্যাপ্ত কিট নাই, হটলাইনে ফোন করে মানুষ লাইন পাচ্ছেনা, এক আইইডিসিআর এ সারা দেশের মানুষ কি করে পৌঁছাবে? পুরো বিশ্ব যখন করোনা ভাইরাস নিয়ে চিন্তিত ছিল, আমরা তখন আয়োজন করছিলাম জন্মশতবার্ষিকী। আতশবাজি যেন আগরবাতিতে রূপান্তরিত না হয় আমি সেই প্রার্থনা করি। সরকার করোনা ভাইরাসকে হালকা ভাবে নিয়েছে, তাই আমাদের নিজেদেরই সতর্ক হতে হবে। আগামী কিছু দিন আমাদের সতর্ক অবস্থায় থাকতে হবে, জরুরি প্রয়োজন ব্যতীত বাসা থেকে বের হওয়া যাবেনা, গনজমায়েত করা যাবেনা।

অন্যদিকে এক বিবৃতিতে জাগপা সহ-সভাপতি ও মুখপাত্র রাশেদ প্রধান জানিয়েছেন, জাগপা’র প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি শফিউল আলম প্রধান ১৯৭১ সালের ২৩ মার্চ পরাধীন বাংলার স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন করেছিলেন দিনাজপুরে। করোনা ভাইরাসের কারনে এবং প্রতিরোধে, ২৩ মার্চ যুব জাগপা’র “পতাকা উত্তোলন দিবস” এর আলোচনা সভা এবং ২৭ মার্চ জাগপা’র “স্বাধীনতা দিবস” এর আলোচনা সভা স্থগিত করা হয়েছে। ২৬ মার্চ জাগপা জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবে তবে অন্যান্য বছরের মত দলবল নিয়ে গনজমায়েত করে নয়, বরং সংক্ষিপ্ত আকারে।