breaking news New

যৌবনকে ধরে রাখতে মাত্র দু’টি ফল খান: মুফতি কাজী ইব্রাহীম

লাইফস্টাইল ডেস্ক: আপনার যৌবনকে ধরে রাখতে মাত্র দু’টি ফল খান। যে ফলগুলোর প্রসঙ্গ মহাগ্রন্থ আল কোরআনে এসেছে তার অন্যতম হলো জয়তুন বা জলপাই। আল্লাহ তায়ালা এরশাদ করেন, ‘আর তিনি এ পানি দ্বারা তোমাদের জন্য উৎপাদন করেন ফসল। জয়তুন (জলপাই) খেজুর, আঙুর ও সব ধরনের ফল। নিশ্চয় এতে চিন্তাশীলদের জন্য নিদর্শন রয়েছে ! (সূরা নাহ্ল : ১১)।

জয়তুন বা জলপাই হচ্ছে এক ধরনের টক ফল। এটি পূর্ব ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলের উপকূলীয় এলাকা, বিশেষ করে লেবানন, সিরিয়া ও তুরস্কের সামুদ্রিক অঞ্চল, ইরানের উত্তরাঞ্চল তথা কাস্পিয়ান সাগরের দক্ষিণে ভালো জন্মে। তাছাড়া ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে তেলের কারণে এর অর্থনৈতিক গুরুত্ব বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে। জলপাই গাছ এক ধরনের চিরহরিৎ বৃক্ষ।

ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চল এশিয়া, বাংলাদেশ ও আফ্রিকার কিছু অংশে এটা ভালো জন্মে। জলপাই গাছ ৮ থেকে ১৫ মিটার লম্বা হয়ে থাকে। এর পাতা ৪ থেকে ১০ সেন্টিমিটার লম্বা ও ১ থেকে ৩ সেন্টিমিটার প্রশস্ত হয়ে থাকে! জলপাই ফল বেশ ছোট আকারের, লম্বায় ১-২.৫ সেন্টিমিটার হয়ে থাকে।

যুদ্ধে শান্তির প্রতীক জলপাইয়ের পাতা এবং মানুষের শরীরের শান্তির দূত জলপাইয়ের তেল, যা অলিভ অয়েল (olive oil) আরবিতে জয়তুন, (জলপাই তেল) যেটাকে liquid gold বা ‘তরল স্বর্ণ’ নামেও ডাকা হয়। হাদিস শরিফে এরশাদ হয়েছে, ‘তোমরা জয়তুন (জলপাই) তেল ভক্ষণ করো এবং শরীরে মাখাও!

(ইবনে মাজা : ৩৩২০)। সেই গ্রিক সভ্যতার প্রারম্ভিক কাল থেকেই এ তেল ব্যবহার হয়ে আসছে রন্ধন কর্মে ও চিকিৎসা শাস্ত্রে। আকর্ষণীয় এবং মোহনীয় সব গুণাবলিই এ জলপাই তেলের মধ্যে রয়েছে। অবশ্য বাংলাদেশে এ তেলের ব্যবহার তেমন একটা নেই।

শুধু শীতকালে শরীরে মাখা বা মালিশের কাজে ব্যবহার হয়, তাও খুবই কম! এছাড়া এ তেল খাওয়ার কাজে ব্যবহার নেই বললেই চলে। তবে জলপাই ফল সবাই খায়। আমাদের দেশে জলপাই খুবই সস্তা এবং এর আচার বেশ জনপ্রিয় এ দেশে।

জলপাই ফলের দামের তুলনায় এর তেলের দাম আকাশচুম্বী! এতে অনেক গুরুত্বপূর্ণ উপাদান রয়েছে. যেগুলো আমাদের শরীর সুস্থ ও সুন্দর রাখে। গবেষকরা জানিয়েছেন, ‘খাবারে জলপাইয়ের তেল ব্যবহারের ফলে শরীরের ব্যাড কোলেস্টরেল নিয়ন্ত্রণ হয় এবং গুড কোলেস্টেরল জন্ম হয়। তাছাড়া পাকস্থলীর জন্য এ তেল অনেক উপকারী।

