রসুন দুধ- একটি বিস্ময়কর ওষুধ

আমরা প্রত্যেকেই জানি রসুন খুবই উপকারী, বিশেষ করে এর ব্যাকটেরিয়া প্রতিরোধী এবং ব্যথা প্রতিরোধী বৈশিষ্ট্য বিভিন্ন রোগ এবং সংক্রমনের বিভিন্ন লড়াই করতে সাহায্য করে।

তবে পানীয় হিসেবে রসুন আরো অনেক বেশি রোগ সারাতে সাহায্য করে। দুধ রসুন একটি প্রাকৃতিক ওষুধ এবং এর অনেক উপকারী বৈশিষ্ট্য রয়েছে। বিশেষ করে কৃমিনাশক এবং বেদনানাশক হিসেবে এই পানীয় খুবই কার্যকর। এছাড়াও সুস্থ জীবন পেতে এটি আরো অনেক রোগ প্রতিরোধে সক্ষম।

রসুন দুধ তৈরির প্রয়োজনীয় উপকরণ

 

৫০০ মিলিলিটার দুধ, ছেলা ও রসুনের খোসা ছাড়ানো ১০ টুকরো এবং কুচি করে কাটা, ২-৩ চা-চামচ চিনি এবং ২৫০ মিলিলিটার পানি।

প্রণালী

 

একটি সসপ্যানের মধ্যে পানি ও দুধ ঢালুন। এবার এর মধ্যে রসুন দিয়ে মিশ্রণটি চুলায় ফোটান। মাঝারি তাপে মিশ্রনটি অর্ধেক ঘন হয়ে অর্ধেক পরিমান না হয়ে যাওয়া পর্যন্ত ফোটাতে থাকুন। মিশ্রণটি ছেঁকে এর মধ্যে চিনি যোগ করুন। গরম হিসেবে এই পানীয় পান সেরা কার্যকারিতা দেবে।

রসুন দুধের কিছু উপকারিতা 

* অ্যাজমা : প্রতিদিন সন্ধ্যায় ৩ টুকরো রসুন খেলে হাঁপানি রোগ থেকে আরাম পাবেন।

* নিউমোনিয়া : দিনে ৩ বার রসুন দুধ পান করলে নিউমোনিয়া দ্রুত নিরাময় হতে পারে।

* হৃদরোগ : খারাপ কোলেস্টেরল হিসেবে পরিচিত এলডিএল কোলেস্টেরলের স্তর কমাতে এই পানীয় কার্যকরী। এটি রক্ত জমাটবদ্ধ হওয়ায় বাধা দেয় ফলে সংবহনতন্ত্রের উন্নতি হয়।

* জন্ডিসের চিকিৎসা : জন্ডিস থেকে আরোগ্য লাভ করতে ৪-৫ দিন রসুন দুধ পান করুন। লিভারের মাধ্যমে শরীরের অবাঞ্চিত টক্সিন থেকে পরিত্রান দিতে রসুন ব্যাপকভাবে সাহায্য করে।

* আথ্রাইটিস : নিয়মিত রসুন দুধ পান বাতের উপসর্গ যেমন ব্যথা এবং প্রদাহ কমাতে পারে।

* অনিদ্রা : ঘুমের সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করে রসুন দুধ।

* কাশি : রসুন দুধের সঙ্গে হলুদ যোগ করুন। কাশি দূর করতে এটি দারুন একটি ওষুধ।

* যক্ষা : রসুন দুধের মিশ্রণ ফুসফুসের রোগের চিকিৎসা হিসেবে খুবই কার্যকরী। রসুনের মধ্যে থাকা সালফার উপাদান, এই রোগের বিরুদ্ধে কার্যকর করে তোলে।

* কোলেস্টেরল : আপনি যদি টানা এক সপ্তাহ প্রতিদিন উষ্ণ রসুন দুধ পান করেন, তাহলে তা এলডিএল কোলেস্টেরল স্তর অর্থাৎ খারাপ কোলেস্টেরল হ্রাস করবে।

* পুরুষত্বহীনতা : পুরুষত্বহীনতা প্রতিকারের জন্য দারুন একটি পানীয় হচ্ছে, রসুন দুধ। পানিতে সেদ্ধ রসুন টুকরো সফলভাবে নারী ও পুরুষের বন্ধ্যাত্ব ঘোচাতে সহায়ক।

তথ্যসূত্র : লিফটার

Print Friendly, PDF & Email
 

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password

%d bloggers like this: