রাউজানে সেনাবাহিনীর টহল সকল সাপ্তাহিক হাট-বাজার বন্ধ করলেন ইউএনও

0
737

এম বেলাল উদ্দিন, রাউজান
করোনভাইরাস মোকাবেলায় গণসচেতন করতে সারাদেশের পাশাপাশিরাউজানেও সেনাবাহিনীর সদস্যরা মাঠে নেমেছেন। (২৫ মার্চ) বুধবার সকাল থেকে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সেনা বাহিনীর গাড়ী টহল দিতেদেখা গেছে। এসময় সেনা সদস্যরা হ্যান্ড মাইক দ্বারা মানুষকে বিনা প্রয়োজনে ঘরের বাহিরে অবস্থান না করতে এবং করোনা ভাইরাস নিয়ে আতষ্কিত না হয়ে সতর্ক ও সচেতন হওয়া জন্য সরকারি ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে নির্দেশনা মেনে চলার আহবান জানান।

এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন স্থানে মাস্ক ব্যবহার না করে সড়কে আসা বেশকিছু লোকজনকে শাস্তি প্রদান করতে দেখা গেছে সেনাবাহিনীর সদস্যদের। এদিকে বুধবার (২৫ মার্চ) রাউজান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জোনায়েদ কবির সোহাগ করোনা ভাইরাসের বিস্তৃতি রোধের লক্ষ্যে রাউজানে সাপ্তাহিক হাট-বাজারগুলো পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্তবন্ধ রাখতে নির্দেশ দেন। আদেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এছাড়াও সভা সমাবেশ, বিবাহ,মেজবান, ধর্মীয় অনুষ্টান, সাংস্কৃতিক অনুষ্টান, হোটেল রেস্তোরায় জনসমাগম নিষিদ্ধ করেন তিনি। তবে কাঁচাবাজার, খাবার ও ঔষধের দোকান, হাসপাতাল এবং জরুরি সেবাসমুহ চালু থাকবে। খাদ্যদব্য মৃতদেহ দাফন/ সংকার ব্যতিত কেউনিজ গৃহ থেকে বের না হওয়ার নির্দেশ দেন তিনি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জোনায়েদ কবির সোহাগ বলেন, করোনা ভাইরাসে সকল মানুষের স্বাস্থ্য ঝুঁকির কথা বিবেচনা করে উপজেলার সকল ধরণের সাপ্তাহিক হাট-বাজার পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত বন্ধ থাকবে।

আদেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এদিকে বুধবার সকাল থেকে চট্টগ্রাম রাঙ্গামাটি সড়ক, চট্টগ্রাম কাপ্তাই সড়কে যাত্রীবাহি বাস চলাচল বন্ধ ছিল। রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় খাদ্য ও ঔষধের দোকান ছাড়া অন্যান্য দোকান, মাকের্ট, বিভিন্ন
এলকার সড়ক ও হাট বাজারগুলো ফাকাঁ থাকতে দেখা যায়। রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেনায়েদ কবির সোহাগ বলেন, করেনা ভাইরাস এর প্রাদুর্ভাব থেকে জনগনকে রক্ষা করতে রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় জনগনকে সচেতন করার জন্য ব্যাপক ভাবে মাইকিং, লিপলেট দিয়ে প্রচরাণা চলছে। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে রাউজান উপজেলা প্রশাসন সকল প্রকার প্রস্তুতি নিয়েছে বলে তিনি জানান। উল্লেখ্য,রাউজান উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন ও পৌর এলাকায় দুবাই, আবুধাবী,ওমান, কুয়েত, কাতার, সৌদি আরব, ইতালী, ভারত থেকে দেশেফিরে আসা ৩’শত জন প্রবাসী হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে। তাদের মধ্যে দুজন ইতালী প্রবাসী রয়েছে।