দেহের এসিড কমায়, যকৃৎ (liver) পরিষ্কার করে, যা প্রতিটি মানুষের ২-৩ দিনে একবার করে দরকার হয়। কোষ্ঠকাঠিন্য রোগীদের জন্য দিনে এক চামচ জলপাই তেল বহু উপকারী। সাধারণত সন্তান জন্মের পর মায়েদের পেটে সাদা রঙের স্থায়ী দাগ পড়ে যায়, গর্ভধারণ করার পর থেকেই পেটে জলপাই তেল (olive oil) মাখলে কোনো জন্ম দাগ পড়ে না।

এটা একটি পরীক্ষিত ব্যাপার। জলপাই তেল গায়ে মাখলে বয়স বাড়ার সঙ্গে ত্বক কুঁচকানো প্রতিরোধ হয়। গবেষকরা ২.৫ কোটি (25 million) লোকের ওপর গবেষণা করে দেখেছেন, ‘প্রতিদিন দুই চামচ কুমারী’ জলপাই তেল (virgin olive oil) এক সপ্তাহ ধরে খেলে ক্ষতিকারক এলডিএল (LDL) কোলেস্টেরল কমায় এবং উপকারী এইচডিএল (HDL) কোলেস্টেরল বাড়ায়। স্প্যানিশ (span) গবেষকরা দেখেছেন, খাবারে জলপাই তেল ব্যবহার করলে ক্লোন ক্যান্সার (colon cancer) প্রতিরোধ হয়।

আরও কিছু গবেষক জানিয়েছেন, ‘এটা ব্যথানাশক (pain killer) হিসেবেও কাজ করে। তাছাড়া গোসলের পানিতে ১ থেকে ৪ চামচ মিশিয়ে গোসল করলে শরীর আরামদায়ক অনুভূত হয়। মেয়েদের রূপ বর্ধনের জন্য এটা অনেকটাই কার্যকর।

জলপাই তেল যে কোষ্ঠকাঠিন্য কমায় তা আল্লামা ইবনুল কাইয়্যুম জাওযি (রহ.) তার (The medicine of the prophet) গ্রন্থে স্পষ্টভাবে উল্লেখ করেছেন! বাজারে কয়েক ধরনের জলপাই তেল (অলিভ অয়েল) পাওয়া যায়।

যেমন : এক. Extra virgin. এটা প্রথম ধাপ, সরাসরি জলপাই থেকে তৈরি। এসিডের পরিমাণ এক শতাংশের নিচে। রান্নার জন্য বা সালাদে গবেষকরা এর প্রস্তাব করেন। দুই. virgin – Extra virgin এর পরের ধাপ এটা। এতে এসিডের পরিমাণ ১ থেকে ২ শতাংশ থাকে। তিন. Refine pure তৃতীয় ধাপ, এতে এসিডের পরিমাণ ৩ থেকে ৪ শতাংশ।

জয়তুন একাধারে ফল ও তরকারি হয়ে থাকে। এর তেল সর্বাধিক পরিষ্কার ও স্বচ্ছ এবং অসংখ্য গুণাগুণ ও বৈশিষ্ট্যের অধিকারী হয়ে থাকে। এটি হাজারো রোগের উত্তম প্রতিষেধক!

যে সময়ের ঘুমে শিশু হবে মেধাবী

আপনার শিশু যদি দুপুরের পরে ঘুমায় সেটা খুবই ভালো অভ্যাস। তাকে ভালোভাবেই ঘুমাতে দিন। দুপুরের পরে আপনার শিশুর এ ঘুমটা ওর মেধা ও স্মৃতিশক্তি বাড়ানোর জন্য চমৎকার কাজ করে। বিশেষ করে এখনও যেসব শিশু স্কুলে যাওয়া শুরু করেনি, তাদের জন্য দুপুরের পর ঘুম খুবই দরকারি। সাম্প্রতিক এক গবেষণায় এমন তথ্য বেরিয়ে এসেছে। গবেষণাটি চালায় যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব ম্যাসাচুসেটস আমহার্স্ট।

গবেষণায় দেখা গেছে, স্কুলে যাওয়ার আগে বাসায় শিশুদের শিক্ষণের যে প্রক্রিয়াটা মা-বাবার কাছ থেকে শুরু হয়, তা ভালোভাবে মাথায় ধারণ করতে হলে বিকেলের ঘুমটা তাদের চাই-ই।

মনোবিজ্ঞানী রেবেকা স্পেন্সার এবং তার সহগবেষক দুই ছাত্রী ক্যাসি ডুক্লোস ও লরা কার্ডজায়েল বলেন, তাদের গবেষণার প্রতিপাদ্য হলো দুপুরের পরে কমপক্ষে এক ঘণ্টা ঘুম শিশুদের প্রাথমিক শিখন ক্ষমতা বৃদ্ধি এবং স্মৃতিশক্তি সংগঠনে দারুণ কার্যকর।

পশ্চিম ম্যাসাচুসেটসের এখনও স্কুল যাওয়া শুরু করেনি, এমন ৪০ শিশুর ওপর গবেষণা চালিয়েছেন রেবেকা স্পেন্সার। গবেষণার ফল উপস্থাপন করতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘এটার ওপর আমরাই প্রথম গবেষণা করেছি। আমরাই দেখিয়েছি, দুপুরের পরের ঘুমটা একটা বাচ্চার জন্য কোনো কিছু দ্রুত শেখা এবং তা মনে রাখার জন্য কতটা জরুরি।’

গবেষণার অংশ হিসেবে শিশুদের সকাল বেলাটায় কিছু জিনিস শেখানো হয়। এটা ছিল অনেকটা ‘মনে রাখা-মনে রাখা’ খেলার মতো। এতে শিশুদের কিছু ছবি দেখানো হয়। তারপর বলা হয়, এগুলোর মধ্যে কী ধরনের পার্থক্য আছে এবং সেগুলো ঠিক কোথায়, তা মনে রাখতে।

অংশগ্রহণকারী শিশুদের দুই ভাগে ভাগ করা হয়। এক ভাগ দিনের বেলায় ঘুমানোর সুযোগ পাওয়া আর বাকিদের দিনে ঘুমাতে দেওয়া হয়নি। যারা ঘুমিয়েছে, তাদের কমপক্ষে ৭৭ মিনিট ঘুমানোর সুযোগ দেওয়া হয়েছে। রাতের বেলা অবশ্য তাদের স্বাভাবিক ঘুমই ঘুমাতে দেওয়া হয়।

পরদিন সকাল বেলা পরীক্ষা করে দেখা হয়েছে, রাতের ঘুম তাদের পারফরম্যান্সের ওপর কোনো প্রভাব ফেলেছে কি-না। দেখা গেছে, বেশির ভাগ বিষয় ভুলে যাওয়াদের মধ্যে আগের দিন বিকেলে ঘুমোয়নি, এমন শিশুর সংখ্যাই বেশি। তাদের মধ্যে ৩৫ ভাগই ঠিকঠাক

মতো মনে রাখতে পারেনি। আর যারা দিনের বেলা ঘুমিয়েছে, তাদের মধ্যে ঠিকঠাক মনে রাখতে পেরেছে ৭৫ শতাংশ। ন্যাশনাল একাডেমী অব সায়েন্স সাময়িকী প্রসিডিংসে প্রকাশিত হয়েছে এই গবেষণার ফল।

মতামত দিন

0 Comments

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Don't have account. Register

Lost Password

Register